ফিচারলিড স্টোরিশিক্ষাশিশু-কিশোরশুক্রবারের বিশেষ

যৌন পল্লীতে বেড়ে উঠা শিশুরাও চায় শিক্ষার আলো

সকল শিশুকে মূল ধারার শিক্ষা ব্যবস্থায় আনয়ন করা সরকারের একটি অঙ্গীকার।  আর সে শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে যেনো বাদ না যায় কোনো শিশু। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, যৌন পল্লীতে বেড়ে উঠা শিশুদের একটি বড় অংশ বাদ পরে যাচ্ছে প্রকৃত শিক্ষা থেকে।  এমন-ই কিছু তথ্য তুলে ধরেছেন ফারহানা নীলা।

যৌন পল্লীতে বেড়ে উঠা শিশুদের একটি বড় অংশ বাদ পরে যাচ্ছে প্রকৃত শিক্ষা থেকে

যে বয়সে তাদের হাতে থাকার কথা বই। সেই বয়সে ছেলেটির হাতে থাকে মদের বোতল বা সিগারেট।  কিংবা মেয়েটির হাতে থাকে লিপস্টিক ও আয়না সহ , নিজেকে সাজানোর নানা উপকরণ।  এমনই চিত্র দেখা গেছে দেশের বৃহত্তম দৌলতদিয়া যৌন পল্লীর শিশুদের ক্ষেত্রে।  অনেকটা খোলামেলা ভাবেই দেখা যায় যৌনপল্লীতে বড়দের পাশাপাশি শিশু-কিশোররা মাদক ব্যবসা ও সেবনের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে।

আমরা চাই আমাদের শিশুরা স্বাভাবিক ভাবে বেড়ে উঠুক, শিক্ষার আলো থেকে যেনো বঞ্চিত না হয় : মর্জিনা বেগম (নির্বাহী পরিচালক, এমএমএস)

মর্জিনা বেগম গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায় অবস্থিত যৌনকর্মীদের সংগঠন মুক্তি মহিলা সমিতির (এমএমএস) নির্বাহী পরিচালক। ১৩ বছর বয়সে দালালের খপ্পরে পরে তাকে কাটাতে হয়েছে এই যৌন পল্লীতে। কিন্তু তিনি চেয়েছেন তার মতো শৈশব ও কৈশর বয়সে কোনো শিশুর জীবন যেনো ঝড়ে না পড়ে। ১৯৯৫ সালে স্থানীয় বেসরকারি সংস্থা কেকেএসে যোগ দেন। ১৯৯৮ সালে পল্লির সমস্যা সমাধানে ১১ জন মিলে একটি সমিতি গঠন করেন। যার নাম দেন মুক্তি মহিলা সমিতি (এমএমএস)। ১৯৯৯ সালে সমাজসেবা অধিদপ্তর থেকে সমিতির নিবন্ধন পান। যৌনকর্মীর সন্তানদের শিক্ষার সুযোগ তৈরি করা, স্বাস্থ্যসেবা, ভোটাধিকার প্রয়োগসহ বিভিন্ন দাবি নিয়ে আন্দোলন করেন।

মর্জিনা বেগম গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায় অবস্থিত যৌনকর্মীদের সংগঠন মুক্তি মহিলা সমিতির (এমএমএস) নির্বাহী পরিচালক। ১৩ বছর বয়সে দালালের খপ্পরে পরে তাকে কাটাতে হয়েছে এই যৌন পল্লীতে। কিন্তু তিনি চেয়েছেন তার মতো শৈশব ও কৈশর বয়সে কোনো শিশুর জীবন যেনো ঝড়ে না পড়ে। ১৯৯৫ সালে স্থানীয় বেসরকারি সংস্থা কেকেএসে যোগ দেন। ১৯৯৮ সালে পল্লির সমস্যা সমাধানে ১১ জন মিলে একটি সমিতি গঠন করেন। যার নাম দেন মুক্তি মহিলা সমিতি (এমএমএস)। ১৯৯৯ সালে সমাজসেবা অধিদপ্তর থেকে সমিতির নিবন্ধন পান। যৌনকর্মীর সন্তানদের শিক্ষার সুযোগ তৈরি করা, স্বাস্থ্যসেবা, ভোটাধিকার প্রয়োগসহ বিভিন্ন দাবি নিয়ে আন্দোলন করেন। মর্জিনা বেগম বলেন, এখন আমাদের বেশিরভাগ মায়েরাই চায় তাদের সন্তানেরা স্বাভাবিক জীবন যাপন করুক। তাদের সন্তানরা লেখাপড়া করে শিক্ষিত হোক। আমার প্রতিষ্ঠান ৩ থেকে ৫ বছর বাচ্চাদের ফলোআপের মধ্যে রাখে, যাতে তারা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে পারে। এরপর তাদের সেভ দ্যা চিলড্রেনের আন্ডারে দিয়ে দেই। সেখানে স্কুলে শিশুরা লেখাপড়া করে। তিনি জানান, সরকার ও সেভ দ্যা চিলড্রেন কাজ করে যাচ্ছে। অনেক সুযোগ দিচ্ছে। তারপরও আসলে কলেজ লেভেলে গিয়েও, তাদের ফলোআপটা প্রয়োজন।

