জাতীয়

সিঙ্গাপুরের ক্যাসিনোতে বাংলাদেশী জুয়াড়িদের খোঁজে দুদক।

সিঙ্গাপুরের ক্যাসিনোগুলোতে গত পাঁচ বছরে বাংলাদেশের কারা জুয়া খেলেছেন, তাদের খুঁজতে এবার মাঠে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক।
এ বিষয়ে সিঙ্গাপুরের করাপ্ট প্র্যাকটিসেস ইনভেস্টিগেশন ব্যুরোর (সিপিআইবি) সহযোগিতা চেয়ে একটি চিঠি পাঠিয়েছে সংস্থাটি।
চিঠিতে বলা হয়, বাংলাদেশে যারা অবৈধভাবে সম্পদের মালিক হয়েছে এবং বিভিন্ন সময়ে বিদেশে অর্থ পাচার করেছে তাদের দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকার ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি গ্রহণ করেছে। দুর্নীতি দমন কমিশনও সর্বাত্মক অভিযান শুরু করেছে।
এরইমধ্যে গ্রেপ্তার হওয়া কয়েকজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন, তারা সিঙ্গাপুরে বিপুল পরিমাণ অর্থ পাচার করেছেন এবং ওই অর্থ দিয়ে সেখানকার ক্যাসিনোতে জুয়া খেলেছেন।
এসব বাংলাদেশি জুয়াড়ির তালিকা চেয়ে চিঠিতে বলা হয়, “সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে সিঙ্গাপুরের মেরিনা বে এবং অন্যান্য স্থানে ক্যাসিনোতে জুয়া খেলা ব্যক্তিদের পূর্ণ তালিকা দুদকের প্রয়োজন। জানা গেছে, সিঙ্গাপুরের ক্যাসিনোগুলোয় প্রবেশের আগে প্রত্যেক বিদেশিকে তার পাসপোর্ট জমা দিতে হয়।”
সিঙ্গাপুরের ক্যাসিনোগুলোতে গত পাঁচ বছর ধরে জুয়াখেলা বাংলাদেশি নাগরিকদের পাসপোর্ট নম্বর দুদককে সরবরাহ করতে সিপিআইবিকে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে ওই চিঠিতে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে দুর্নীতিবিরোধী শুদ্ধি অভিযান শুরুর পর যুবলীগ, আওয়ামী লীগের মাঝারি পর্যায়ের নেতাদের ক্যাসিনোর কারবারে জড়িত থাকার তথ্য বেরিয়ে আসতে থাকে।
এরপর দুদকও এ বিষয়ে অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় এবং গ্রেপ্তার ক্যাসেনোকাণ্ডে নাম আসা ব্যক্তিদের অবৈধ সম্পদের তথ্য খতিয়ে দেখতে মাঠে নামে।
এ পর্যন্ত তিন সংসদ সদস্যসহ ৩৪ জনের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞাও জারি করেছে দুদক।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker