উদ্যোক্তাফিচার

আব্দুল মাতলুব আহমাদ; সততাকে পুঁজি করেই শীর্ষ উদ্যেক্তা

শামীমা আক্তার

ছোট্ট ছেলেটি! কারণে, অকারণে খলখল হাসিতে মন কাড়ে বার। বাড়ির সবাই তাকে হাসু নামে।হাসু সবার খু্ব আদরের।
ছোট্ট হাসুর পছন্দ গাড়ি নিয়ে খেলা। খেলতে খেলতেই তার চালানোর শখ হয়। শখ হয় জানার । কেমন করে চলে গাড়ি। কোন গাড়ি কেমন ! খুব মনোযোগ দিয়ে দেখে।কোন কোম্পানীর গাড়ি এসবেই তার আগ্রহ।
বাবা আবু মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ ছিলেন বিচারপতি।মা জাহানারা আব্দুল্লাহ ছিলেন গৃহিনী। চৌদ্দ ভাই বোনের মধ্যে সে ছিল ষষ্ঠ। ছেলেবেলা আরমানি টোলায় কাটলেও খুব বেশী মনে করতে পারে না তার শৈশব।সেন্ট গ্রেগরিয়ান স্কুলে পড়াশোনায় তুখর মেধাবী সে ছেলেটি এসএসসি পাশ করে স্টার মার্কস নিয়ে ।আর এইচএসসিতে বোর্ড স্ট্যান্ড করে স্কলারশিপ নিয়ে অক্সফোর্ডে পড়তে যান।
ছেলেবেলার কথা বলতে গিয়ে শুধু একদিনের স্মৃতির কথা খুব মনে পড়ে তার। সাইকেল তার অনেক পছন্দ ছিল। বাবা সন্ধ্যায় সাইকেল নিয়ে এলেন। সেই সাইকেল পেয়ে খুশি আর ধরে ছোট্ট হাসুর। রাতে চোখে ঘুম জড়িয়ে না আসা পর্যন্ত সাইকেল নিয়ে খেললো সে। ভোরে ঘুম ভেঙ্গে আবার চলে গেল সাইকেলের কাছে। কিন্তু সাইকেল কই! সাইকেল তো নেই! খোঁজ খোঁজ । নাহ কোথাও মিললো না সাইকেল। সাইকেলটি চুরি হয়ে গেছে। সাইকেল হারানোর কষ্ট তাকে পেয়ে বসেছিল । কোনদিন ভুলতে পারেন নি সে ঘটনা। পরে জানতে পেরেছিলেন সাইকেলটি চুরি হয়নি। বিচারপতি বাবার পক্ষে পরিবার চালাতেই হিমশিম খেতে হতো, ছেলের জন্যে একটি সাইকেল কেনার সামর্থ তার ছিল না। তাই ছেলের শখ মেটাতে সাইকেলটি ভাড়া করে নিয়ে এসেছিলেন। পরের দিন ফেরত দিয়ে এসেছেন।

সাইকেলের কষ্ট ভুলতে পারেনি ছেলেটি। তাই অক্সফোর্ডে পড়াশোনা আর এত্ত ভাল একাডেমিক রেজাল্ট নিয়েও অন্য কিছু না করে যুক্ত হলেন গাড়ি ব্যবসায়। হলেন উদ্যেক্তা। এক সময় হলেন দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ী। হুমম ! ঠিক ধরেছেন ,বলছি সফল ব্যবসায়ী নিটল-টাটা গ্রুপের কর্ণধার আবদুল মাতলুব আহমাদের কথ।। তার কথা, যে বিষয়ে ভাল লাগা লাগে ঠিক সে কাজটিই করো। তাহলে কাজে আনন্দ পাবে, সাফল্য আসবে।আনন্দহীন কাজে সাফল্য আসে না।আবদুল মাতলুব আহমাদ নিউজ নাউ বাংলাকে জানিয়েছেন তার সংগ্রাম, সাফল্য আর সাফল্যের পেছনের কাহিনী।
স্বাধীনতার আগে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ডে অর্থনীতি বিষয়ে পড়াশোনা শেষ করে যখন বিশ্বব্যাংকসহ যুক্তরাজ্য, ইউরোপের অনেক বড় বড় সংস্থায় চাকুরী করার লোভনীয় সব অফার ফিরিয়ে দিয়ে ফিরে এসেছেন দেশে। সদ্য স্বাধীন দেশকে গড়ে তুলতে হবে এমন প্রত্যয় থেকে। অর্থনৈতিক ভাবে দেশকে সমৃদ্ধ করতে না পারলে স্বাধীনতার সুফল পাবে না জনগণ। জাতির পিতার দেশ গড়ার ডাকে ফিরে এলেন দেশে। প্রথমে রপ্তানী ব্যবসার সাথে যুক্ত হন তিনি।


৮০ সালের দিকে গাড়ি আমদানীর সাথে যুক্ত হন। ৯০ সালে ভারতের টাটা কোম্পানীর সাথে যৌথ ভাবে ব্যবসা শুরু করেন। এরপরে একে একে মোটর সাইকেল, সিমেন্ট,কাগজসহ ১০ টি কোম্পানী গড়ে তোলেন। তবে গাড়ি ব্যবসায় তিনি বেশী সফল।তিনি ইন্দো বাংলা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইনডাস্টির প্রতিষ্ঠাতি সভাপতি এবং বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইএর ২০১৫-১৭ মেয়াদের সভাপতি ছিলেন।
তার সাফল্যের পেছনে মূল মন্ত্র হচ্ছে সততা। তার মতে সততার বিকল্প নেই। সাফল্যের কোন সর্টকাট পথ নেই। Rise to the top with honesty –এই নীতি তিনি মেনে চলেন সব সময়।
দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ী হলেও সামাজিক কর্মকান্ড ও ক্রীড়া সংগঠক হিসেবেও তার খ্যাতি আছে। ‘একটি দুঘর্টনা সারা জীবনের কান্না’ কিংবা সন্তানকে সময় দিন এসব সমাজ সচেতন শ্লোগান দিয়ে সামাজিক দায়বদ্ধতার কথা মনে করিয়ে দেন তিনি।
নতুন উদ্যেক্তাদের জন্যে তার পরামর্শ , এখন প্রতিযোগিতা অনেক বেশী । তাই সাফল্য পেতে হলে টেকনোলজির ব্যবহার বাড়িয়ে ইনোভেশনে মনোযোগ দিতে হবে। কোন আইডিয়া একজন ভাবতে ভাবতেই আরেকজন হয়তো শুরু করে ফেলে । তাই অনেক গতি থাকতে হবে। এবং সব কিছুর উপরে সততাকে স্থান দিতে হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected