জাতীয়

স্কুল থেকে ট্রাফিক আইন সম্পর্কে সচেতন করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর।

স্কুল থেকেই শিশুদের ট্রাফিক আইন সম্পর্কে সচেতন করার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, সড়কে দুর্ঘটনা কমাতে যানবাহনের চালক ও পথচারী উভয়কেই সচেতন হতে হবে।
বুধবার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে সড়ক যোগাযোগ উন্নয়নের কয়েকটি প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘আমি সবসময় বলে আসছি , স্কুল থেকেই ট্রাফিক আইন সম্পর্কে আমাদের ছেলেমেয়েদেরকে সচেতন করতে হবে। আমি মনে করি প্রতিটি স্কুল থেকেই এই শিক্ষাটা দেওয়া একান্ত দরকার।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নিরাপদ সড়কের কথা আমরা বলছি। আমরা নিরাপদ সড়ক আইন প্রণয়ন করেছি। আমাদের দেশের মানুষ যারা সড়কে চলাচল করেন, তারা সচেতন না। তাদের সচেতন হতে হবে। যারা রাস্তা পারাপার হবেন, তাদের ডানে-বামে সবদিক খেয়াল রেখে পার হতে হবে। আবার রাস্তায় যারা গাড়ি চালান, তাদেরও সচেতন হতে হবে। কারণ যানবাহনের অহেতুক প্রতিযোগিতা করতে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনা হয়। তাই এই ব্যাপারে সবাইকে দায়িত্বশীল ভূমিকা নিতে হবে। তা না হলে দুর্ঘটনা ঘটবে।’
দুর্ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখার ক্ষেত্রে দুর্ঘটনাকবলিত চালকের পাশাপাশি ভুক্তভোগী পথচারীর কোনো ভুল আছে কি না তাও বিবেচনায় নিতে হবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।
প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সিংয়ে ময়মনসিংহ- গফরগাঁও টোক সড়কে বানার নদীর উপর সেতু, ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের ইন্দ্রপুল হতে চক্রশালা পর্যন্ত বাঁক সরলীকরণ, সাতক্ষীরা শহর বাইপাস সড়ক, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভুলতায় ৪ লেন বিশিষ্ট ফ্লাইওভার, মুন্সিগঞ্জের ঝুঁকিপূর্ণ ১৩টি সেতু স্থায়ী কংক্রিট সেতু দ্বারা প্রতিস্থাপনের উদ্বোধন করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সাল থেকে ধারাবাহিকভাবে টানা সরকারে থাকার কারণেই উন্নয়ন কাজ গতি পেয়েছে, বাস্তবায়ন হচ্ছে এবং মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হচ্ছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, রাজধানী থেকে জেলা, উপজেলা, গ্রাম পর্যন্ত একটা সড়ক নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার ব্যাপক কর্মসূচি আমরা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি।
ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট জেলাগুলোর বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের সঙ্গেও মতবিনিময় করেন বঙ্গবন্ধু কণ্যা।
পরে আরেকটি ভিডিও কনফারেন্সে ঢাকা-কুড়িগ্রাম-ঢাকা রুটের আন্তঃনগর ট্রেন চালু এবং রংপুর এক্সপ্রেস ও লালমনিরহাট এক্সপ্রেসের র‍্যাক প্রতিস্থাপনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।
সেসসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রে বিএনপি সরকার রেল বন্ধ করে দেয়ার চেষ্টা চালিয়েছিল।
রেল খাতকে লাভজনক করে যাত্রীসেবার মান বাড়ানোরও নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker