পুঁজিবাজারবাণিজ্য

দুই বছরের মধ্যে পুঁজিবাজারে একটা বড় পরিবর্তন হবে: বিএসইসি চেয়ারম্যান

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেছেন, দুই বছরের মধ্যে বড় ধরনের পরিবর্তন পুঁজিবাজারে দেখতে পারবেন।

তিনি বলেন, আমরা আশা করি, আগামী দুই বছরের মধ্যে পুঁজিবাজারে অনেক বড় পরিবর্তন দেখতে পাবেন। তখনই আমরা ‘শ্যালো ক্যাপিটাল মার্কেট’ থেকে বেরিয়ে আসতে পারবো। পৃথিবীতে যত বড় বড় ফাইন্যান্সিয়াল হাব বা বাণিজ্যিক কেন্দ্র রয়েছে আমরা সেখানে যাচ্ছি। ইতোমধ্যে আমরা দুবাইয়ে গিয়েছি। সেখান থেকে ভালো রেসপন্স পেয়েছি’।

শনিবার (১৩ মার্চ) ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম (ইআরএফ) আয়োজিত এক অর্থনীতি ও ব্যবসা বিষয়ক মাসিক সংলাপে বিএসইসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম এ আশাবাদ প্রকাশ করেছেন। ইআরএফ সভাপতি শারমিন রিনভী এতে সভাপতিত্ব করেন। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এসএম রাশিদুল ইসলাম।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রোড শো আয়োজনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের পরিচিতি বাড়ানো ও ভাবমূর্তি উন্নয়নেরও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, এতদিন বিদেশীদের কাছে দেশের সব নেতিবাচক দিক তুলে ধরা হয়েছে। তারা আমাদের ভাল দিকগুলো সম্পর্কে জানেন না। আমাদের অর্থনীতি যে অনেক ভাল করছে, আমাদের যে অনেক সম্ভাবনা আছে-এসব তথ্য বিদেশী বিনিয়োগকারীরা তেমন জানেন না। তাই পুঁজিবাজার ও দেশের ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য বিএসইসি বিভিন্ন দেশে রোড শো আয়োজন শুরু করেছে, দুবাই শহরে রোড শো আয়োজনের মাধ্যমে যা শুরু হয়েছে। ওই রোড শোর পর থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে বিদেশী বিনিয়োগকারীরা যোগাযোগ শুরু করেছেন বলে তিনি জানান।

বিএসইসি অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, আগামী জুন মাসে ক্রেডিট এগ্রো সুইচ সুইজারল্যান্ডে বাংলাদেশের পুঁজিবাজার নিয়ে একটি রোড শোর আয়োজন করছে। এটি বাংলাদেশের পুঁজিবাজার ও অর্থনীতির সম্ভাবনার ইঙ্গিত বহন করছে।

আমাদের লোক যদি না যায় দুবাই, মালদ্বিপের গার্মেন্টস এক্সপার্ট হবে না৷ বলেন, বাংলাদেশের মত সস্তা শ্রম, কানেক্টিভিটি অন্য দেশে নাই। তাই চাইলেই কেউ সহজে তৈরি পোশাকের অর্ডার অন্য কোথাও চলে যেতে পারবে না।
জানান, খারাপ কোম্পানি গুলো কে এক্সিট পলিসি দিয়ে বের করে দেয়ার পরিকল্পণা আছে৷

ইনসাইডার ট্রেডিং কেউ করলে আমাদের সফটওয়্যারে ধরা পরে। আমরা তাদের ডেকে সতর্ক করি, জরিমানা করি। সেই নিউজ আমরা পাব্লিক করি না। এটা আতঙ্ক তৈরি করে।

দেশের অর্থনীতির তুলনায় অনেক পিছিয়ে আছে আমাদের পুঁজিবাজার। তবে দ্রুতই এ অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। বড় কিছু সংস্কার শুরু হয়েছে বাজারে। চালু হতে যাচ্ছে নতুন নতুন পণ্য। নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নেওয়া উদ্যোগগুলো বাস্তবায়িত হলে আগামী বছরের শেষ নাগাদ বাংলাদেশ ফ্রন্টিয়ার মার্কেট (Frontier Market) থেকে এমার্জিং মার্কেটে (Emerging Market) উন্নীত হতে পারে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close