জাতীয়

কাবিননামার সঙ্গে ডিভোর্সানামা রেখে স্বাক্ষর করাতো মোশতাক!

আলোচিত ও সমালোচিত ঢাকার মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডির সাবেক সদস্য খন্দকার মোশতাক আহমেদ, কাবিননামার সঙ্গে ডিভোর্সানামা রেখে একসাথে স্বাক্ষর করান।

এমন কথা জানিয়েছেন মোশতাক আহমেদের স্ত্রী সিনথিয়া ইসলাম তিশার বাবা সাইফুল ইসলাম।

রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিবি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, তার (মোশতাক) বমি হচ্ছে এবং খাবারে তার কোনো রুচি নেই। তার নাম শুনলেই আমার ওযু নষ্ট হয়ে যায়।

এর আগে, সাইফুল ইসলাম ডিবি কার্যালয়ে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (তদন্ত) হারুন অর রশিদের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। জানান, তার মেয়েকে অজ্ঞাত মোবাইল ফোনে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে।

ডিবি কার্যালয় থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিশার বাবা বলেন, মুশতাকের বিয়ের সংখ্যা সে কাউকে বলছে ছয়টা, কাউকে বলছে আটটা। বিজয়নগরে যে কাজী অফিসটা আছে সেখানকার একজন আমাকে বললেন যে, ২০০০ সাল থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত তাদের যে রেজিস্ট্রি বই আছে সেটা চেক করলে কমপক্ষে সাত থেকে আটটি বিয়ের তথ্য পাবেন।’

সাইফুল ইসলাম আরো বলেন, “আমি মনে করি না কোনো শিশু বা বৃদ্ধ তার যৌন নিপীড়নের হাত থেকে নিরাপদ। সে তার পা থেকে মাথার চুল পর্যন্ত পাপাচারে ভরা। তার প্রতিটি রক্ত ও অর্থ মানুষের চোখের জলে মিশে গেছে,” বলেন সাইফুল ইসলাম। .

সাইফুল ইসলামের অভিযোগ, মোশতাকের মেয়ের বান্ধবীকে বিয়ে করে। তিন মাস নির্মম নির্যাতনের পর তাকে তালাক দেয়।

বলেন, তাঁর বিয়েই হলো, কাবিননামার সাথে ডিভোর্সনামা ঢোকানো হয়। একসাথে স্বাক্ষর করা হয়। দ্বিতীয়বার মেয়েটিকে বলতে হবে না যে আপনি আমাকে তালাক দিয়েছেন।

ইতিমধ্যে, মোশতাক আহমেদ এবং তার স্ত্রী সিনথিয়া ইসলাম তিশাকে তাদের অসম বিবাহ এবং বিবাহ-পূর্ব বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপ সম্পর্কে তাদের বিষয়বস্তু/ভিডিওগুলি সরানোর জন্য আইনি নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button