করোনাজাতীয়ফিচার

করোনা সংক্রমণ কমাতে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার

কোভিড ১৯ এর কারণে থমকে গেছে গোটা বিশ্ব। এই ভাইরাস সংক্রমণ রোধের একমাত্র উপায় এক মানুষ থেকে অন্য মানুষের সংস্পর্শে না আসা। কিন্তু সেটি কী করে সম্ভব? প্রতিদিন মানুষকে খাদ্য জোগাড় থেকে শুরু করে হাজারো কাজে মানুষ কে মুথোমুখি হতে হয়। মানুষের সংস্পর্শে ছড়ানো এই ভাইরাস প্রতিরোধে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার অনেকটাই কাজে লেগেছে। তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার করে দেশে কোভিড সংক্রমণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে রাখা গেছে। বিস্তারিত খবর তুলে এনেছেন রায়হান উদ্দীন।
করোনা সংক্রমণ কমাতে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার
সাদমান সাদিক  একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করেন। বাবা-মা, ভাই -বোন নিয়ে থাকেন থিলগাঁও ,গোড়ান এলাকায়। বাবা অবসরপ্রাপ্ত আর মা গৃহিনী । বাসার প্রতিদিনের বাজার মূলত বাবাই করেন। হঠাৎ করেই টেলিভিশনে , খবরের কাগজে শুনতে পেলেন কোভিড ১৯ নামে একটি ছোঁয়াচে ভাইরাস বিশ্বব্যাপী আতংক তৈরী করেছে। মানুষের সংস্পর্শে তা ছড়িয়ে পড়ছে । এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছে মানুষ। ঝুঁকির তালিকায় বেশি রয়েছেন বয়স্ক ব্যক্তিরা। বাংলাদেশে মার্চ মাসের আট তারিখে প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী সনাক্ত হয়। সরকার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে ২৬ মার্চ থেকে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেন।
সাদমানের অফিস থেকেও জানানো হলো তার এখন অফিসে যাবার প্রয়োজন নেই, তিনি বাসায় থেকেই অফিস করতে পারবেন। গুরুত্পূর্ণ সকল বৈঠক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে অনলাইনেই সারতে পারবেন। সিদ্ধান্ত নিলেন বাসার বাজারের জন্যে বৃদ্ধ বাবাকে আর বাজারে যেতে দেবেন না, অনলাইন সেবাদান কারী প্রতিষ্ঠান থেকে নিত্য পণ্যগুলো জোগাড় করে নেবেন। আর এভাবেই অনলাইন সেবার মাধ্যমে নিত্য দিনের বাজার থেকে শুরু করে প্রয়োজনীয় অনেক জিনিস বাড়িতে বসেই পেয়ে গেছেন মানুষ। ফলে মানুষের বাড়ির বাইরের যাবার প্রয়োজন অনেক কমেছে। বলা যায় সংক্রমণ অনেকটা নিয়ন্ত্রণে রাখা গেছে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে।
করোনা সংক্রমণ কমাতে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার
ইন্টারনেটে ঘেঁটে তথ্য বের করা শহরের শিক্ষিত সমাজের জন্য সহজ হলেও সারাদেশের মানুষের জন্য তা মোটেও সহজ নয়। পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের ভুয়া তথ্য, সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে মানুষকে বিপাকে ফেলে দেয়। এইসব দিক মাথায় নিয়ে সরকারের আইসিটি ডিভিশন উদ্যোগী হয় এ সকল সমস্যা দুর করে মানুষের কাছে সঠিক তথ্য সহজে পৌঁছে দিতে।
কোভিড রোগীর অসুস্থতা সর্বোচ্চ পর্যায়ে কৃত্রিম শ্বাসপ্রশ্বাসের জন্য অপরিহার্য ভেন্টিলেটর। ভেন্টিলেটর সংকটে ভোগা বাংলাদেশের পাশে দাঁড়িয়েছে আয়ারল্যান্ডভিত্তিক প্রতিষ্ঠান মেডট্রনিক। পিবি ৫৬০ ভেন্টিলেটর তৈরির পেটেন্ট, ডিজাইন, হার্ডওয়ার ও সফটওয়্যারের সোর্স কোড উন্মুক্ত করে দিয়েছেন এর চেয়ারম্যান বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ওমর ইশরাক। তাদের সহায়তায় আইসিটি মন্ত্রণালয়ের তত্বাবধানে দেশে তৈরি হচ্ছে বিশ্বমানের ভেন্টিলেটর।
ভেন্টিলেটর
এরই মধ্যে কাজ শেষ দেশের ইলেকট্রনিক্স পণ্য নির্মাণ প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের। সরকারি অনুমোদন পেলে শিগগিরই বাজারে আসবে বিশ্বমানের ভেন্টিলেটর।
করোনা সংক্রমণ কমাতে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার
ওয়ালটনের ভেন্টিলেটর প্রজেক্টের হেড অব ইলেকট্রনিক্স প্রকৌশলী মালেক শিকদার জানান, যেহেতু ভেন্টিটেলর একটি সংবেদনশীল যন্ত্র এবং এর পারফরমেন্সের সাথে মানুষের জীবন সরাসরি জড়িত, তাই খুব সতর্কতার সঙ্গে আমরা কাজ করছি। আমরা ইতোমধ্যেই ভেন্টিলেটর উৎপাদন করেছি। সরকারের অনুমোদন পেলেই বাজারে আসবে এই ভেন্টিলেটর।
এদিকে, দেশে কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকায় তাদের সংস্পর্শে আসাদের শনাক্তে ‘কন্টাক্ট ট্রেসিং অ্যাপ’ চালু করে সরকার। এই অ্যাপটি সংক্রমিত ব্যক্তিকে খুঁজে বের করতে কাজ করবে।
কোভিড রোগীর অসুস্থতা সর্বোচ্চ পর্যায়ে কৃত্রিম শ্বাসপ্রশ্বাসের জন্য অপরিহার্য ভেন্টিলেটর। ভেন্টিলেটর সংকটে ভোগা বাংলাদেশের পাশে দাঁড়িয়েছে আয়ারল্যান্ডভিত্তিক প্রতিষ্ঠান মেডট্রনিক। পিবি ৫৬০ ভেন্টিলেটর তৈরির পেটেন্ট, ডিজাইন, হার্ডওয়ার ও সফটওয়্যারের সোর্স কোড উন্মুক্ত করে দিয়েছেন এর চেয়ারম্যান বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ওমর ইশরাক। তাদের সহায়তায় আইসিটি মন্ত্রণালয়ের তত্বাবধানে দেশে তৈরি হচ্ছে বিশ্বমানের ভেন্টিলেটর।
আইটি বিশেষজ্ঞ আরিফ মঈনুদ্দীন জানান, অ্যাপটি ব্যবহারকারীর বিভিন্ন তথ্য বিশ্লেষণ করে জানিয়ে দেবে তিনি করোনা আক্রান্ত কারো কাছাকাছি ছিলেন কিনা। পাশাপাশি আক্রান্ত ব্যক্তি কোথায় কোথায় গিয়েছিলেন, কার সংষ্পর্ষে এসেছিলেন তাও জানা যায় এ অ্যাপের মাধ্যমেই। ফলে কেউ আক্রান্ত হলে তার সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের জানিয়ে সতর্ক করা যাবে।
ভেন্টিলেটর
এ বিষয়ে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ পলক বলেন, এই অ্যাপসটি করোনা মোকাবিলায় দারুন ভূমিকা রেখে চলেছে। ভবিষ্যতে ফিচার ফোনে অ্যাপসটি সংযুক্ত করতে কাজ করছে তার মন্ত্রণালয়। করোনা প্রেক্ষাপটে দেশব্যাপী লকডাউনে শিক্ষার্থীদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে মোট অনলাইন ক্লাস প্রচারিত হয়েছে ৬৫০টি এবং আপদকালীন সময়ে শিক্ষা কার্যক্রমে ৮০০ জনেরও অধিক শিক্ষক যুক্ত রয়েছেন।
ভার্চুয়াল কোর্ট সিস্টেম প্ল্যাটফর্মটির মাধ্যমে ৮৭টি নিম্ন আদালত শুরু হয়েছে। কার্যক্রম শুরু হওয়ার ৭ দিনে ৭ হাজারেরও অধিক জামিন শুনানির তারিখ নির্ধারণ এবং ৫ হাজারের অধিক ভার্চুয়াল শুনানি সম্পন্ন করা হয়েছে। করোনা সচেতনতায় বিভিন্ন ধরণের মোট ৫৮০টি কনটেন্ট প্রস্তুত করা হয়েছে।
করোনা সংক্রমণ কমাতে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার
বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ সোশ্যাল মিডিয়া, বিলবোর্ড ও অন্যান্য মাধ্যমে সচেতনতামূলক কনটেন্ট প্রচারের মাধ্যমে ইতোমধ্যে সাড়ে ১০ কোটি নাগরিকের কাছে এই প্রচারণা পৌঁছে দেওয়া সম্ভব।
কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবের শুরুতেই নাগরিকদের করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত যেকোনো পরামর্শের জন্য করোনা পোর্টাল চালু করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত নাগরিকগণ ১ কোটি বার এই পোর্টালে ভিজিট করেছেন। করোনা বিষয়ক তথ্য সেবা, টেলিমেডিসিন সেবা, জরুরি খাদ্য সহায়তা, সেলফ করোনা টেস্টিংসহ সকল সেবার হেল্পলাইন ৩৩৩। এই হেল্পলাইন নম্বরের মাধ্যমে এখন পর্যন্ত ২৩ লক্ষ লোককে সহায়তা করা হয়েছে।
ভেন্টিলেটর
করোনা বিষয়ক ই-লার্নিং কোর্সের মাধ্যমে প্রায় ২৬ হাজারেরও অধিক ডাক্তার প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন। এদের মধ্যে প্রায় ১৫ হাজার প্রশিক্ষণ শেষে সনদ গ্রহণ করেছেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র আয়েশা আক্তার জানান, করোনা যুদ্ধে সরকারের বেশ কয়েকটি মন্ত্রণালয় নিরলসভাবে কাজ করছে, আইসিটি মন্ত্রণালয় তাদের মধ্যে অন্যতম। ভেন্টিলেটর মেশিন তৈরি ও কনট্র্যাক ট্রেসিং অ্যাপের মাধ্যমে করোনা প্রতিরোধে তারা প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখছে।
এছাড়া অনলাইনে করোনা পরীক্ষার ফর্ম পূরণ, হেল্পলাইন ও পোর্টাল চালু করা সহ নানা উদ্যোগ নিয়েছে আইসিটি মন্ত্রণালয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected