অর্থ বাণিজ্য

‘স্লিপিং জায়ান্ট’ কৃষিখাত বদলে দেবে বাংলাদেশের অর্থনীতি: মিনোরী বাংলাদেশের কর্ণধার মিয়া মামুন

জাপান-বাংলাদেশ জয়েন্টভেঞ্চার প্রতিষ্ঠান মিনোরী বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিয়া মামুন। জাপানে একজন প্রতিষ্ঠিত কৃষিখাতের সফল উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলেছেন বাংলাদেশী এই যুবক। বাংলাদেশের কৃষিখাতে অপার সম্ভাবনা দেখছেন তিনি। সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কৃষিতে বিনিয়োগের। বাংলাদেশে বিনিযোগ করলে রিটার্ন পৃথিবীর অনেক দেশের চেয়ে বেশি। তার পরেও যারা বিদেশে অর্থ পাচার করছে তার মতে, তারা নিরেট বোকা। নিউজ নাউ বাংলার সাথে নিজের দীর্ঘ সংগ্রাম আর সাফল্যের কথা বলেছেন। বলেছেন বাংলাদেশের অর্থনীতি, কৃষিখাতের চ্যালেঞ্জ আর সম্ভাবনা নিয়ে কথা বলেছেন, জানিয়েছেন বাংলাদেশ নিয়ে তার স্বপ্নের কথা। নিচে কৃষি খাতে মিনোরী বাংলাদেশ -এর কর্নধার মিয়া মামুন আর জাপানি বিনিয়োগ নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদনের প্রথম পর্ব।

জায়ান্ট কৃষিখাত

২৩ বছর আগে উচ্চ শিক্ষার জন্যে জাপান চলে যান, এমারেল্ড অয়েলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিয়া মামুন। পড়াশোনা শেষে জাপানেই কর্ম জীবনের শুরু করেন। জাপানে কৃষিখাতের একজন সফল উদ্যোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন নিজেকে। এ প্রসঙ্গে মিয়া মামুন বলেন, আমি কৃষি পণ্য ডিম নিয়ে কাজ শুরু করি জাপানে। তবে আমি শুধু ডিম ব্যবসায়ী হবার জন্য ডিম নিয়ে ব্যবসা করিনি। আমি ডিমের সাথে ভ্যালু এড করে পুডিং ও অন্যান্য ফুড আইটেম তৈরী করি এবং তাতে আমার প্রফিট মার্জিন বেড়ে যায়। ১০ বা ১২ টাকার একটি ডিমের পণ্য ৫০ বা ১শ’ টাকায় বিক্রিও সম্ভব।

জায়ান্ট কৃষিখাত

জাপানে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠিত হবার পরেও মাতৃভুমি বাংলাদেশের কথা ভোলেননি, ভুলতে পারেননি স্বদেশের প্রতি নিজের দায়বদ্ধতার কথা। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে কৃষিখাতে অপার সম্ভাবনা দেখে নিজ দেশে কৃষিতে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। জানান, তিনি ধান নিয়ে কাজ করবেন। ধানে আছে বিপুল সম্ভাবনা। তবে সনাতনী ব্যবহার না করে আধুনিকভাবে মাল্টি ইউজ বা বহু ব্যবহার করতে হবে। ধানের যেসব বাই প্রডাক্ট আছে তা কাজে লাগাতে পারলে চালের দাম কেজি ১ হাজার টাকা হওয়া সম্ভব। চালের তুষ থেকে তেল আর কুড়া থেকে বাসন, কোসন, কাপ- পিরিচ তৈরী করার কথা বললেন। একই সাথে চালে মূল্য সংযোজন করে বিভিন্ন ধরনের খাবার ও পণ্য তৈরী করলে তার মূল্য হাজার গুণ বেড়ে যায়। একই সাথে চালের ভ্যালু এড করা পণ্য হাজার গুণ মূল্যে রপ্তানী করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব।

কৃষিখাতের উন্নয়নের জন্যে প্রান্তিক পর্যায়ে কাজ করা কৃষকের ন্যায্য মূল্য পাওয়া নিশ্চিত করতে হবে। তার জীবন মানের উন্নয়ন করতে হবে। এজন্য আধুনিক চাষ পদ্ধতি আর যন্ত্রপাতি ব্যবহার করতে হবে। একই সাথে কৃষির কাঁচামালের সাথে ভ্যালু এড করে নতুন মুনাফা বাড়াতে হবে। তবেই কৃষককে ন্যায্য মূল্য দেয়া সম্ভব হবে।

জায়ান্ট কৃষিখাত

মিয়া মামুন জানান, জাপানে চাল এবং চালের তৈরি খাদ্য পণ্য রপ্তানি করার পরিকল্পনা রয়েছে তাঁর। জাপানের কৃষিজ পণ্যের বিশাল বাজার ইতোমধ্যেই রয়েছে। সেখানে আগে থেকেই ব্যবসা থাকার কারণে রপ্তানি করা সহজ হবে তার। এভাবে আলু, ডিম, ডাল, গমসহ অন্যান্য সব পণ্যে ভ্যালু এড করে দেশীয় বাজারের পাশাপাশি বিদেশেও রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব।চায়না থেকে কৃষি পণ্য আমদানি না করার সাম্প্রতিক সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের জন্য সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। এই সম্ভাবনা কাজে লাগাতে বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের আহ্বান জানান তিনি।

জায়ান্ট কৃষিখাত

জায়ান্ট কৃষিখাত
মিনোরী বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিয়া মামুনের সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন নিউজ নাউ বাংলার সম্পাদক শামীমা দোলা

কৃষিতে জাপানি বিনিয়োগ নিয়ে আসার কথা জানান মিয়া মামুন। খুব শিগগিরই এই বিনিয়োগ আসবে বললেও এই বিষয়ে এখনই বিস্তারিত জানাতে রাজি হননি তিনি। দেশ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার হয়ে যাওয়ার খবরে যখন পত্রিকার পাতা সয়লাব তখন কোন চিন্তায় তিনি বাংলাদেশে বিনিয়োগ করছেন এবং জাপানি বিনিয়োগকারীদের উৎসাহী করছেন বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে এমন প্রশ্নের জবাবে মিয়া মামুন অকপট। বললেন, যারা এদেশ থেকে টাকা বিদেশে পাচার করছে তারা নিরেট বোকা। কারণ বাংলাদেশে বিনিয়োগ করলে যে রিটার্ণ আসে তা পৃথিবীর আর কোথাও এমন সম্ভব না। তারপরেও কোন বুদ্ধিতে তারা বিদেশে অর্থ পাচার করে আমার বোঝে আসে না।

জায়ান্ট কৃষিখাত

মিয়া মামুন জানান,মুনাফার উদ্দেশ্যেই সবাই বিনিয়োগ করে। আমিও তাই করি। জাপানি বিনিয়োগকারী যারা আসবেন তারাও মুনাফার উদ্দেশ্যেই আসবেন। তবে জাপানি উদ্যোক্তাদের এক্ষুনি মুনাফা উঠিয়ে নেওয়ার ইচ্ছা নাই। তারা রিইনভেস্ট বা পূণবিনিয়োগ করবেন। এর ফলে, দেশে শিল্প গড়ে উঠবে, কর্মসংস্থান হবে।

সম্ভাবনার পাশাপাশি চ্যালেঞ্জের কথাগুলোও তুলে ধরলেন তিনি। কৃষি ঋণ অত্যন্ত অপ্রতুল। একই সাথে সংরক্ষণের জন্যে কোল্ড স্টোরেজ ব্যবস্থা যথেষ্ট না। যার ফলে প্রতি বছর প্রচুর কৃষি পণ্য নষ্ট হয়ে যায়। এদিকে সরকারের নজর দেওয়া উচিত বলে মনে করেন মিনোরী বাংলাদেশের কর্ণধার মিয়া মামুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button