গণমাধ্যম

পোশাক খাতে নারীর ক্ষমতায়ন: ইতিবাচক পরিবর্তনে গণমাধ্যমের ভূমিকা

নারী পোশাকর্মীদের জীবনের গল্প, তাঁদের সংগ্রাম, বর্তমান ডিজিটাল যুগে চাকুরী নিয়ে অনিশ্চয়তা নিয়ে গণমাধ্যমে বেশি বেশি সংবাদ প্রচার করার আহ্বান জানিয়েছেন বক্তারা।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে, সেন্টার ফর কমিউনিকেশন অ্যাকশন বাংলাদেশ (সি-ক্যাব)- এর উদ্যোগে ”Strengthening coverage of women RMG workers” শীর্ষক একটি অংশগ্রহণমূলক কর্মশালায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন তারা।

সি-ক্যাবের নির্বাহী পরিচালক এবং কর্মশালার মডারেটর সৈয়দ জেইন আল-মাহমুদ বলেন, সাধারণত গার্মেন্টস সেক্টরের যেসব খবর আমরা পত্রিকায় দেখতে পাই- তাঁদের অধিকাংশই মজুরি আন্দোলন, রপ্তানি আয় এবং দুর্ঘটনা সম্পর্কিত। নারী পোশাকর্মীদের জীবনের গল্প, তাঁদের সংগ্রাম, বর্তমান ডিজিটাল যুগে চাকুরী নিয়ে অনিশ্চয়তা এবং কিভাবে তারা এই পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে খাপ খাওয়াতে পারেন- এই বিষয়গুলো সাধারণত পত্রিকায় আসে না।

সৈয়দ জেইন আল-মাহমুদ সি-ক্যাব পরিচালিত গবেষনালদ্ধ প্রতিবেদনের আলোকে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য তুলে ধরেন। তিনি তৈরি পোশাকশিল্প নিয়ে মিডিয়া যেভাবে প্রতিবেদন তৈরি করছে, তাতে কীভাবে ইতিবাচক পরিবর্তন আনা যায় সেই বিষয়ে আলোচনা করেন।

তিনি আরো বলেন, “আমাদের হেডলাইন ভিত্তিক খবর তৈরি না করে, মানুষের গল্পগুলো তুলে আনতে হবে। নারীরা প্রযুক্তি ও পরিচালনায় এগিয়ে আসতে সক্ষম, এই বিষয়টিকে আমাদের তুলে ধরতে হবে।”
এই কর্মশালায় পোশাকশিল্পে নারীর ক্ষমতায়নে গণমাধ্যমের ইতিবাচক ভূমিকা এবং কিভাবে গার্মেন্টস শিল্পের নারী শ্রমিকদের জীবন-ঘনিষ্ঠ কাহিনী গণমাধ্যমে উঠে আসতে পারে, সেই বিষয়ে আলোচনা করা হয়।

সি-ক্যাব আরও ১৪টি সহযোগী সংস্থার সাথে এইচ এন্ড এম ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে একযোগে নারী গার্মেন্টস কর্মীদের জীবন উন্নয়নে কাজ করে চলেছে। নারীরাও পুরুষদের মতই সমানভাবে প্রযুক্তি ও পরিচালনা বিষয়ক কাজে অংশ নিতে পারে, এই বিষয়ে কমিউনিকেশন বা যোগাযোগ-কেন্দ্রিক বিভিন্ন গণসচেতনতামূলক কাজের মাধ্যমে নারী গার্মেন্টস শ্রমিক, তাদের পরিবার এবং কমিউনিটিতে সচেতনতা তৈরিতে সি-ক্যাব নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

দেশের বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার ১৫ জন সাংবাদিক কর্মশালায় এই অংশগ্রহণ করেন। তাঁরা তাঁদের অভিজ্ঞতা থেকে এই বিষয়ে মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন। আলোচনায় অংশ নিয়ে সাংবাদিকরা নারী পোশাককর্মীদের নিরাপত্তা এবং মানসিক ও শারীরিক সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করার ব্যাপারে জোর দেন।

সেন্টার ফর কমিউনিকেশন অ্যাকশন বাংলাদেশ (সি-ক্যাব) গবেষণা এবং কমিউনিকেশন বা যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে বিভিন্ন সামাজিক সমস্যাগুলো সমাধান করতে এবং সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর ক্ষমতায়নের জন্য সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করে।

===========

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button