জাতীয়

যাত্রা শুরু হলো এক পে, এক সেবা ও একশপের।

ডিজিটাল পদ্ধতিতে সব সেবা নাগরিকের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে সরকার বদ্ধ পরিকর বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন আর স্বপ্ন নয়, সত্যি। তাঁর আশা, আগামীর ডিজিটাল সেবায় বাংলাদেশই বিশ্বকে নেতৃত্ব দেবে।
ঘরে বসে পন্য কেনাসহ ডিজিটাল বহু সেবাই পাচ্ছেন বাংলাদেশের নাগরিকরা। প্রয়োজনীয় সকল পণ্য প্রতিটি ইউনিয়নে পৌছে দেয়া কিংবা বিদ্যুৎ বিলসহ যেকোন ইউটিলিটির বিল এখন ঘরে বসেই দেয়া যায়।
এক জায়গায় সব সমাধান- এ লক্ষ্যকে সামনে রেখে রাজধানীর আইসিটি টাওয়ারে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আওতায় এ টু আই এর একসেবা, এক-পে ও একশপ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ
ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন ছাড়াও ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, নাটোর, ঝিনাইদহ, টুঙ্গিপাড়া, পীরগঞ্জ, সিংড়া, তারাব ও রামগতি পৌরসভায় আপাতত এ কর্মসূচি চলবে।
এ সময় কোরিয়া ইন্টার ন্যাশনাল কো অপারেশন এজেন্সি’র সহযগিতায় ই গভর্নমেন্ট মাস্টারপ্ল্যান রিপোর্টের মোড়ক উন্মোচন করেন তিনি।
সজীব ওয়াজেদ বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন এখন সত্যি। ডিজিটাল সকল পদ্ধতির নগরিক সেবা এখন জনগনের দরজায়।
সজীব ওয়াজেদ বলেন, ‘আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে জাতিসংঘের আইসিটি ইন্ডিকেটর ডিজিটাল গভর্নেন্স ইনডেক্সের সেরা ৫০ এর মধ্যে আসতে চাই আমরা। আগামী ২০২১ সালের মধ্যে নাগরিক সেবার প্রায় সবগুলো আমরা জনগণের আঙুলের ছোঁয়ায় আনব।’
তিনি বলেন, ‘গত ক’বছরে আমরা (ডিজিটাল গভর্নেন্স ইনডেক্সে) ৪০-৫০ ধাপ এগিয়েছি। আগামী ৫ বছরে আমরা কেন আরও ৫০ ধাপ এগোব না?’
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম।
স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম ও বাংলাদেশে দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত হু কাং-ইল উপস্থিত ছিলেন এ অনুষ্ঠানে।
অনুষ্ঠান ১০০ দৃষ্টি প্রতিবন্ধীর হাতে ল্যাপটব তুলে দেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker