অর্থ বাণিজ্যপুঁজিবাজার

পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করুন, এখানে মুনাফা বেশি: গভর্নর

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার বলেছেন, নিম্ন মধ্যম আয় থেকে উচ্চ আয়ের দেশে যেতে আমাদের মাথাপিছু আয় ৯ গুন বাড়াতে হবে। এজন্যে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে।

সোমবার (৩ অক্টোবর) বিকালে আগারগাঁওয়ের বিএসইসির মাল্টিপারপাস হলে প্রধান অতিথি হিসেবে বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার। প্রতিবারের মতো এ বছরও ‘বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহ’ পালন করছে দেশের পুঁজিবাজার।

গভর্নর বলেন, সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগকে নিরুৎসাহিত করতে আমরা সুদহার কমিয়েছি। বিভিন্ন শর্ত দিয়েছি। সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা বিনিয়োগের বিধান করেছি। এতকিছু করেছি যাতে মানুষ সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ কম করে।

তিনি বলেন, সরকারি যে ট্রেজারি বন্ড আছে এগুলো সেকেন্ডারি মার্কেটে ট্রেড করার অটোমেটিক সিস্টেম ইতোমধ্যে তৈরি করা হয়েছে। মগ ট্রায়ালও হয়েছে এবং এটা খুব ভালো কাজ করেছে। আমরা এটা আগামী সপ্তাহ থেকে ট্রায়াল বেসিসে শুরু করতে পারব।

আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, বন্ড মার্কেটের বিকাশে আরেকটা বড় সমস্যা ছিল সঞ্চয়পত্র। সঞ্চয়পত্রে খুব উচ্চ সুদ ছিল। এ কারণে বিনিয়োগের একটা বিরাট অংশ সঞ্চয়পত্রে ঢুকে যেত। এর মাধ্যমে গরিবের টাকা আমরা বড় লোকদের দিয়ে দিতাম। আমি অর্থ সচিবের দায়িত্ব নিয়ে একজন যাতে ৫০ লাখ টাকার বেশি সঞ্চয়পত্র না কিনতে পারে সেই আইন করেছি। এখন কোনো ব্যাংকে ৫০ লাখের বেশি সঞ্চয়পত্র কেনা যায় না। আমরা চাই মানুষ সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ না করে ক্যাপিটাল মার্কেটে করুক।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব শেখ মোহাম্মদ সেলিম উল্লাহ বলেন, শেয়ারবাজারের মূল বিষয় হলো মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস। এটি আমাদের অর্জন করা খুব জরুরি।

তিনি বলেন, ঘরপোড়া গরু সিঁদুরে মেঘ দেখলে ভয় পায়! আর চুন খেয়ে মুখ পুড়লে দই দেখলেও মানুষ ভয় পায়! এটি আমাদের বাস্তবতা, চিরন্তন সত্য বিষয়। সেই ১৯৯৬ আর ২০১০ আমাদের মনে করিয়ে দেয় যে, মানুষজনের আস্থা ও বিশ্বাস এখান থেকে চলে গেছে। যেভাসে সব লোক এখানে ধাবিত হয়েছিল, এসেছিল, এখন তারা মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। তাদেরকে ফেরাতে হলে আমাদের চিন্তা করতে হবে। সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জকে কাজ করতে হবে এবং তারা সে কাজ করছে।

সভাপতির বক্তব্যে বিএসইসির চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেন, পুঁজিবাজারের স্থিতিশীলতা আনতে আমরা কাজ করছি। আস্থা কোথা থেকে, কীভাবে আনব জানি না। তবে, এখানে আর ১৯৯৬ এবং ২০১০ কখনো আসবে না। তাই পুরনো স্মৃতি ভুলে যাওয়াই ভালো।

বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব শেখ মোহাম্মদ সলীম উল্লাহ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ।

এছাড়াও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কমিশনের নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমানের সঞ্চালনায় প্যানেল আলোচনায় অংশ নেন কমিশনের নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম, বিএমবিএ (BMBA) এর প্রেসিডেন্ট মো. ছায়েদুর রহমান, ডিবিএ (DBA) এর প্রেসিডেন্ট রিচার্ড ডি’ রোজারিও এবং বিএপিএলসি (BAPLC) এর সেক্রেটারি জেনারেল মো. আমজাদ হোসেন।

আজ থেকে শুরু হওয়া বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহ চলবে আগামী ১৩ অক্টোবর পর্যন্ত। সপ্তাহব্যাপী এ আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা থেকে শুরু করে কয়েকজন মন্ত্রী অংশ নেবেন বলে আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, বিশ্ব পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রকদের সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন অব সিকিউরিটিজ কমিশনসের (আইওএসসিও) সদস্য লাভ করার পর বাংলাদেশ ২০১৭ সাল থেকে বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহ পালন করে আসছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker