আন্তর্জাতিক

ইমরান খানকে কারাগারে রেখেই পাকিস্তানে ভোটগ্রহণ আজ

পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচনে নানা অনিশ্চয়তা ও নিরাপত্তা শঙ্কা কাটিয়ে ভোটগ্রহণ হচ্ছে আজ। বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) স্থানীয় সময় সকাল ৮টা (বাংলাদেশ সময় সকাল ৯টা) থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত।
তবে এই নির্বাচনে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় সম্ভবত সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের অনুপস্থিতি। বেশ কয়েকটি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে তিনি এখন কারাগারে। এছাড়া নির্বাচনের আগের দিন পাকিস্তানে হামলা ও সহিংসতার ঘটনায় ২৬ জন নিহত হয়েছেন।
বৃহস্পতিবার পৃথক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স এবং সংবাদমাধ্যম বিবিসি।
বিবিসি বলছে, ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি, ক্রমবর্ধমান সহিংসতা এবং কারচুপির অভিযোগের মধ্যেই নতুন সরকার গঠনে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার জন্য বৃহস্পতিবার কোটি কোটি পাকিস্তানি নাগরিক ভোটাধিকার প্রয়োগ করছেন।
ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিবিদ হয়ে ওঠা সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে অনাস্থা ভোটে ক্ষমতাচ্যুত করার প্রায় দুই বছর পর এই নির্বাচন হচ্ছে। ক্ষমতাচ্যুত করার পর ইমরান খানকে দুর্নীতির অভিযোগে কারাগারে পাঠানো হয় এবং তাকে নির্বাচনে প্রতিদন্দ্বিতা করতে বাধাও দেওয়া হয়েছে।
অন্যদিকে তিনবারের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ নির্বাচনের লড়াইয়ে আছেন। অনেক বিশ্লেষক বলছেন, এটি পাকিস্তানের সবচেয়ে কম বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন হতে চলেছে। প্রার্থী, প্রচারণা এবং মতামত জরিপ সম্পর্কে কী বলা যেতে পারে সেগুলোসহ নির্বাচনের খবর কভারেজ সম্পর্কে কঠোর নিয়ম ভোট শেষ না হওয়া পর্যন্ত অর্থাৎ স্থানীয় সময় বিকেল ৫টা পর্যন্ত বহাল থাকবে।
ফলাফল দুই সপ্তাহের মধ্যে প্রকাশ করতে হবে। পাকিস্তানের এবারের নির্বাচনে প্রায় ১২ কোটি ৮০ লাখ ভোটার তাদের ভোট দেওয়ার জন্য নিবন্ধিত হয়েছেন। যার প্রায় অর্ধেক ৩৫ বছরের কম বয়সী। তারা ৫ হাজারেরও বেশি প্রার্থীর মধ্য থেকে নতুন আইনপ্রণেতা নির্বাচন করবে। এসব প্রার্থীদের মধ্যে মাত্র ৩১৩ জন নারী।
পাকিস্তান মুসলিম লীগ (নওয়াজ) (পিএমএল-এন) এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) -এই দুটি প্রধান দলই ভোটের লড়াইয়ে আছে। তবে ইমরান খানের পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) পার্টি থেকে প্রার্থী বাছাই করা আরও কঠিন হয়ে পড়েছে, কারণ দলটির ক্রিকেট ব্যাট প্রতীক ব্যবহার করা নিষিদ্ধ হয়েছে। ভোটের লড়াইয়ে নির্বাচনী প্রতীক কার্যত প্রধান ভূমিকা পালন করে, সেটিও আবার এমন একটি দেশে যেখানে ৪০ শতাংশের বেশি মানুষ পড়তে অক্ষম।
পিটিআই অভিযোগ করেছে, নির্বাচনী প্রতীক ছিনিয়ে নেওয়া ছাড়াও তাদের প্রার্থীদের জয়ী হওয়া ঠেকাতে অন্যান্য নানা কৌশলও ব্যবহার করা হয়েছে। যার মধ্যে নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা, মিছিল-সমাবেশ করা নিষিদ্ধ করা এবং জোরপূর্বক লুকিয়ে থাকতে বাধ্য করার মতো বিষয়গুলোও রয়েছে।
এছাড়া ইমরান খান কমপক্ষে ১৪ বছর কারাদণ্ডের সাজা ভোগ করছেন। গত সপ্তাহে পাঁচ দিনের ব্যবধানে তিনটি পৃথক মামলায় তাকে সাজা দেওয়া হয়েছে। তার আইনজীবীরা বলছেন, বিভিন্ন মামলায় তিনি এখনও প্রায় ১৭০টি অভিযোগের মুখোমুখি হয়েছেন। পিটিআই পাকিস্তানের শক্তিশালী সামরিক বাহিনীর হস্তক্ষেপের অভিযোগ করেছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button