ফেসবুক থেকেফেসবুক থেকে

তাইফুর রহমানের হত্যাকে সুকৌশলে আত্মহত্যা নাটক সাজিয়েছিল এস আই আকবর: শান্তা তৌহিদার ফেসবুক থেকে

তাইফুর প্রতীক

হত্যা (আত্মহত্যা?) “মামলার তদন্ত কর্মকর্তা #এসআই_আকবর_হোসাইন_ভূঁইয়া বলেন, তাইফুরের পরিবারের অভিযোগ সত্য নয়, তাঁরা আবেগের বশবর্তী হয়ে অযথা দোষারোপ করছেন।”

– ২ জানুয়ারি ২০২০; প্রথম আলো।
১৪ জানুয়ারি’২০১৯ সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি)-র জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি (জিইবি) বিভাগে স্নাতক (সম্মান) পরীক্ষায় প্রথম শিক্ষার্থী তাইফুর রহমান প্রতীক হত্যাকে সুকৌশলে আত্মহত্যা নাটক সাজিয়েছিল সুরতহাল রিপোর্টে মিথ্যা ও বানোয়াট লিখে পুলিশের সেই কর্মকর্তার নাম #এস_আই_আকবর
সিলেটের রায়হান হত্যা মামলার আসামী পলাতক এস আই আকবরকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে প্রতীক হত্যার রহস্যও খুলে যাবে!
তদন্তকারী কর্মকতা এস আই আকবর কর্তৃক প্রতীকের লাশের তোলা ছবি এবং লাশ নামানোর পর তার প্রস্তুতকৃত সুরতহাল রিপোর্টের প্রাপ্ত গরমিলগুলো হলো:
(ক) মৃতের লাশ নামানোর পূর্বে তোলা ছবিতে মৃতের দুটি চোখ বন্ধ দেখা যায়। অথচ সুরতহাল রিপোর্টে একটি চোখ খোলা ও অপরটি বন্ধ লেখা হয়েছে।
(খ) সুরতহাল রিপোর্টে লেখা আছে, মৃতের ডান হাত অর্ধবাঁকা হয়ে পেটের উপর আছে। অথচ ছবিতে মৃতের দুই হাতই বাঁকা হয়ে গলার পাশে ফাঁসের কাপড়ে আটকানো ছিল। স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে বাম হাতের দুটি আঙ্গুল ফুলে গাঢ় নীল হয়ে আছে।
(গ) সুরতহাল রিপোর্টে লেখা আছে, মৃতের মুখ অর্ধ খোলা এবং জিহ্বায় কামড় দেওয়া। অথচ মৃতের ঝুলন্ত ছবিতে দেখা যায় মৃতের ঠোঁট দুটি একটু ফাঁকা কিন্তু মুখ বন্ধ রয়েছে। মৃতের জিহ্বা বের হয়নি এবং দাঁতে কামড় দেওয়া দৃশ্যমান নয়। প্রকৃতপক্ষে আঘাতের কারনে মৃতের ঠোঁট ফোলা ও রক্তাভ দেখা যায়।
(ঘ) সুরতহাল রিপোর্টে বলা হয়েছে, মৃতের ডান পায়ের পাতা চেয়ারে লেগে থাকার কারনে কালো দাগ আছে। যা সম্পূর্ন বানোয়াট। প্রকৃতপক্ষে ছবিতে মৃতের ডান পা নয় বরং বাম পা প্রায় ৯০ ডিগ্রি বাঁকা অবস্থায় চেয়ারের মাঝখানে পরে আছে। আর যে কালো দাগের কথা বলা হয়েছে তা আঘাতের চিহ্ন বহন করছে। আঘাতের কারনে বাম পা ও এর গোড়ালি মোচড়ানো ও ভাঙ্গা দেখা যায়। বাম পা ও গোড়ালি ভাঙ্গা না থাকলে মৃত্যু যন্ত্রনার সময় পা সোজা হয়ে সে দাড়িয়ে যেত।
(ঙ) যেভাবে ফাঁসের কাপড় গলার উপরে অর্থাৎ থুথুনিতে এবং দুটি হাত ফাঁসের কাপড়ের সাথে আটকানো, মৃত্যু যন্ত্রনায় ছটফট করার সময় উক্ত ফাঁস অবশ্যই খুলে যেত।
(চ) যে পাতলা জাতীয় কাপড় দিয়ে থুথুনিতে লাগানো ফাঁস প্রায় ৮৫ কেজি ওজনের একটি লোক মৃত্যু যন্ত্রনায় ছটফট ও নড়াচড়া কালে তার ভার বহনে যথেষ্ট নয়, তা অবশ্যই ছিঁড়ে যেত।
(ছ) একটি অবাক করার মতো বিষয় যে, ছবিতে ফাঁসের কাপড় এতই দূর্বল ছিল যে তাকে সাপোর্ট দেওয়ার জন্য মৃতের শরীরের প্রায় ৪০ (চল্লিশ) ভাগ চেয়ারের উপর ভর দেওয়া ছিল তা ছবিতে অত্যন্ত পরিষ্কারভাবে লক্ষ্য করা যায়। তাহলে এটি ফাঁসের ঘটনা নয়। হত্যা করে পরিকল্পিতভাবে ফাঁসের নাটক সাজানো হয়েছে।
(জ) সুরতহাল রিপোর্টে নাক ও মুখ দিয়ে সাদা পানি বের হওয়ার তথ্য বিভ্রান্তিকর। ছবিতে এমনটি দৃশ্যমান নয়।
(ঝ) তদন্তকারী কর্মকর্তা মৃতের ভবনের নীচ তলার গেইটে স্থাপিত সিসি টিভির ফুটেজ পরীক্ষার কথা চূড়ান্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করেননি। ২৭/০৩/১৯ইং তারিখে প্রতীকের বাবা নিজে সিসি টিভির ফুটেজ পরীক্ষাকালে দেখেন ঘটনার ১৩/০১/১৯ইং ও ১৪/০১/১৯ইং তারিখের ফুটেজ শূণ্য অথচ ঐ তারিখের আগে ও পরের ফুটেজ রয়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তা চূড়ান্ত প্রতিবেদনে ১৩/০১/১৯ইং রাত আনুমানিক ১০টা হতে রাত ২টার মধ্যে ঘটনা ঘটার কথা উল্লেখ করেছেন। ভবনের কেয়ার টেকার রাহুল জানায়, ঘটনার দিন অর্থাৎ ১৩/০১/১৯ইং রাত ৯টার দিকে প্রতিক তার মৃত অবস্থায় পাওয়া হাফ প্যান্টটি পড়ে বাসা হতে বের হয় কিন্তু প্রতিক ঠিক কয়টায় বাসায় ফিরে আসে সে তা জানাতে পারেনি। তদন্তকারী কর্মকর্তা যেহেতু বলেছেন, ১৩/০১/১৯ইং আনুমানিক রাত ১০টা হতে ঘটনার সূত্রপাত। তাহলে এই সমীকরন মিলে যায় যে, প্রতিককে বাইরে থেকে মেরে এনে তার বাসার ফাঁসে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এটাই প্রতীকের পরিবারের সন্দেহ। কেননা সিসি টিভির এই প্রকার লুকোচুরি এর ইঙ্গিত দেয়।
মৃতের তোলা ছবি ও পরে প্রস্তুতকৃত সুরতহাল রিপোর্টের অসংগতি ও গরমিল এবং সিসি টিভির ফুটেজ না থাকার বিষয়গুলো পর্যালোচনা করলে এটাই পরিস্কার হয় যে, এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। যাকে আত্মহত্যার নাটক সাজানো হয়েছে।
তদন্তের নামে আমাদের সাথে প্রহসন করা হয়েছে! কারণ তদন্ত রিপোর্টেও বলা হয়েছে প্রতীক হতাশা থেকে সুইসাইড করেছে! কিন্তু তার কোন প্রমাণ সে দেখাতে পারিনি।
তাইফুর রহমান প্রতীক হত্যাকে সুকৌশলে আত্মহত্যা নাটক সাজিয়েছিল সুরতহাল রিপোর্টে মিথ্যা ও বানোয়াট লিখে পুলিশের সেই কর্মকর্তার নাম #এস_আই_আকবর
শান্তা তৌহিদার ফেসবুক থেকে নেয়া

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close