উদ্যোক্তাফিচার

বিশ্ববাজারে বিএনও’র মাধ্যমে বাংলাদেশকে তুলে ধরতে চান সালাউদ্দিন ইউসুফ

এশিয়া ও প্যাসিফিক অঞ্চলের দেশগুলোর ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন কনফেডারেশন অব এশিয়া প্যাসিফিক চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি কাসির প্রেসিডেন্সিয়াল ভিজিট হয়ে গেল জাপানের টোকিওতে। ২২ থেকে ২৩ জুলাই দুদিন ব্যাপী এই ভিজিট বাংলাদেশের চার সদস্যের ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিয়েছেন দেশের ইঞ্জিন অয়েলে লুব্রিকেন্ট কোম্পানী বিএনও’র পরিচালক , ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিআইর এর জেনারেল বডি সদস্য সালাউদ্দিন ইউসুফ্ ।এই কনফারেন্সের আয়োজন করেছে জাপান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি এবং সভাপতিত্ব করেন কাসির প্রেসিডেন্ট সামি মোদী ছিলেন । নিউজ নাউ বাংলার সাথে কথা বলেছেন সালাউদ্দিন ইউসুফ।কনফারেন্সে যোগ দেয়া, অর্জন আর তার ব্যবসায়িক অবস্থান আর ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে।

কাসি সম্মেলনের অর্জন নিয়ে সালাউদ্দিন ইউসুফ জানান, জাপান সব সময় বাংলাদেশে বিনিয়োগ আর উন্নয়ন সহায়তায় এগিয়ে।কাসি সম্মেলনে জাপানী ব্যবসায়ীদের সাথে অনেকগুলো বৈঠক হয়েছে। তাদের কাছে ওষুধ , অবকাঠামো আর রপ্তানী খাতে বিনিয়োগের অনুরোধ রেখেছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা।বাংলাদেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে ইতোমধ্যেই জাপনা বিনিয়োগের চুক্তি করেছে। সালাউদ্দিন ইউসুফ জানান, জাপানী ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগের অনেক আগ্রহ দেখিয়েছেন।মারোবিনি কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান জানিয়েছন , বাংলাদেশে তাদের বিপুল বিনিয়োগ আছে এবং তারা রপ্তানী খাতে আরোও বিনিয়োগ করতে চান। বাংলাদেশের সাথে যৌথভাবে পণ্য উৎপাদন করে সে পণ্য তৃতীয় কোন দেশে রপ্তানী করতে চান তারা।


জাপানের নুডুলস মিউজিয়াম, মিতুসুবিসি মিউজিয়ামসহ অনেক শিল্প কারখানা পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা।
১৯৭৬ সালে গ্রিজ হাউজ নামে দেশে প্রথম ইঞ্জিন অয়েল উৎপাদন শুরু করেন সালাউদ্দিন ইউসুফের পিতা মোহাম্মদ ইউসুফ। মা রুবাইয়া নাহার ছিলেন তার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান। সেসময়ে ইঞ্জিন অয়েলের উৎপাদনকারী কোন দেশী প্রতিষ্ঠান ছিল না। ৯৬ সালে জার্মানের ফুকস লুব্রিকেন্টস এর সাথে যৌথভাবে আর ২০০২ সালে একক ভাবে বিএনও প্রতিষ্ঠা করেন ইউসুফ-রুবাইয়া দম্পতি। তাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় আজ অটোমোটিভ, ইন্ডাস্ট্রিয়াল , মেরিন আর গ্রিজ এই চার ধরনের লুব্রিকেন্ট উৎপাদন করছে বিএনও। বাংলাদেশের লুব্রিকেন্ট বাজারের প্রায় ১০ ভাগ মার্কেট শেয়ার এখন বিএনও’র। ২০১৬ সাল থেকে দেশের বাজারের বাইরে নেপালেও রপ্তানী শুরু করেন তারা। এখন ট্রান্সফরমার অয়েলও উৎপাদন করছে বিএনও। বাংলাদেশে একমাত্র ট্রান্সফরমার অয়েল বিএনওই করে থাকে। আগে বিদেশী প্রতিষ্ঠান থেকে আমদানীর জন্যে অপেক্ষা করতে হতো।


দেশে এখন ১৮ থেকে ১৯ টি প্রতিষ্ঠান লুব্রিকেন্ট উৎপাদন করলেও বিএনও একটি আস্থা আর নির্ভরযোগ্য নাম বলে জানালেন এই তরুণ ব্যবসায়ী। জানালেন কতটা পরিশ্রম করে তার পিতা-মাতা এই প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন । বললেন একদম ছেলেবেলা থেকেই অফিস করতাম আমরা বাবা-মায়ের সাথে। ক্যারিয়ার নিয়ে নিজের ভিন্ন কোন ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ছিল কি না তা জানতে চাইতেই বললেন সে সুযোগই ছিল না। আমাদের মাইন্ড সেটই ছিল এই প্রতিষ্ঠানকে আমরা অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যাব।সেভাবেই বড় হয়েছি।ছেলেবেলা চট্টগ্রামে কাটলেও পরেও ঢাকাতেই স্থায়ী হয়েছেন। আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এআইইউবি থেকে বিবিএ সম্পন্ন করেই পারিবারিক ব্যবসায়ের সাথে যুক্ত হয়েছেন বিএনওর দ্বিতীয় প্রজন্মের এই ব্যবসায়ী। ব্যক্তিগত জীবনে এক কন্যা সন্তানের বাবা সালাউদ্দিন ইউসুফ বিএনওর লুব্রিকেন্টকে বিশ্বের নামী কোম্পানী হিসেবে বিশ্ববাজারে তুলে ধরে মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের মাধ্যমে দেশের নাম উজ্জ্বল করতে চান তিনি।

ব্যবসা, মিটিং,নতুন নতুন বিজনেস পরিকল্পনা , প্রতিযোগীতা এত সব কিছুর মধ্যেও সামাজিক কর্মকান্ডের সাথেও যুক্ত আছেন তিনি। তরুণ উদ্যেক্তাদের নিয়ে জুনিয়র চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সাথে যুক্ত থেকে তারুণ্যের ভাবনা কিভাবে বাস্তবায়ন করে সমাজকে এগিয়ে নেয়া যায় সেসব কাজেও নিজেকে যুক্ত রেখেছেন তিনি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close