রাজনীতি

আওয়ামী লীগের এনার্জি ড্রিংক ভারত: রিজভী

শেখ হাসিনার দখলদারিত্বের সরকার গণতন্ত্রকে হত্যা করে মহাশ্মশানে পাঠিয়েছে। কোথাও যেতে হলে ভারতের অনুমতি নিতে হয়। ভারত এখন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের এনার্জি ড্রিংক হিসেবে কাজ করছে। বলেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। 
রবিবার(৭ জুলাই) দুপুরে নয়াপল্টনের ভাসানী মিলনায়তনে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান কল্যাণ ফ্রন্ট ঢাকা মহানগীর বিভিন্ন থানার সম্মেলনে এসব কথা বলেন।
রিজভী বলেন, শেখ হাসিনার দখলদারিত্বের সরকার রাজনীতি, গণতন্ত্রকে হত্যা করে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনকে মহাশ্মশানে পাঠিয়েছে। আর সেই রাজনীতিকে সমর্থন করে ভারত। এজন্য তাদের (আওয়ামী লীগ) কোথাও যেতে হলে ভারতের অনুমতি নিতে হয়। ভারত এখন আওয়ামী লীগের এনার্জি ড্রিংক হিসেবে কাজ করছে। কারণ তাদের সার্টিফিকেট থাকলেই তারা এখন সবকিছুই করতে পারে।
তিনি বলেন, এই পরিস্থিতি চলতে পারে না। গোটা দেশের মানুষকে বন্দি করে সম্পদ লুটের সুযোগ দিয়ে আপনি (শেখ হাসিনা) প্রধানমন্ত্রী থাকবেন, আর মানুষ চেয়ে চেয়ে দেখবে এদেশের দীর্ঘ ইতিহাস তা বলে না। এদেশের ইতিহাস সংগ্রামের। স্বাধীনতা আগ্রাসীদের বিরুদ্ধে সেই ইতিহাসকে আপনি ম্লান করবেন কি করে? সেই স্মৃতি বুকে ধারণ করে আপনার মতো ডাকাত, দস্যু সরকারকে পরাস্ত করতে গণতান্ত্রিকামী জনগণ প্রস্তুত।
বিএনপির এ শীর্ষ নেতা বলেন, শুধু বেনজীর-আজিজ নয়, একজন আইজি শামসুজ্জোহার ১০০ বিঘার উপরে কৃষি ফার্ম। এমন আরও কত কিছু যে স্বয়-সম্পত্তি আছে কে জানে? এটা সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র শেখ হাসিনা প্রশ্রয়ের কারণে। নিজে ক্ষমতায় থাকতে দুর্নীতিকে আস্কারা দিয়েছেন। তা না হলে ডিবির লোকজন বগুড়ার এক মাদক কারবারিকে মিরপুরে গ্রেফতার করে ৭ লাখ ৮০ হাজার টাকা নিয়ে তাকে ছেড়ে দেয়।
তিনি বলেন, দুষ্টের দমনকারীরাই তালপাতার পাখা দিয়ে বাতাস করে দুষ্টকে পালন করছে। কারণ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোকেরা শেখ হাসিনার এই অবৈধ ক্ষমতাকে সামাল দিয়েছে। তারাই গণতন্ত্রকামী মানুষের মিছিলকে রক্তাক্ত করেছে। দিনের পর দিন আমাদের ছেলেদের গুম করেছে।
বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, এ সমস্ত মতিউর, বেনজীরের ঘটনা শত শত। আমরা দু-একটার খবর জেনেছি। আওয়ামী লীগের মন্ত্রী এমপিদের দুর্নীতির খবর তো খুব একটা আসে না। হঠাৎ দু-একটা আসে, মাঝেমধ্যে দু-একটা ছেড়ে দিয়ে শেখ হাসিনা বোঝান যে তিনি দুর্নীতি বিরোধী। কিন্তু তার সমস্ত আমলাদেরকে তিনি অবাধে দুর্নীতি করার সুযোগ দিয়েছেন। সেগুলো শুধু দুর্নীতি নয়, মহাদুর্নীতি।
সরকারপ্রধানের কঠোর সমালোচনা করে রিজভী বলেন, এখন হাত পাততে চীন যাচ্ছেন তিনি। বিভিন্ন জায়গায় তিনি ভিক্ষা চাইতে যাচ্ছেন। ওবায়দুল কাদের সাহেব সারাক্ষণ শেখ হাসিনার গুণকৃর্তন গান। গুনগানের সুরে তিনি বলেছেন, চীন হচ্ছে আমাদের উন্নয়নের অংশীদার। আর ভারত রাজনৈতিক বন্ধু। ভারত আপনাদের রাজনৈতিক বন্ধু হতেই পারে, এটা স্বাভাবিক। তবে ভারত অভ্যন্তরীণভাবে গণতান্ত্রিক দেশ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button