জাতীয়ব্যাংকিং

জাল এনআইডি তৈরি চক্রের পাঁচজন গ্রেফতার

নিউজ নাউ বাংলা ডেস্কঃ রাজধানীর মিরপুর মডেল থানা এলাকা থেকে জাল, দ্বৈত ও ভূয়া জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রবিবার ১৩ সেপ্টেম্বর ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ(ডিএমপি) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানায়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গ্রেফতারকৃতরা জাল জাতীয় পরিচয়পএ দিয়ে খেলাপিদের বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ উত্তোলনে সহায়তা করতো।

সংঘবদ্ধ অপরাধ ও গাড়ি চুরি প্রতিরোধে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা লালবাগ বিভাগের টিম গতকাল শনিবার দিবাগত রাতে রাজধানীর মিরপুরের চিড়িয়াখানা রোডের ডি-ব্লক এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, মো. সুমন পারভেজ (৪০), মো. মজিদ (৪২), সিদ্দার্থ শংকর সূত্রধর (৩২), মো. আনোয়ারুল ইসলাম (২৬) ও মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন (৪১)। তাদের হেফাজত থেকে জাল ও ভূয়া ১২টি জাতীয় পরিচয় পত্র উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, ব্যাংকের লোন নিয়ে কেউ ঋণ খেলাপি হলে তাদের সিআইবি খারাপ হয়, ফলে পুনরায় তারা ব্যাংকে লোনের জন্য আবেদন করতে পারেন না। তখন গ্রেফতারকৃত সুমন ও মজিদ লোন পাস করে দিবে বলে প্রথমে জাল জাতীয় পরিচয় পত্র তৈরির জন্য প্রত্যেকের নিকট হতে ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা নিতেন। পরবর্তী সময়ে লোন পাস হলে লোনের সমূদয় টাকার শতকরা ১০ ভাগ দিতে হবে বলে চুক্তি করতেন। এ জাল পরিচয় পত্র তৈরি করে দিতেন তাদের অপর সহযোগি গ্রেফতারকৃত সিদ্দার্থ শংকর সূত্রধর ও মো. আনোয়ারুল ইসলাম। তারা প্রত্যেকটি জাল জাতীয় পরিচয় পত্র তৈরি বাবদ ৩৫ হাজার থেকে ৪০ হাজার টাকা করে নিতেন।

সিদ্দার্থ শংকর সূত্রধর ও আনোয়ারুল ইসলাম ই-জোন কোম্পানীর মাধ্যমে আউট সোর্সিংয়ে নিয়োগকৃত নির্বাচন কমিশনের অধীনে খিলগাঁও ও গুলশান অফিসে ডাটা এন্ট্রি অপারেটর হিসেবে কাজ করার কারণে তারা নির্বাচন কমিশন অফিসের সফটওয়্যার ব্যবহার করে সহজেই জাল জাতীয় পরিচয় পত্র তৈরি করতে পারতেন।

তারা এ পন্থা অবলম্বন করে এমন অনেককে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে লোন উত্তোলন করে দিয়েছেন বলে গোয়েন্দা সূত্রে জানা যায়। তাদের বিরুদ্ধে মিরপুর মডেল থানায় মামলা করা হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close