জাতীয়

বাঁচিয়ে দিলো সুন্দরবন: ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

সরকারের সার্বিক প্রস্তুতির কারণে ক্ষয়ক্ষতি এড়ানো গেছে বলে মন্তব্য করেছেন ত্রান ও দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী ডাক্তার এনামুর রহমান। তিনি বলেছেন, ঘুর্নিঝড় বুলবুল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ হয়ে সুন্দরবনে আঘাত হানার কারনে ক্ষয়ক্ষতি কম হয়েছে। তবে, খুলনা-সাতক্ষিরা-বাগেরহাট অঞ্চলে কয়েকহাজার ঘর-বাড়ি এবং ফসলের ক্ষতি হয়েছে।
সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রনালয়ের সভাকক্ষে ঘূর্ণি ঝড় বুলবুল পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ঘুর্ণিঝড়ের সম্ভাব্য ক্ষতি মোকাবেলায় সরকারের সর্বাত্মক প্রস্তুতি ছিলো। উপকূলীয় জনপদে ঝুকির মুখে থাকা সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষকে ঝড়ের আগেই আশ্রয় কেন্দ্রে সরানো হয়েছিলো । সাতক্ষীরা, পটুয়াখালী, খুলনা ও বাগের হাট সহ কয়েকটি জেলায় আশংকার তুলনায় ক্ষতি কম হয়েছে বলেও জানান তিনি।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বুলবুলের সময় বাতাসের গতিবেগ ছিল গড়ে ৪০-৯০ কিলোমিটার। আজ বিকাল নাগাদ আবহাওয়ার উন্নতি হতে শুরু করবে। কাল রৌদ্রজ্জ্বল দিন পাবো বলে আশা করছি। তিনি বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়টি নিয়ে মানুষের মধ্যে যে ভীতি ছিল, তা সাংবাদিকরা দূর করতে পেরেছেন, মানুষকে সচেতন করতে পেরেছেন; তাই আমি তাদের ধন্যবাদ জানাই। তাদের তৎপরতার কারণে এবার সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছে।’
এনামুর রহমান বলেন, ‘এ বছর ২১ লাখ ৬ হাজার ৯১৮ জন মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেওয়া হয়। বুলবুল মোকাবিলায় দেশের ১৪টি জেলায় আগেই পাঁচ লাখ করে টাকা ও পর্যাপ্ত পরিমাণে শুকনো খাবার পাঠনো হয়। নেৌবাহিনী ও কোস্টগার্ড ভালো কাজ করেছে। পটুয়াখালীতে হারিয়ে যাওয়া ১০০ জেলেকে উদ্ধার করেছে তারা। আগে থেকেই রাসমেলা বাতিল করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রেখেছেন, ডিসিদের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন। এ কারণে আমরা উৎসাহ-উদ্দীপনা ও সহস পেয়েছি।’
প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এ পর্যন্ত দু’জনের মৃত্যুর খবর পেয়েছি। ৩০ জন আহত হয়েছেন। পাঁচ থেকে ছয় হাজার কাঁচা ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। যে দু’জন মারা গেছেন, তাদের একজনের নাম প্রমিলা মণ্ডল (৬৩), বাড়ি খুলনার দাকোপ উপজেলায়। তিনি অনুমতি না নিয়ে সাইক্লোন শেল্টার ছেড়ে বাড়ির দিকে রওনা দিয়ে পথে গাছচাপায় মারা যান। আরেকজনের নাম হামিদ কাজি (৬৫), বাড়ি পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জের মাধবখালী ইউনিয়নে। ঘর চাপা পড়ে তিনি মারা গেছেন।’ তিনি বলেন, ‘আশ্রয়কেন্দ্রে এক শিশুর জন্ম হয়েছে। বাগেরহাটের মিঠাখালীর একটি আশ্রয়কেন্দ্রে বাচ্চাটির জন্ম হয়। তার নাম রাখা হয়েছে বুলবুলি।’
এবারও ঘুর্ণিঝড়ের বিপক্ষে সুন্দরবন প্রাকৃতিক রক্ষাকবচ হিসেবে কাজ করেছে মন্তব্য করেন ত্রান প্রতিমন্ত্রী। সুন্দরবন রক্ষায় সরকার প্রয়োজনীয় সব কাজ করে যাবে বলেও জানান তিনি ।
ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তা দিতে সরকার প্রস্তুতি রয়েছে বলে উল্লেখ করেন ত্রাণ ও দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব শাহ কামাল, দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি তাজুল ইসলাম এবং আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক শামসুদ্দিন আহমেদ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker