অর্থ বাণিজ্য

বাংলাদেশে চীনা বিনিয়োগের বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে: বিএসইসি চেয়ারম্যান

”ডোন্ট ওয়েস্ট টাইম এনিমোর, নাউ ইটস টাইম ফর গোয়িং টু বাংলাদেশ, ইফ ইউ ডিলে, ইউ উইল বি দ্যা লুজার, সো ওয়েলকাম টু বাংলাদেশ অর্থাৎ আর এক মুহুর্ত সময় নষ্ট করো না, এখনই বাংলাদেশে যাওয়ার মোক্ষম সময়, যদি দেরি করো, সুযোগ হারাবে। বাংলাদেশে তোমাদের স্বাগতম।” বাংলাদেশে চাইনিজ ব্যবসায়ী ও কোম্পানির বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে মঙ্গলবার ‘দ্য রাইজ অব বেঙ্গল টাইগার: ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট অপরচুনিটিজ বিটুইন বাংলাদেশ অ্যান্ড চায়না’ শীর্ষক বিজনেস সামিটে চীনা বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ প্রস্তাব দেন বিএসইসি চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম।

প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত স্বয়ং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোযোগ দিয়ে শুনছিলেন শিবলী রুবাইয়াতের কি নোট উপস্থাপনা। দুই দেশের ব্যবসায়ী, উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের সামনে অনর্গল ইংরেজিতে প্রাঞ্জল বর্ণনায় তুলে ধরেন সম্ভাবনাময় বাংলাদেশকে। মঞ্চ জুড়ে তার সাবলিল বিচরণ, তথ্যবহুল আলোচনা আর দৃঢ়, প্রত্যয়ী কন্ঠ বার্তা দিচ্ছিলো, আজকের বাংলাদেশকে উপেক্ষা করার আর কোনো উপায় নেই।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, আমাদের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগ করে থাকেন। আমাদের পুঁজিবাজার ৬৮ বিলিয়ন ডলার মার্কেট ক্যাপ রয়েছে। সেখানে ৩৫৬টি কোম্পানি তালিকাভুক্ত রয়েছে। আমাদের ইকুইটি মার্কেট এখন ডেবট মার্কেট থেকে ছোট অবস্থানে রয়েছে। তাই আমাদের ইকুইটি মার্কেটে যথেষ্ট বিনিয়োগের সম্ভাবনা রয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের সরকারি ট্রেজারি বন্ড দিন দিন খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এ ছাড়া ব্লু বন্ড ও সরকারি ট্রেজারি বন্ড চালু রয়েছে। আমাদের সরকারি ইনফ্রাস্ট্রাকচার খাতে বিনিয়োগ করতেও পারেন।

তিনি আরও বলেন, চীন ও বাংলাদেশ উভয়েই ২৫ বিলিয়ন ডলারের বেশি মূল্যের প্রকল্পের জন্য সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষর করেছে। এতে চীনের বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগে উল্লেখযোগ্য সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারবেন।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, ক্রমবর্ধমান ক্রয়ক্ষমতা এবং দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিসহ বাংলাদেশ বিশ্বের ৮ম জনবহুল দেশ। দেশটি বিভিন্ন বাণিজ্য চুক্তি, একটি স্থিতিশীল রাজনৈতিক জলবায়ু, কৌশলগত ভৌগলিক অবস্থান এবং যুক্তিসঙ্গত মজুরির কারণে কম উৎপাদন খরচ থেকে উপকৃত হয়। এসব কারণ বাংলাদেশকে ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য একটি আকর্ষণীয় গন্তব্যে পরিণত করেছে।

এ সময় দুই দেশের বাণিজ্যিক সম্পর্ক এবং পারস্পরিক সহযোগিতার কথা তুলে ধরেন বিএসইসি চেয়ারম্যান।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন মিয়া। স্বাগত বক্তব্যের পর বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের উপর অডিও-ভিজুয়াল প্রদর্শিত হয়।

এ সময় অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন মিয়া, দেশটিতে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত, বিভিন্ন প্রাতিষ্ঠানিক ও ব্যক্তি বিনিয়োগকারী এবং স্টেকহোল্ডার, ঢাকায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত ইয়াও ওয়েন, চীন এবং বাংলাদেশের বিনিয়োগকারী, শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button