মন্তব্য কলাম

শিনশু বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশী কমিউনিটি।আতিক, জাপান

উচ্চ শিক্ষার ক্ষেএে জাপানের নাম অনেকের কাছে সমাদৃত কারন দেশটি সংস্কৃতি এবং প্রযুক্তিগতভাবে সমৃদ্ধ ও উন্নত । তাই আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য এটি একটি আকাঙ্ক্ষিত গন্তব্য ।আমি ব্যক্তিগতভাবে নিম্নলিখিত পাঁচটি কারণকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করি।
১)জাপানের শিক্ষাব্যবস্থা খুব ভাল এবং সুসংহত । তার প্রমান হচ্ছে জাপান তার অসাধারণএকাডেমিক ঐতিহ্যের জন্য এশিয়ার সর্বোচ্চ নোবেল পুরস্কার বিজয়ীদের গৌরব অর্জন করেছে। ২)আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন শিক্ষা ব্যবস্থার কারনে প্রতিযোগিতামুলক জব মার্কেটে সত্যিই এই ডিগ্রি কে অনেক মূল্যায়ন করা হয়।
৩)জাপান থাকার জন্য যদিও একটি ব্যয়বহুল দেশ তারপর ও বিদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য অনেক আর্থিক কর্মসূচি রয়েছে । যেমন সরকারী, বেসরকারী ফাউন্ডেশন এবং কর্পোরেশন সহায়তা করে থাকে।তাছাড়া অন্যান্য দেশের তুলনায় এখানে ছাএরা সপ্তাহে সব চেয়ে বেশী কাজ করতে পারে। তাই অর্থ সাশ্রয় করা সম্ভব ।
৪)স্কুল এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পপাস গুলোর পরিবেশ বিদেশী ছাএছাএীদের জন্য খুব সহায়ক তারা সব সময় উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান।
৫)এখানে আসার পর সবাই নতুন এক সাংস্কৃতির অভিজ্ঞতা লাভ করে এবং প্রাচীনতম সংস্কৃতি ও ইতিহাসের সংস্পর্শে আসার সুযোগ ঘটে।

যাইহোক অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশ থেকে ও প্রতিবছর অনেক ছাত্রছাত্রী উচ্চতর ডিগ্রি অর্জনের জন্য জাপানের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আগমন করেন। তাদের মধ্য কেউ আসেন ভবিষ্যতে সুন্দর ক্যারিয়ার তৈরির আশায় আবার কেউ আসেন বর্তমানে কর্মরত পেশার পরবর্তী ধাপে অনুপ্রবেশর অন্যতম শর্ত হিসাবে। কিন্ত আসার পর তারা যে সমস্যায় পড়ে সেটা হলো ভাষা ও হালাল খাবার । বড় শহর গুলোতে হালাল খাবার পাওয়া গেলেও দুরের শহরে তার দেখা মেলা ভার। জাপানে নাগানো কেনের এই রকমের ছোট একটি শহর ইনা। যেখানে শিনশু বিশ্ববিদ্যালয় এর একটি ক্যাম্পস রয়েছে। এখানে কিছু সংখ্যক বাংলাদেশী ছাএছাএী তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে অধ্যয়নরত আছেন ; সংখ্যার দিক দিয়ে এই ক্যাম্পাসে বাংলাদেশের অবস্হান দ্বিতীয় । হ্যাঁ যেটা বলার জন্য আমার এই ক্ষুদ্র চেষ্টা তা হলো আমরা যে ধর্মীয় অনুশাসন ও পরিবেশে রড় হয়েছি তার উপস্হিতি নাই বললে চলে সমপন্ন বৈরী অবস্তা । প্রথম প্রথম খুব খারাপ লাগে। কিন্ত কিছু করার নেই চলে নতুন পরিবেশে নিজেকে মানিয়ে নেবার নিরলস চেষ্টা । সেই চেষ্টাকে আরো এক ধাপ সামনে এগিয়ে নিল পার্শ্ববর্তী এলাকার একটি নতুন মসজিদ। বছর দুই আগে পাশের কোথাও মসজিদ ছিল না ফলে ধর্মীয় অনুষ্ঠানের দিন গুলো কাটতো খুব কষ্টে ।যাই হোক এই মসজিদের সুবাদে প্রথম বারের মতো ঈদুল ফিতর উৎযাপন করার জন্য সেখানে গিয়েছিলাম। অনেক দুর -দুরান্ত থেকে বাংলাদেশীরা এসেছিল ঈদের নামায আদায়ের জন্য। এ যেন বিদেশের মাটিতে এক ফসলা শান্তির বৃষ্টি ।পরিচয় হলো অনেকের সাথে তৈরি হলো নতুন বাংলাদেশী কমিউনিটি । এই তো কয়দিন আগে আবার ও সবাই মিলিত হলাম ঈদুল আযহা উৎযাপন করার জন্য । এরই ধারাবাহিকতায় গত পরশু হয়ে গেল আরেক টা মিলন মেলা।এ যেন বিদেশের মাটিতে এক খন্ড বাংলাদেশ ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker