সাহিত্য ও বিনোদন

কঙ্গনা হচ্ছেন জয়ললিতা।

জয়ললিতা জয়রাম। তাঁর জীবনটাই যেনো সিনেমার গল্প। বলিউড তারকা কঙ্গনা রনৌত আবারো ফিরিয়ে আনছেন একসময়ের তামিল ছবির নায়িকা, তামলনাড়ুর সাবেক মূখ্যমন্ত্রী জয়ললিতাকে। চলচ্চিত্রের নাম ‘তালাইভি’। অর্থ ‘বিপ্লবী নেত্রী’।
‘তালাইভি’ ছবির প্রযোজক বিষ্ণু ইন্দু সংবাদ সম্মেলন করে ছবিটির বিস্তারিত জানিয়েছেন। শুরুতে গুজব ছড়িয়েছিল, ছবির প্রযোজক নাকি বিপদে আছেন। কারণ ছবির বাজেট আনুমানিক ৫৫ কোটি রুপি। এই পরিমাণ অর্থ জোগাড় করা নাকি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে তাঁর জন্য। কিন্তু প্রযোজক এসব খবরকে মিথ্যে রটনা বলে উড়িয়ে দেন।
‘তালাইভি’ ছবিটি তামিল, তেলেগু ও হিন্দি—তিন ভাষায় মুক্তি পাবে। শুরুতে ছবির নাম রাখার কথা ছিল ‘জয়া’। পরে কঙ্গনার অনুরোধে সব ভাষার জন্য ‘তালাইভি’ নামটা চূড়ান্ত করা হয়। ছবিতে তামিলনাড়ুর সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেতা এম জি রমচন্দ্রনের চরিত্রে দেখা যাবে অরবিন্দ স্বামীকে।
২০১৬ সালের ৫ ডিসেম্বর তাঁর মৃত্যু হয়। শোক সইতে না পেরে ৭৭ জন ভক্ত আত্মহত্যা করেন। অভিনয়জগতে তুমুল জনপ্রিয়তা পাওয়ার পর রাজনীতিবিদ হিসেবেও নিজের নিয়ে যান অনন্য উচ্চতায়।
১৯৬৫ থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত জয়ললিতার চলচ্চিত্র ক্যারিয়ারের সুবর্ণ সময়। এই সময় তিনি ভারতের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া অভিনেত্রীদের একজন ছিলেন।

গত শতকের ষাট ও সত্তরের দশকে জয়ললিতা এম জি রমচন্দ্রনের সঙ্গে অনেক জনপ্রিয় চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। দুজনের মধ্যে বেশ সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্কও ছিল। রমচন্দ্রনই তাঁকে রাজনীতিতে আনেন।

১৯৮৭ সালে রমচন্দ্রনের মৃত্যুর পর এআইএডিএমকে দলে বিভাজন তৈরি হয়। একদল ছিল রমচন্দ্রনের স্ত্রী জানকির দিকে আর আরেক দল ছিল জয়ললিতার সঙ্গে। ১৯৮৯ সালে জয়ললিতাই জয়ী হয়ে বিধানসভার সদস্য হন। তিনি বিধানসভার প্রথম নারী হিসেবে বিরোধীদলীয় নেতা হন। বিরোধীদলীয় নেতা থাকাকালে সরকারি দলের বিধায়কদের হাতে তিনি শারীরিকভাবে লাঞ্ছিতও হন। এই ঘটনায় তিনি সাধারণ জনগণের সহানুভূতি পান এবং ১৯৯১ সালে প্রথম ও সর্বকনিষ্ঠ নারী মুখ্যমন্ত্রী হন।

১৯৯৬ সালের নির্বাচনে উল্টো চিত্র দেখতে হয় জয়ললিতাকে। তবে ২০০১ সালের নির্বাচনে জিতে আবার ক্ষমতায় আসেন জয়ললিতা। সেই সময় তাঁর বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা চলছিল। তাই মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব নিতে পারেননি। পরে মামলা থেকে রেহাই পান। ২০১১ সালে জয়ললিতা তৃতীয় মেয়াদে তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী হন। কিন্তু ২০১৪ সালের একটি রায়ে তাঁর চার বছরের কারাদণ্ড হয়। এর ফলে ভারতের প্রথম মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালনের অযোগ্য ঘোষিত হন। একই সঙ্গে বিধানসভার সদস্যপদও হারান।
২০১৪ সালে সব অভিযোগ থেকে অব্যাহতি মেলে। উপনির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী হয়ে আবারও মুখ্যমন্ত্রী হন তিনি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker