জাতীয়

নতুন ১৬৫০ প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত নীতিমালা পূরণে ব্যর্থ হলে বাতিল: প্রধানমন্ত্রী

শিক্ষা নীতিমালার নির্দেশনা পুরণ করতে ব্যর্থ হলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তি বাতিল করার হুশিয়ারি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
যুগোপযোগী শিক্ষা ও সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিতে নতুন এমপিওভুক্তি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতি নির্দেশও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
সম্প্রতি নতুন নীতিমালা বাতিল করে পুরোনো নিয়মে স্বীকৃতি পাওয়া সব বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির দাবীতে বিভিন্ন পর্যায়ের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২ হাজার ৭শ ৩০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চূড়ান্ত করে।
গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সামনে শিক্ষামন্ত্রী তুলে ধরেন এমপিওভুক্তির জন্য এক হাজার ৬শ ৫০ টি নিম্নমাধ্যমিক,মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কলেজের তালিকা।
বক্তৃতায় শিক্ষার প্রসার ও পৃষ্ঠপোষকতায় সরকারের অবস্থান তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা । নীতিমালার নির্দেশনা অনুসরণ না করলে এমপিওভুক্তি বাতিল করারও ঘোষণা দেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নীতিমালা করা এবং সে অনুযায়ী স্কুলগুলোর যাচাই-বাছাই করতে কিছু সময় লেগেছে। যাচাই-বাছাই করে আমরা ২ হাজার ৭৩০ প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করেছি। আগামীতে যারা এমপিওভুক্ত হতে চান তাদের অবশ্যই নীতিমালার নির্দেশনা পূরণ করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘কোথায় কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হবে, কীভাবে শিক্ষাকে নিয়োগ হবে সেই পরিকল্পনা করেছি আমরা। এখন যত্রতত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠছে। কিন্তু সবগুলোর মান ভালো নয়। স্কুলগুলো যাতে তাদের মান ঠিক রাখে তাই আমরা নীতিমালা তৈরি করেছি। এমপিওভুক্তির দাবিতে শিক্ষকরা আন্দোলনও করেছেন। আমরা বলেছিলাম সবই করবো। আমরা সব করেছিও।’

তিনি আরও বলেন, ‘ইচ্ছে হলো কিংবা রেশারেশির বা রাজনৈতিক কারণে স্কুল তৈরি হয়। এমপিওভুক্ত বা সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তির শিক্ষকদের টাকা প্রতিষ্ঠানে চলে যেত। আমরা ঠিক করলাম যার যার বেতন তার তার কাছে যাবে। পে-অর্ডারের মাধ্যমে টাকা পৌঁছে যাবে। এরপর মাসিকভিত্তিতে যখন টাকা পাঠালাম তখন ৬০ হাজার শিক্ষককে আর পাওয়া গেল না।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষাকে অধিক গুরুত্ব দিচ্ছি। তাই শিক্ষা খাতে বাজেটে বরাদ্দ সবচেয়ে বেশি দিয়েছি। স্কুলে স্কুলে কম্পিউটার ল্যাব তৈরি করে দিচ্ছি, যাতে আধুনিক শিক্ষা থেকে ছেলেমেয়েরা বঞ্চিত না হয়। অনলাইনে অনেকে চাকরি করতে পারছে। আমরা সেভাবে প্রশিক্ষণ দিচ্ছি। কওমি মাদ্রাসাগুলোতেও সনদের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে। সনদ না থাকাতে তারা কাজ পেতো না। প্রাতিষ্ঠানিক অনুমোদন প্রয়োজন ছিল। তারাও এদেশের সন্তান, তাদের কথাও চিন্তা করতে হবে।’
প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা যাতে কর্মক্ষেত্রে প্রয়োগের সুযোগ থাকে এমনভাবে শিক্ষার্থীদের গড়ে তোলার আহবান জানান সরকার প্রধান।
আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তুলতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker