অর্থ বাণিজ্যআন্তর্জাতিকজাতীয়

রেমিটেন্স আয়ে বিশ্বে প্রথম ভারত, বাংলাদেশের অবস্থান কত?

প্রবাসীদের পাঠানো টাকা অর্থাৎ রেমিটেন্স আয়ের দিক থেকে বিশ্বে প্রথম স্থানে রয়েছে ভারত। এর এ তালিকায় পাকিস্তানেরও (৬ষ্ঠ) পিছনে অষ্টম স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ।
জাতিসংঘের পরিসংখ্যানে এ তথ্য উঠে এসেছে। বাংলাদেশ-ভারতসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো থেকে লেখাপড়ার সূত্রে বিদেশে যান অনেকে। কেউ যান ঘুরতে। আবার অনেকে বিদেশে যান কাজের সন্ধানে। বছরের পর বছর কর্মসূত্রে বিদেশেই পড়ে থাকেন তারা। বিদেশি মুদ্রা উপার্জন করে তা পাঠান নিজ দেশে।
কর্মসূত্রে যারা বিদেশে যান এবং সেখানে অস্থায়ী ভাবে থাকতে শুরু করেন, তারাই প্রবাসী শ্রমিক। তাদের হাত ধরে দেশে আসে বিদেশি মুদ্রা। উন্নত হয় দেশের অর্থনীতি।
প্রবাসীদের পাঠানো টাকায় ফুলেফেঁপে উঠছে ভারতের অর্থনীতি। ভারতে আত্মীয়স্বজন, নিকটজনদের জন্য বিদেশ থেকে টাকা পাঠিয়ে থাকেন প্রবাসীরা। নিজেরা দেশে ফিরলেও তাদের সঙ্গে আসে বিদেশ থেকে অর্জিত অর্থ। ভরে ওঠে দেশের ভাণ্ডার।
জাতিসংঘের পরিসংখ্যান বলছে, গত কয়েক বছরে বিদেশ থেকে নাগরিকদের অর্জিত অর্থের নিরিখে অন্য অনেক দেশের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে ভারত। এমনকি, ২০২২ সালে সেই তালিকায় ভারতই শীর্ষে। অর্থাৎ, ওই বছর বিদেশ থেকে ভারতীয় নাগরিকদের মাধ্যমে দেশটির ভাণ্ডারে যত টাকা এসেছে, তা অন্য কোনও দেশে যায়নি।
জাতিসংঘের ২০২২ সালের বিশ্ব মাইগ্রেশন রিপোর্ট অনুযায়ী, ‘রেমিট্যান্স’ প্রাপকের তালিকায় ওই বছর শীর্ষে ভারত। তার ঠিক পরেই রয়েছে মেক্সিকো, চীন, ফিলিপাইন এবং ফ্রান্স।
রিপোর্ট বলছে, বিদেশে কর্মরত ভারতীয়রা ২০২২ সালে নিজ দেশে যে অর্থ পাঠিয়েছেন, তার পরিমাণ ১১ হাজার ১০০ কোটি ডলার। যা বিশ্বে সর্বোচ্চ।
‘রেমিট্যান্স’-এর অঙ্ক ১০ হাজার কোটির গণ্ডি প্রথম ছুঁয়েছে ভারতই। বিশ্বের আর কোনও দেশ এখন পর্যন্ত এই পর্যায়ে পৌঁছতে পারেনি। গত ১২ বছরে বিদেশে কর্মরত ভারতীয়দের থেকে পাওয়া ‘রেমিট্যান্সের’ পরিমাণ প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে।
এর পরেই রয়েছে মেক্সিকো। তারা ওই বছর বিদেশে কর্মরত নাগরিকদের থেকে ‘রেমিট্যান্স’ পেয়েছে ৬ হাজার ১১০ কোটি ডলার।
তালিকায় তৃতীয় দেশ হিসাবে রয়েছে চীন। জাতিসংঘের রিপোর্ট অনুযায়ী, ২০২২ সালে চীনের প্রাপ্য ‘রেমিট্যান্স’-এর পরিমাণ ৫ হাজার ১০০ কোটি ডলার। চার নম্বরে রয়েছে তাদেরই প্রতিবেশী দেশ ফিলিপাইন।
ফিলিপাইন ২০২২ সালে ‘রেমিট্যান্স’ বাবদ সংগ্রহ করেছে ৩ হাজার ৮০৫ কোটি ডলার। এ ছাড়া, ফ্রান্স ৩ হাজার ৪ কোটি ডলার ‘রেমিট্যান্স’ নিয়ে ওই তালিকায় পঞ্চম স্থানে রয়েছে।
ভারত শীর্ষে থাকলেও দুই প্রতিবেশী বাংলাদেশ এবং পাকিস্তান ‘রেমিট্যান্স’-এর তালিকায় খানিকটা পিছনে। ৩ হাজার কোটি ডলার ‘রেমিট্যান্স’ নিয়ে পাকিস্তান রয়েছে ষষ্ঠ স্থানে। আর অষ্টম স্থানে থাকা বাংলাদেশ ২০২২ সালে ‘রেমিট্যান্স’ পেয়েছে ২ হাজার ১৫০ কোটি ডলার।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button