অর্থ বাণিজ্যলিড স্টোরি

ব্যাংকের সুদ হার বাড়ানোর কারণে তারল্য সংকটে পুঁজিবাজার: অর্থনীতিবীদ আবু আহমেদ

ব্যাংক সুদ হার বাড়ানোর কারণে বিনিয়োগকারীরা পুঁজিবাজারের বিনিয়োগ কমিয়ে ব্যাংকের দিকে ঝুঁকেছে৷ এ কারণেই পুঁজিবাজারে তারল্য সংকট হয়েছে বলে মনে করেছেন পুঁজিবাজার বিশেষজ্ঞ অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আবু আহমেদ। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরাও বাজারে নিস্ক্রিয় বলে মনে করছেন তিনি। নিউজ নাউ বাংলার সাথে পুঁজিবাজারের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে এসব কথা বলেন এ পুঁজিবাজার বিশেষজ্ঞ।

আবু আহমেদ নিউজ নাউ বাংলাকে বলেন, দরপতনের মূল কারণ হচ্ছে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ বাইরে চলে গেছে। ব্যাংকের সুদ হার বেড়ে যাওয়ায় বিনিয়োগকারীরা নিশ্চিত ব্যাংকের মুনাফার দিকে ঝুঁকেছে। একই সাথে বড় বিনিয়োগকারীরাও তাদের বিনিয়োগ কমিয়েছে। অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি এবং মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো তাদের অনেক শেয়ার বিক্রি করে সেদিকে চলে গেছে। যার ফলে বাজারে তারল্য প্রবাহ অনেক কমে গেছে।

তিনি আরো বলেন, আগে আইসিবি সাপোর্ট দিতো তারা তো নিজেই দেউলিয়া হয়ে গেছে।ব্যাংকগুলো আর্থিক সংকটের কারণে তারাও সাপোর্ট দিতে পারছে না।

আবু আহমেদ বলেন, বাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা শেয়ার বিক্রি করে ব্যাংক ও সরকারি বন্ডের দিকে ঝুঁকছে। আর বিদেশি বিনিয়োগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ফ্লোর প্রাইস এর সময় আস্থাহীনতার কারণে পাশের দেশ ভারতে চলে গেছে। মার্জিন ঋণের কারণে কিছুটা ফোর্স সেলে হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

পুঁজিবাজারে ভালো কিছু কোম্পানি তালিকাভুক্তি এ সকল সংকট উত্তরণে উপায় বলে তিনি মনে করেন। একই সাথে আসছে বাজেটে সেখানে কর সম্পর্কিত প্রনোদনা দেওয়া উচিত বলেও মত তার। পুঁজিবাজার বান্ধব বাজেটের তাগিদ দেন অধ্যাপক আবু আহমেদ।

আবু আহমেদ নিউজ নাউ বাংলাকে আরো বলেন, পুঁজিবাজারে পতনের মূল কারণ হচ্ছে এখানের অর্থ বাহিরে চলে গেছে। ব্যাংকের সুদ হার বেড়ে গেছে। এর কারণে বিনিয়োগকারীরা নিশ্চিত মুনাফার দিকে চলে গেছে। বাজারের বড় বড় বিনিয়োগকারীরা অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি এবং মার্চেন্ট ব্যাংকও অনেক শেয়ার বিক্রি করে সেদিকে চলে গেছে। যার ফলে বাজারে তারল্য প্রবাহ অনেক কম। এতে করে পুঁজিবাজারে তারল্য সংকট প্রধান কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তিনি বলেন, আগে তো আইসিবি সাপোর্ট দিতো তারা তো নিজেই দেউলিয়া হয়ে গেছে।ব্যাংকগুলো আর্থিক সংকটের কারণে তারাও সাপোর্ট দিতে পারছে না।

তিনি আরও বলেন, বাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা নেই, তারা শেয়ার বিক্রি করে ব্যাংকে ও সরকারি বন্ডের দিকে ঝুঁকছে। বিদেশি বিনিয়োগকারীরা ফ্লোর প্রাইস এর সময় আস্থাহীনতার কারণে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে চলে গেছে। মার্জিন লোনের কারণে কিছুটা ফোর্স সেলে পড়েছে পুঁজিবাজার।

পুঁজিবাজারের এ সংকট উত্তরণে উপায় হিসেবে তিনি মনে করেন, পুঁজিবাজারে ভালো কিছু কোম্পানি আনতে হবে। সামনে যে বাজেট আসছে সেখানে ট্যাক্স রিলেটেড কিছু প্রনোদনা দেওয়া উচিত। আগে অনেক প্রণোদনা ছিল এখন কমে গেছে। বাজেট পুঁজিবাজারের পক্ষে থাকা উচিত বলেও মত এই পুঁজিবাজার বিশেষজ্ঞ অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আবু আহমেদের।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button