মর্জিনা বেগম বলেন, এখন আমাদের বেশিরভাগ মায়েরাই চায় তাদের সন্তানেরা স্বাভাবিক জীবন যাপন করুক। তাদের সন্তানরা লেখাপড়া করে শিক্ষিত হোক। আমার প্রতিষ্ঠান ৩ থেকে ৫ বছর বাচ্চাদের ফলোআপের মধ্যে রাখে, যাতে তারা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে পারে। এরপর তাদের সেভ দ্যা চিলড্রেনের আন্ডারে দিয়ে দেই। সেখানে স্কুলে শিশুরা লেখাপড়া করে।

তিনি জানান, সরকার ও সেভ দ্যা চিলড্রেন কাজ করে যাচ্ছে। অনেক সুযোগ দিচ্ছে। তারপরও আসলে কলেজ লেভেলে গিয়েও, তাদের ফলোআপটা প্রয়োজন।

যৌনপল্লীর শিশুদের জন্য সেভ দ্য চিলড্রেনের স্কুল:

যৌনপল্লিতে বেড়ে ওঠা এই শিশুদের এমন পরিবেশ থেকে দূরে রাখতে আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন এখন স্কুল প্রতিষ্ঠা করেছে, যেখানে যৌনপল্লিতে বেড়ে ওঠা পাঁচ বছর বা তার চেয়ে বেশি বয়সী শিশুদের পড়াশোনার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সন্ধ্যাকালীন ক্লাসও রয়েছে ১২ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের জন্য। এই শিশুরা যেন স্বাভাবিকভাবে বেড়ে উঠতে পারে সেজন্য স্কুলের শিক্ষকরাও কাজ করে যাচ্ছেন।

যৌনপল্লীর শিশুদের জন্য সেভ দ্য চিলড্রেনের স্কুল: যৌনপল্লিতে বেড়ে ওঠা এই শিশুদের এমন পরিবেশ থেকে দূরে রাখতে আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন এখন স্কুল প্রতিষ্ঠা করেছে, যেখানে যৌনপল্লিতে বেড়ে ওঠা পাঁচ বছর বা তার চেয়ে বেশি বয়সী শিশুদের পড়াশোনার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সন্ধ্যাকালীন ক্লাসও রয়েছে ১২ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের জন্য। এই শিশুরা যেন স্বাভাবিকভাবে বেড়ে উঠতে পারে সেজন্য স্কুলের শিক্ষকরাও কাজ করে যাচ্ছেন। সেভ দ্যা চিলড্রেনের এডুকেশন প্রোজেক্ট ম্যানেজার মো: সাইফুল ইসলাম খান সেলিম বলেন, পাঁচ বছর বয়স থেকেই শিশুদেরকে এখানে ভর্তি করা হয়। সাধারনত ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের অর্থাৎ মাধ্যমিক পর্যন্ত আমাদের আন্ডারে থাকে। এরপর তারা সঠিকভাবে কলেজে যাচ্ছে কিনা বা লেখাপড়া করছে কি না, সেটা আমরা ফলোআপে রাখি। এবং আমাদের স্কুলে পড়া শিশুরা যাতে এই যৌণ ব্যবসায় জড়িয়ে না পরে, সেটিও ফলোআপে রাখা হয়। সাইফুল ইসলাম খান বলেন, স্কুলের নির্ধারিত সময়ের পরও হোম ওয়ার্ক বা লেখাপড়ার জন্য আমাদের আলাদা ব্যবস্থা রয়েছে। অর্থাৎ তাদের বাসায় একটা কামড়া থাকে। সেখানে হয়তো শিশুটির মা তার ব্যবসা করছে। তাই শিশুটি লেখাপড়া করতে পাচ্ছে না। তাই হোমওয়ার্কের জন্যও স্কুলেও একটি ব্যবস্থা করে দেয়া হয়। যৌনপল্লিতে এখন পর্যন্ত ১ হাজারের অধিক শিশু রয়েছে। বিশাল এই সংখ্যার জন্য এটুকুই যথেষ্ট কি না প্রশ্ন করা হলে সাইফুল ইসলাম বলেন, সরকার যথেষ্ট দিচ্ছে। আমাদের অর্থ এবং সামর্র্থ দিয়ে আমরা যতটুকু পারছি করে যাচ্ছি। তবে অবশ্যই আরো অনেক সহযোগিতার প্রয়োজন রয়েছে।

সেভ দ্যা চিলড্রেনের এডুকেশন প্রোজেক্ট ম্যানেজার মো: সাইফুল ইসলাম খান সেলিম বলেন, পাঁচ বছর বয়স থেকেই শিশুদেরকে এখানে ভর্তি করা হয়।  সাধারনত ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের অর্থাৎ মাধ্যমিক পর্যন্ত আমাদের আন্ডারে থাকে।  এরপর তারা সঠিকভাবে কলেজে যাচ্ছে কিনা বা লেখাপড়া করছে কি না, সেটা আমরা ফলোআপে রাখি।  এবং আমাদের স্কুলে পড়া শিশুরা যাতে এই যৌণ ব্যবসায় জড়িয়ে না পরে, সেটিও ফলোআপে রাখা হয়।

সাইফুল ইসলাম খান বলেন, স্কুলের নির্ধারিত সময়ের পরও হোম ওয়ার্ক বা লেখাপড়ার জন্য আমাদের আলাদা ব্যবস্থা রয়েছে।  অর্থাৎ তাদের বাসায় একটা কামড়া থাকে।  সেখানে হয়তো শিশুটির মা তার ব্যবসা করছে। তাই শিশুটি লেখাপড়া করতে পাচ্ছে না। তাই হোমওয়ার্কের জন্যও স্কুলেও একটি ব্যবস্থা করে দেয়া হয়।

যৌনপল্লিতে এখন পর্যন্ত ১ হাজারের অধিক শিশু রয়েছে।  বিশাল এই সংখ্যার জন্য এটুকুই যথেষ্ট কি না প্রশ্ন করা হলে সাইফুল ইসলাম বলেন, সরকার যথেষ্ট দিচ্ছে।  আমাদের অর্থ এবং সামর্র্থ দিয়ে আমরা যতটুকু পারছি করে যাচ্ছি।  তবে অবশ্যই আরো অনেক সহযোগিতার প্রয়োজন রয়েছে।

নারী শিশুদের জন্য রয়েছে সেফ হোমের রয়েছে, কিন্তু নিজ খরচে থাকতে হয়:

দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে শিশুদের জন্য সেফ হোমের ব্যবস্থা করেছে স্যাভ দ্যা চিলড্রেন।  সেখানে বর্তমানে ৭ থেকে ১৭ বছর বয়সী ৩৯ জন মেয়ে রয়েছে।  বলে জানিয়েছেন সেভ দ্যা চিলড্রেনের এডুকেশন প্রোজেক্ট ম্যানেজার মো: সাইফুল ইসলাম খান সেলিম।

তিনি জানান, এই সেফ হোমে থাকার প্রধান শর্ত হল, এখানে একবার আসলে তাদের কাউকে আর যৌনপল্লিতে ফিরে যেতে দেয়া হবেনা।  এই সেফ হোমে প্রতিটি মেয়েকে মাসে একটি খরচ দিতে হয়। এর একটি অংশ স্যাভ দ্যা চিলড্রেন বহন করলেও বাকিটা মেয়ের মায়েদের দিতে হয়। তাই যাদের সামর্থ রয়েছে, এবং যাদের মায়েরা চান না যে, তার মেয়ে এই ব্যবসায় নামুক, তারা মেয়েকে টাকা দিয়ে হলেও এখানে রাখেন।  এই মেয়েরাও আশা করেন এই সেফ হোম থেকে পড়াশোনা শেষে চাকরি করে মা’কে এই পরিবেশ থেকে নিয়ে যাবে।

এই সেফ হোমে মাত্র ৫০ জন শিশুকে রাখার ব্যবস্থা রয়েছে।  এটা যথেস্ট কি না সেই প্রশ্নের জবাবে সাইফুল ইসলাম বলেন, হয়তো যথেস্ট নয়। তবে অনেক সময় দেখা যায়, ৫০ টি সিট পূর্ণ নতুন কাউকে জায়গা দিতে পারছিনা। আবার, অনেক সময়, মেয়েরা এখান থেকে পাস করে বেরিয়ে ভালো পরিবেশে লেখাপড়ায় চলে যায়।  হোস্টেলে ভর্তি হয়।  তখন সিট খালি থাকলেও তাদের মেয়েদের পাওয়া যায় না।

নারী শিশুদের জন্য রয়েছে সেফ হোমের ব্যবস্থা, থাকতে হয় নিজ খরচে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে শিশুদের জন্য সেফ হোমের ব্যবস্থা করেছে স্যাভ দ্যা চিলড্রেন। সেখানে বর্তমানে ৭ থেকে ১৭ বছর বয়সী ৩৯ জন মেয়ে রয়েছে। বলে জানিয়েছেন সেভ দ্যা চিলড্রেনের এডুকেশন প্রোজেক্ট ম্যানেজার মো: সাইফুল ইসলাম খান সেলিম। তিনি জানান, এই সেফ হোমে থাকার প্রধান শর্ত হল, এখানে একবার আসলে তাদের কাউকে আর যৌনপল্লিতে ফিরে যেতে দেয়া হবেনা। এই সেফ হোমে প্রতিটি মেয়েকে মাসে একটি খরচ দিতে হয়। এর একটি অংশ স্যাভ দ্যা চিলড্রেন বহন করলেও বাকিটা মেয়ের মায়েদের দিতে হয়। তাই যাদের সামর্থ রয়েছে, এবং যাদের মায়েরা চান না যে, তার মেয়ে এই ব্যবসায় নামুক, তারা মেয়েকে টাকা দিয়ে হলেও এখানে রাখেন। এই মেয়েরাও আশা করেন এই সেফ হোম থেকে পড়াশোনা শেষে চাকরি করে মা'কে এই পরিবেশ থেকে নিয়ে যাবে। এই সেফ হোমে মাত্র ৫০ জন শিশুকে রাখার ব্যবস্থা রয়েছে। এটা যথেস্ট কি না সেই প্রশ্নের জবাবে সাইফুল ইসলাম বলেন, হয়তো যথেস্ট নয়। তবে অনেক সময় দেখা যায়, ৫০ টি সিট পূর্ণ নতুন কাউকে জায়গা দিতে পারছিনা। আবার, অনেক সময়, মেয়েরা এখান থেকে পাস করে বেরিয়ে ভালো পরিবেশে লেখাপড়ায় চলে যায়। হোস্টেলে ভর্তি হয়। তখন সিট খালি থাকলেও তাদের মেয়েদের পাওয়া যায় না। যৌনপল্লিতে জন্ম নেয়া শিশুদের ওপর আশেপাশের পরিবেশের প্রভাব থেকেই যায়: সেখানকার এক শিক্ষকের সাথে কথা বলে জানা যায়, যৌনপল্লিতে জন্ম নেয়া শিশুদের ওপর আশেপাশের পরিবেশের প্রভাব কিছুটা থেকেই যায়। অনেক মেয়ে শিশুই তাদের মায়ের মতো করে সাজে। অনেকে ব্যাগে করে আয়না, চিরুণী নিয়ে আসতো। তো আমরা শিক্ষকরা তাদের বুঝাই। বলি যে " এসব কাজ করা যাবে না। লেখাপড়া করে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার হতে হবে। তিনি বলেন এই শিক্ষকরা চেষ্টা করেন তাদের কাছে পড়তে আসা শিশুদের দ্রুত স্বাভাবিক পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে হলে অবশ্যই সকল শিশুকে শিক্ষার আওতায় আনতে হবে : এডভোকেট সালমা আলী বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির নির্বাহী পরিচালক অ্যাডভোকেট সালমা আলী বলেছেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে হলে সকল শিশুদেরকেই শিক্ষার আওতায় আনতে হবে। সব শিশুরাই আমাদের সম্পদ। যেহেতু তারাও একটি দেশের নাগরিক। তাহলে একটি শিশু ঝড়ে পরা মানে হচ্ছে, একটি সম্পদ ঝরে পরা। তবে সরকার বা এনজিও যা করার করছে। সেই সাথে এই শিশুদের অভিভাবকদেরও থাকতে হবে ইচ্ছা। সাধারণত অভিভাবকদের দেখা যায়, অর্থের অভাবে মেয়ে সন্তানদের এই পেশায় যেতে বাধ্য করছে। তবে আইনে আছে ১৮ বছরের নিচে কাউকে এই পেশায় আনা যাবে না। আবার নিজের অজান্তে মেয়েটিই জড়িয়ে পরছে এই পেশায়। আবার এই পল্লীর বাইরের সাধারণ স্কুলে এই শিশুরা পড়তে পারে না। কারন সামাজিকতার অভাব। করনীয় : সংশ্লিষ্ট সকলের মতামতে উঠে এসেছে কিছু করনীয়: প্রথমত, অন্তত ১২ বছরের উর্দ্ধে বয়সী শিশু কিশোরদের এই পল্লীর বাইরে নিয়ে যেতে হবে ভালো পরিবেশে। যেমন, ঢাকার কোনো হোস্টেলে থেকে লেখাপড়ার ব্যবস্থা। দ্বিতীয়ত, সেফ হোমে সন্তানদের খরচের একটি অংশ কিন্তু মায়েদেরই দিতে হচ্ছে। যেটা বহন করতে তাদের জন্য কষ্ট হয়ে যায়। তাই সেই খরচটি সরকার বা এনজিও প্রতিষ্ঠানগুলো বহন করলে আরো অনেক শিশু কিশোর লেখাপড়ায় আগ্রহী হবে। মায়েরাও আগ্রহী হবে সন্তানদের সুস্থ পরিবেশে নিয়ে আসতে। তৃতীয়ত, সামাজিকতার দৃষ্টিভঙ্গীর পরিবর্তন একটি বড় বিষয়। সাধারণত, বাইরের কোনো স্কুলে বা হোস্টেলে সন্তানদের দিতে গেলে প্রতিষ্ঠানটি যখন জানতে পারে, সে দৌলতদিয়া থেকে এসেছে, তখনই তাকে আর ভর্তি করানো হয় না। কারন ওই শিশুর সাথে মিশে অন্য শিশুরাও খারাপ কিছু শিখতে পারে। আবার যদি সে কিশোরী হয়, তখন ভাবা হয় যে, সে ওই পেশা থেকেই এসেছে। তাই সামর্থ বা ইচ্ছা থাকলেও সুযোগের অভাবে তারা আসল শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে না। তাই এই সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গী পরিবর্তনটা জরুরী। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পল্লীর সচেতন কয়েক জন যৌনকর্মী জানিয়েছেন, দৌলতদিয়া যৌনপল্লীকে ঘিরে যে পরিমাণ এনজিও গড়ে উঠেছে, ওইসব এনজিও যদি তাদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতো তবে এই পল্লীতে যৌনকর্মীর সংখ্যা অনেক কমে যেত। অথচ তা না করায় এই পল্লীতে শিশু-কিশোরী যৌনকর্মীর সংখ্যা বেড়েই চলছে। এবং শিক্ষা থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে তারা।

যৌনপল্লিতে জন্ম নেয়া শিশুদের ওপর আশেপাশের পরিবেশের প্রভাব থেকেই যায়:

সেখানকার এক শিক্ষকের সাথে কথা বলে জানা যায়, যৌনপল্লিতে জন্ম নেয়া শিশুদের ওপর আশেপাশের পরিবেশের প্রভাব কিছুটা থেকেই যায়। অনেক মেয়ে শিশুই তাদের মায়ের মতো করে সাজে। অনেকে ব্যাগে করে আয়না, চিরুণী নিয়ে আসতো।  তো আমরা শিক্ষকরা তাদের বুঝাই।  বলি যে ” এসব কাজ করা যাবে না।  লেখাপড়া করে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার হতে হবে।

তিনি বলেন এই শিক্ষকরা চেষ্টা করেন তাদের কাছে পড়তে আসা শিশুদের দ্রুত স্বাভাবিক পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে।

 

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে হলে অবশ্যই সকল শিশুকে শিক্ষার আওতায় আনতে হবে : এডভোকেট সালমা আলী

এডভোকেট সালমা আলীবাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির নির্বাহী পরিচালক অ্যাডভোকেট সালমা আলী বলেছেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে হলে সকল শিশুদেরকেই শিক্ষার আওতায় আনতে হবে।  সব শিশুরাই আমাদের সম্পদ।  যেহেতু তারাও একটি দেশের নাগরিক। তাহলে একটি শিশু ঝড়ে পরা মানে হচ্ছে, একটি সম্পদ ঝরে পরা।  তবে সরকার বা এনজিও যা করার করছে।  সেই সাথে এই শিশুদের অভিভাবকদেরও থাকতে হবে ইচ্ছা।  সাধারণত অভিভাবকদের দেখা যায়, অর্থের অভাবে মেয়ে সন্তানদের এই পেশায় যেতে বাধ্য করছে।  তবে আইনে আছে ১৮ বছরের নিচে কাউকে এই পেশায় আনা যাবে না।  আবার নিজের অজান্তে মেয়েটিই জড়িয়ে পরছে এই পেশায়।  আবার এই পল্লীর বাইরের সাধারণ স্কুলে এই শিশুরা পড়তে পারে না। কারন সামাজিকতার অভাব।

করনীয় :

সংশ্লিষ্ট সকলের মতামতে উঠে এসেছে কিছু করনীয়:

 প্রথমত, অন্তত ১২ বছরের উর্দ্ধে বয়সী শিশু কিশোরদের এই পল্লীর বাইরে নিয়ে যেতে হবে ভালো পরিবেশে।  যেমন, ঢাকার কোনো হোস্টেলে থেকে লেখাপড়ার ব্যবস্থা।

 দ্বিতীয়ত, সেফ হোমে সন্তানদের খরচের একটি অংশ কিন্তু মায়েদেরই দিতে হচ্ছে।  যেটা বহন করতে তাদের জন্য কষ্ট হয়ে যায়।  তাই সেই খরচটি সরকার বা এনজিও প্রতিষ্ঠানগুলো বহন করলে আরো অনেক শিশু কিশোর লেখাপড়ায় আগ্রহী হবে।  মায়েরাও আগ্রহী হবে সন্তানদের সুস্থ পরিবেশে নিয়ে আসতে।  

তৃতীয়ত, সামাজিকতার দৃষ্টিভঙ্গীর পরিবর্তন একটি বড় বিষয়।  সাধারণত, বাইরের কোনো স্কুলে বা হোস্টেলে সন্তানদের দিতে গেলে প্রতিষ্ঠানটি যখন জানতে পারে, সে দৌলতদিয়া থেকে এসেছে, তখনই তাকে আর ভর্তি করানো হয় না। কারন ওই শিশুর সাথে মিশে অন্য শিশুরাও খারাপ কিছু শিখতে পারে।  আবার যদি সে কিশোরী হয়, তখন ভাবা হয় যে, সে ওই পেশা থেকেই এসেছে। তাই সামর্থ বা ইচ্ছা থাকলেও সুযোগের অভাবে তারা আসল শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে না।  তাই এই সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গী পরিবর্তনটা জরুরী।

এডভোকেট সালমা আলী

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পল্লীর সচেতন কয়েক জন যৌনকর্মী জানিয়েছেন, দৌলতদিয়া যৌনপল্লীকে ঘিরে যে পরিমাণ এনজিও গড়ে উঠেছে, ওইসব এনজিও যদি তাদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতো তবে এই পল্লীতে যৌনকর্মীর সংখ্যা অনেক কমে যেত। অথচ তা না করায় এই পল্লীতে শিশু-কিশোরী যৌনকর্মীর সংখ্যা বেড়েই চলছে।  এবং শিক্ষা থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে তারা।

ফারহানা নীলা.

সিনিয়র রিপোর্টার

নিউজ নাউ বাংলা

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected