জাতীয়

হজ প্যাকেজ নির্বাচন ও নিবন্ধন স্থানান্তরে করণীয় বিষয়

সরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদের হজ প্যাকেজ নির্বাচন এবং নিবন্ধন স্থানান্তরে করণীয় বিষয়ে জরুরি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সরকারি ব্যবস্থাপনাধীন বিদ্যমান নিবন্ধিত হজযাত্রীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে জানানো যাচ্ছে যে, ২০২২ সালের অনুষ্ঠিতব্য হজে বাংলাদেশের হজযাত্রীদের জন্য দুটি প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে। প্যাকেজ-১ এর মূল্য ৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ টাকা এবং প্যাকেজ-২ এর মূল্য ৪ লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকা।

এতে আরও বলা হয়, ২০২০ সালের ৩টি প্যাকেজে নিবন্ধিত সব হজযাত্রীকে আগামী ১৬ মে থেকে ১৮ মে’র মধ্যে যে কোনো নিবন্ধনকেন্দ্র থেকে ২০২২ সালের ঘোষিত যে কোনো একটি প্যাকেজে নিবন্ধন নিতে হবে। এজন্য ২০২০ সালে পরিশোধিত অর্থ সমন্বয় করে ২০২২ সালের যে কোনো একটি প্যাকেজের অবশিষ্ট অর্থ ভাউচারের মাধ্যমে সোনালী ব্যাংকে জমা দিতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নতুন হজ প্যাকেজ অনুসারে নিবন্ধনের দুদিনের মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদের পাসপোর্ট নিজ দায়িত্বে বিনা ব্যর্থতায় ঢাকার আশকোনার হজ অফিসে জমা দিতে হবে। এ সময়ের মধ্যে পছন্দের প্যাকেজ নির্ধারণ করে নিবন্ধন না করলে এ বছর তিনি হজে যেতে ইচ্ছুক নন বলে গণ্য হবেন এবং তার পূর্বের নিবন্ধন বাতিল বলে গণ্য হবে।

এতে আরও বলা হয়, ৬৫ বছর বয়স ঊর্ধ্ব হজযাত্রীর ক্ষেত্রে তার পরিবারের সদস্যরা শূন্য কোটায় হজে যেতে অগ্রাধিকার পাবেন। পরিবারের সদস্যদের পর অবশিষ্ট শূন্য কোটায় সরকারি হজযাত্রীদের ক্ষেত্রে প্রাক-নিবন্ধনের ক্রমানুসারে প্রথম দিকের ব্যক্তিরা নিবন্ধনের সুযোগ পাবেন। এজন্য তাদের মোবাইলে এসএমএস (ক্ষুদে বার্তা) দেওয়া শুরু হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, সরকারি ব্যবস্থাপনায় ইতোপূর্বে প্রাক-নিবন্ধিত (২৫ হাজার ৯২৪ পর্যন্ত ক্রমের প্রাক-নিবন্ধিত) ব্যক্তিদের ১৮ মে’র মধ্যে অর্থ পরিশোধ করার জন্য যে কোনো নিবন্ধন সেন্টার (ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, ডিসি অফিস বা ঢাকা হজ অফিস) থেকে একক বা ইউনিটভিত্তিক হিসেবে পূর্ববর্তী বছরের মতো নিবন্ধন ভাউচার তৈরি করে নিবন্ধন সম্পন্ন করবেন। এ সময়ের মধ্যে পছন্দের প্যাকেজ নির্ধারণ করে নিবন্ধন না করলে এ বছর তিনি হজে যেতে ইচ্ছুক নন বলে গণ্য হবেন।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৮ জুলাই সৌদি আরবে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। এবার বাংলাদেশ থেকে ৫৭ হাজার ৫৮৫ জন হজ পালনের সুযোগ পাবেন। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৪ হাজার জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায়  ৫৩ হাজার ৫৮৫ জন হজে যেতে পারবেন।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected