অর্থ বাণিজ্যবিনোদন

৬ষ্ঠ জন্মদিনে শিশুদের মাঝে ১০ হাজার গাছ বিতরণ করেছে বাবুল্যান্ড ইনডোর প্লে-গ্রাউন্ড!

হাটি হাটি পা পা করে ৬ বছরে পদার্পন করলো শিশুদের বিনোদনভিত্তিক ইনডোর প্লে-গ্রাউন্ড বাবুল্যান্ড। বরাবরের মতোই জমকালো আয়োজন ছিলো শিশুদের স্বর্গরাজ্যখ্যাত বাবুল্যান্ডের ১১ টি ব্রাঞ্চে। এবারের বিশেষ আয়োজনে ভিন্নমাত্রা যোগ করেছে শিশুদের মাঝে গাছ বিতরণের মতো সামাজিক উদ্যোগ।

বাবুল্যান্ডের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাব মোকাবেলার পাশাপাশি, সবুজ পৃথিবীর গুরুত্ব শিশুদের কাছে তুলে ধরতে বাবুল্যান্ডের ৬ষ্ঠ জন্মদিনে শিশুদের মাঝে প্রায় দশ হাজার গাছ বিতরণ করা হয়েছে। এর উদ্দেশ্য ছিলো শিশুদের মাঝে ভবিষ্যত সবুজ পৃথিবী গড়ে তোলার মূল্যবোধ সৃষ্টি করা।

বাবুল্যান্ডের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে বাবুল্যান্ডের প্রতিটি ব্রাঞ্চে দেখতে পাওয়া যায় বাবুল্যান্ড বাডিস গাব্বুশ,ক্যাপ্টেন কিকো,তুতুন সহ শিশুদের পছন্দের সব চরিত্র। ব্যতিক্রমী এই আয়োজন শিশুদের মাঝে এক ভিন্ন উত্তেজনা সৃষ্টি করেছে।

বাবুল্যানেন্ডের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

বাবুল্যান্ডের জন্মদিনে কিছু অভিভাবকদের সাথে কথা হয় । তাদের মাঝে একজন নুসরাত খান। তিনি জানান “বাবুল্যান্ড শুধু আমার বাচ্চার পছন্দের জায়গা না, বাবুল্যান্ড আমারও অনেক পছন্দের। আমার বাচ্চা বাবুল্যান্ডে খেলতে এবং বাবুল্যান্ডের অন্য সব কর্মসূচিতে অংশগ্রহন করতে খুবই পছন্দ করে। আর বাবুল্যান্ডের আজকে একটি বিশেষ দিন জানার পর আমি নিজে থেকেই ওকে নিয়ে চলে এসেছি। সেও বাবুল্যান্ডের জন্মদিনের জন্য একটি গিফট ও নিয়ে এসেছে ,সে নিজের হাতে বার্থডে উইশ কার্ড বানিয়ে নিয়ে এসেছে। আর বাবুল্যান্ডও আমার বাবুর মত সব শিশুদের কথা মাথায় রেখে গিফট হিসেবে রেখেছে গাছ এবং একটি পোস্টার । বাবুল্যান্ডের এই ব্যাপার গুলো সত্যি খুব অসাধারণ।”

বাবুল্যান্ডের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

আরেক অভিভাবক আফরার বাবা জানালেন, “বাবুল্যান্ডকে ইনডোর প্লে-গ্রাউন্ড বললে ভুল হবে। বাবুল্যান্ড হচ্ছে শিশুদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশ ঘটানোর একটি পারফেক্ট জায়গা। এখানে ভিজিট করলে আমার মেয়ে খুব একটিভ থাকে। আর শিশুদেরকে আরো দায়িত্ববান করে গড়ে তুলতে, গাছের প্রয়োজনীয়তা আরো ভালোভাবে তুলে ধরতে ফ্রি গাছ বিতরণের যে উদ্যোগ বাবুল্যান্ড নিয়েছে সেটা সত্যি অনেক প্রশংসনীয়” রাজধানীতে উন্মুক্ত জায়গা দিন দিন কমে যাচ্ছে আর সেই সাথে কমে যাচ্ছে গাছ। সবুজ শ্যামল বাংলাদেশ এখন শুধু বইয়ের পাতায়। অপরিকল্পিত নগরায়ন বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তন তথা উষ্ণতা বৃদ্ধির অন্যতম কারণ। শিশুদের মাঝে গাছের গুরুত্ব তুলে ধরতে বাবুল্যান্ডের এই উদ্যোগ।

অভিভাবক ডা. তাহমিনা আক্তার জানান, ‘‘বাবুল্যান্ডের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে গাছ বিতরণ আয়োজন দেখে বেশি ভালো লাগছে। আসলে জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে গেলে গাছের প্রয়োজন, সেটা আমাদের সন্তানদের বুঝতে হবে। আর এই আয়োজনের মধ্য দিয়ে আমার বাচ্চা কিছুটা ধারণা পাবে গাছ সম্পর্কে। বাকিট আমি ওকে নিয়মিত গাছ কিনে দিয়ে, গাছের পরিচর্যা করা শিখিয়ে দিয়ে বুঝাবো।

বাবু্ল্যান্ডের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

এমন ভিন্ন ধর্মী আয়োজন সম্পর্কে বাবুল্যান্ডের দুই প্রতিষ্ঠাতা ইশনাদ চৌধুরী ও ডঃ এনামুল হক কলিন্‌স এর সাথে কথা বলা হয়। এই সম্পর্কে ইশনাদ চৌধুরী জানান, “বাবুল্যান্ড একটি ভিন্ন ধর্মী প্রতিষ্ঠান, যেখানে আমরা সবসময় শিশুদের বেনফিট এর জন্য কাজ করে যাচ্ছি। সেই চিন্তা ভাবনার একটা বহিঃপ্রকাশ হচ্ছে শিশুদের মাঝে এই ১০ হাজার গাছ বিতরণ। এবং সেই সাথে আমি আরো বলতে চাই বাচ্চাদের সুস্থ্য বিনোদন শুধু প্লে-গ্রাউন্ডে সীমাবদ্ধ রাখতে চাই না। এখন সবার ঘরে ঘরে স্মার্টফোন তাই বাচ্চাদের সুস্থ্য বিনোদন হতে হবে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মেও। সেই উদ্দেশ্যে বাবুল্যান্ডের নিজস্ব চরিত্র নিয়ে তৈরি করছে বাডিস-শো নামের ইউটিউব কনটেন্ট যা ইতিমধ্যে শিশুদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।”

বাবুল্যান্ডের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

বাবুল্যান্ডের আরেক সহপ্রতিষ্ঠাতা ডঃ এনামুল হক কলিন্‌স জানান “আমার ছেলেবেলা কেটেছে খোলামাঠে নানা রকম খেলাধুলা করে। আমার ছেলের দিকে তাকালে খারাপ লাগে তাদের শৈশব কেমন চার দেয়ালের মাঝে আটকে গেছে। আর এমন দৃশ্য প্রায় প্রতিটি ঘরে ঘরে। তাই শিশুদের মাঝে একটা সুন্দর শৈশব দেয়ার জন্য বাবুল্যান্ডের এই কন্সেপ্ট। বাবুল্যান্ডের ৬ষ্ঠ জন্মদিনে আমার যদি কোন উইশ বা ইচ্ছার কথা বলেন তা হলো শিশুদের অনাবিল আনন্দ। শিশু হাসবে, খেলবে প্রাণ খুলে।”

বাবু্ল্যান্ডের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

গাছ যে কতটা গুরুত্বপূর্ণ, তা বেশ বুঝতে পেরেছে বাবুল্যান্ডে ঘুরতে আসা শিশুরাও। তাসাফি নামের এক শিশু জানায়, ‘‘আমি আজকে এই গাছের চারা আমার বাসায় নিয়ে গিয়ে লাগাবো। এবং আমি প্রতিমাসে একটি করে গাছের চারা লাগাবো। তাহলে গাছ আমাকে বৃষ্টি দিবে। রোদে ছায়া দিবে। আমার গরম কম লাগবে। ‘’

বাবু্ল্যান্ডের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

বাবুল্যান্ড বিগত ৬ বছরে প্রায় ৩০ লাখ শিশুর হৃদয়ে এক বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে । শিশুদের সাথে সাথে তাদের অভিভাবকের মনেও বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে বাবুল্যান্ড । ২০১৮ সালের ১১ই মে থেকে যাত্রা শুরু করে এখন পর্যন্ত বাবুল্যান্ডের মোট ব্রাঞ্চ সংখ্যা ১১ টি। ঢাকার প্রায় সব এলাকায় জনপ্রিয় মার্কেট এবং ল্যান্ডমার্কেই আছে বাবুল্যান্ড ব্রাঞ্চ।

বাবুল্যান্ডের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

বাবুল্যান্ডের ঠিকানা: মিরপুর শপিং কমপ্লেক্স – মিরপুর ২, রমজান নেসা সুপার মার্কেট – মিরপুর ১২, শেওড়াপাড়া – মেট্রোরেল সেটশনের পাশে, রোজ ভ্যালী শপিং মল – ওয়ারী, এলিয়েন স্কয়ার – লক্ষ্মীবাজার, নর্থ টাওয়ার হাউজ বিল্ডিং – উত্তরা, আতিক টাওয়ার – আজমপুর উত্তরা, বিটিআই প্রিমিয়ার প্লাজা – উত্তর বাড্ডা, ওয়েস্ট পয়েন্ট বিল্ডিং – গ্রিন রোড, ধানমন্ডি সিমান্ত সম্ভার এবং আলমাস পয়েন্ট শপিং কমপ্লেক্স – নারায়ণগঞ্জ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button