জাতীয়

বিএনপির রাজনীতি নিষিদ্ধসহ ৫ দফা দাবি বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের

মানবাধিকার লঙ্ঘনের অপরাধে, বিএনপির রাজনীতি নিষিদ্ধসহ ৫ দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

আজ সোমবার বিকাল ৩টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের মোজাফফর আহমদ চৌধুরী অডিটরিয়ামে “অগ্নি সন্ত্রাসের আর্তনাদ: স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি বিএনপি-জামাতের অগ্নি-সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিচার দাবি” শীর্ষক আলোচনা সভা ও তথ্যচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। আর এ আয়োজনে তাদের দাবি তুলে ধরে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নেতারা।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন এর সঞ্চালনায় উক্ত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আপীল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক বিএম মোজাম্মেল হক, সাবেক পররাষ্ট্র সচিব অ্যাম্বাসেডর বীর মুক্তিযোদ্ধা ওয়ালিউর রহমান, এ্যাড. খোদেজা নাসরিন এমপি, শহীদ খালেদ মোশাররফের বোন রীণা মোশাররফ, বীর মুক্তিযোদ্ধা জহির উদ্দিন জালাল, রুহুল আমিন মজুমদার, দেওয়ান কামাল, ভাস্কর রাশা ও ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ চৌধুরীসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

আলোচনা সভার শুরুতে বিএনপি-জামাতের অগ্নি-সন্ত্রাসের ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়। প্রায় ২০ জন আগুনে দগ্ধ ব্যক্তি উপস্থিত থেকে বিভীষিকাময় দিনগুলোর কথা বর্ণনা করেন।

আলোচনা সভায়, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, “বিগত ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচন পূর্ববর্তী ও পরবর্তী স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি বিএনপি-জামাত সমগ্র দেশে আগুন সন্ত্রাস চালিয়ে নিরীহ মানুষদেরকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করে বাংলাদেশকে ব্যর্থ ও অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করার চেষ্টা করেছিল। সেই নৃশংস বর্বরতার মর্মস্তুত ঘটনা দেশবাসী যেন ভুলে না যায় এবং সেই দিন যেন কখনোই ফিরে না আসে, সেজন্য সবাইকে সোচ্চার থাকতে হবে। খুনী জিয়ার মরণোত্তর বিচার করতে হবে। এজন্য মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কে রাজপথে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।”

বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, “২০১৩, ১৪ ও ১৫ সালে তথাকথিত আন্দোলনের নামে দেশব্যাপী বিএনপি-জামায়াত চক্রের নৈরাজ্য ও সহিংসতায় ৫০০ জন মানুষ নিহত হন এবং প্রায় ৩ হাজার ৬০০ জনেরও বেশি আহত হয়। বলেন, ‘অগ্নি সন্ত্রাসের আর্তনাদ: স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি বিএনপি-জামাতের অগ্নি সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিচার দাবি’ শীর্ষক আলোচনা ও তথ্যচিত্র প্রদর্শনী দেশে-বিদেশে আয়োজন করতে হবে।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক বলেন, “২০১৩ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত বিএনপির ধারাবাহিক আগুন সন্ত্রাস মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন। অগ্নি সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির অপরাধে চখা রাজাকার পুত্র মির্জা ফখরুলসহ বিএনপি-জামাতের সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি ক্ষমতায় আসার মাধ্যমে এদেশে গণতন্ত্রের বিজয় হয়েছিল। এই বিজয়ের ধারা যেকোন মূল্যে অব্যাহত রাখতে বঙ্গবন্ধু কন্যার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য সবসময় বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কে মাঠে থাকতে হবে। বলেন, বিএনপির অবৈধ সামরিক শাসক খুনী জিয়া কর্তৃক বিনা বিচারে হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধা সামরিক অফিসারকে ও সৈনিককে হত্যার অপরাধে খুনি জিয়ার মরণোত্তর বিচার করতে হবে।”

ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ চৌধুরী বলেন, “কিছুদিন আগে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল কর্তৃক খালেদা ও তারেককে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আখ্যা দিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধাদেরকে চরমভাবে অবমাননা করা হয়েছে। গয়েশ্বর চন্দ্র মহান মুক্তিযুদ্ধকে বাই চান্স বলে আখ্যা দিয়েছে। বিএনপির নেতারা এখন মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি, সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করে জনগণের স্বাভাবিক জীবন-যাপন বিঘ্নিত করার অপরাধে বিএনপি-জামাতের সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।”

সংগঠন সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, “বঙ্গবন্ধুকে জাতির পিতা মেনে এদেশে সকল রাজনৈতিক দলকে রাজনীতি করতে হবে। বিএনপিসহ কতিপয় গণতন্ত্র মঞ্চ নামক রাজনৈতিক দোকানগুলো এখনও পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুকে জাতির পিতা হিসেবে মেনে নেয়নি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে অস্বীকার করা মানে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে অস্বীকার করার শামিল। বাংলাদেশে এদের রাজনীতি করার কোন অধিকার নেই।”

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন বলেন, “নির্বাচন কমিশনের নিকট আহ্বান, অবিলম্বে দেশব্যাপী সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টি, মহান মুক্তিযুদ্ধকে অবমাননা, ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনে আগুন সন্ত্রাস, সম্প্রতি রাষ্ট্র বিরোধী ষড়যন্ত্র করার অপরাধে বিএনপি নামক অগ্নি সন্ত্রাসী দলের রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাতিল করতে হবে। খুব শীঘ্রই স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি ও অগ্নি সন্ত্রাসী দল বিএনপি-জামাতের রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাতিলের দাবিতে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে নিয়ে নির্বাচন কমিশন অভিমুখে পদযাত্রা করা হবে।

২০১৩ সালে আগুনে পুড়ে দগ্ধ হওয়া সংসদ সদস্য এ্যাড. খোদেজা নাসরিন বলেন, “পাকিস্তানের আইএসআইয়ের গুপ্তচর জিয়া কখনোই বাংলাদেশের পক্ষে ছিলেন না। হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধা সামরিক অফিসার ও সৈনিকদের হত্যাকারী খুনী জিয়ার বাই চান্স ওয়েতে তৈরী করা বিএনপি-জামাত মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধ্বংস করার জন্য গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। বাংলাদেশে বিএনপি-জামাত রাজনীতি করার নৈতিক অধিকার হারিয়েছে।”

সাবেক পররাষ্ট্র সচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাম্বাসেডর ওয়ালিউর বলেন, “মানবতা বিরোধী দল বিএনপি-জামাতের ধারাবাহিক আগুন সন্ত্রাস ও মানুষ হত্যার বিষয়ে বিশ্বের মানবাধিকার সংগঠনগুলোর নীরবতা আমাদেরকে অনেক ব্যথিত করেছে। হিউমান রাইটস ওয়াচ ও অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের নিকট আমরা নিরপেক্ষ আচরণ প্রত্যাশা করি। জাতিসংঘসহ বিশ্ব সম্প্রদায়ের নিকট দাবি, ২০১৩ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত রাজনীতির নামে বিএনপি-জামাতের মানবাধিকার লঙ্ঘন, অগ্নি সন্ত্রাস, হাজার হাজার মানুষ পুড়িয়ে হত্যা, ধর্ষণ, হামলা ও নির্যাতনের বিচার করতে হবে।

সংগঠনের উপদেষ্টা ড. জয়নুল আবেদীন রোজ বলেন, “বিএনপি-জামাত আগুন সন্ত্রাসের মাধ্যমে আবার সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের রাজত্ব কায়েম করতে চাচ্ছে। এরা ক্ষমতায় থেকে জঙ্গিবাদকে রাষ্ট্রীয়ভাবে পৃষ্ঠপোষকতা প্রদান করেছিল। হাওয়া ভবনের নীলনকশা অনুসারে তৎকালীন বিরোধী দল আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করে ক্ষমতা কুক্ষিগত করতে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা, ৬৩টি জেলায় একযোগে ৫৫০টি বোমা হামলা, বাংলাভাই ও জেএমবির উত্থানসহ সারাদেশে এক বিভীষিকাময় পরিস্থিতির সৃষ্টি করা হয়েছিল। এদের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা এখন সময়ের দাবিতে পরিণত হয়েছে।”

বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন মজুমদার বলেন, “বীর মুক্তিযোদ্ধারা অস্ত্র জমা দিয়েছেন কিন্তু ট্রেনিং জমা দেননি। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার আহ্বানে প্রয়োজনে আবার স্বাধীনতা বিরোধীদের নির্মূল করতে মাঠে নামবে বীর মুক্তিযোদ্ধারা।”

আলোচনা সভা ও অগ্নি সন্ত্রাসের তথ্যচিত্র প্রদর্শনীতে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ৫ দফা দাবি জানিয়েছে। দাবিসমূহ যথাক্রমে-

১। মানবাধিকার লঙ্ঘন করে দেশব্যাপী পুলিশের ওপর বোমা হামলা, ২০১৩ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত হাজার হাজার গণপরিবহনে অগ্নিসংযোগ, ৫০০ জন মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা, অগ্নি সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করার অপরাধে বিএনপি-জামাতকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে ঘোষণা ও দলীয় নিবন্ধন বাতিলসহ এদের রাজনীতি স্থায়ীভাবে নিষিদ্ধ করতে হবে।

২। মানবাধিকার লঙ্ঘন করে বিএনপি-জামাত জোটের শাসনামলে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় সারাদেশে একযোগে বোমা হামলা, অগ্নি সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ সৃষ্টি, খুন, ধর্ষণ ও নির্যাতনের সাথে জড়িতদেরকে বিশেষ ট্রাইবুনালে বিচার করতে হবে।

৩। কমিশন গঠনের মাধ্যমে ১৯৭৫ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধা সামরিক কর্মকর্তা ও সৈনিক হত্যার অপরাধে অবৈধ সামরিক শাসক খুনি জিয়ার মরণোত্তর বিচার করতে হবে।

৪। মানবাধিকার লঙ্ঘন করে আন্দোলনের নামে সমগ্র দেশে আগুন দিয়ে হাজার হাজার মানুষ পুড়িয়ে হত্যা, খুন, ধর্ষণ ও নির্যাতনের অপরাধে বিএনপি-জামাতের সন্ত্রাসীদেরকে বিশেষ ট্রাইবুনালে বিচার করতে হবে।

৫। জঙ্গিবাদ, অগ্নি সন্ত্রাস, দুর্নীতি, ধর্ষণ ও বোমা হামলার মদদদাতা বিদেশে পলাতক আসামি খাম্বা তারেক রহমানকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করতে হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker