আন্তর্জাতিক

গাজায় যুদ্ধ চালিয়ে যাবে ইসরায়েল: সেনাপ্রধান হালেভি

গাজায় ২০২৪ সাল জুড়ে যুদ্ধ চালিয়ে যাবে বলে জানিয়েছে ইসরায়েলের সেনাপ্রধান (সিজিএস) হারজি হালেভি। তিনি বলেন, এই বছরটি একটা চ্যালেঞ্জিং বছর হবে। তবে তারা সারাবছর যুদ্ধ করবে। রোববার (৭ জানুয়ারি) অধিকৃত ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীর সফরকালে এসব কথা বলেন ইসরাইলি সেনাপ্রধান।
এর আগে দখলদার বাহিনীর এই প্রধান বলেন, গাজা উপত্যকায় হামাসের বিরুদ্ধে চলমান যুদ্ধ ‘আরও অনেক মাস’ ধরে চলতে পারে। আর ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, ফিলিস্তিনে হামাসকে ধ্বংস করার আগ পর্যন্ত যুদ্ধ বন্ধ হবে না।
রোববার ছিল ইসরাইলের আগ্রাসনের ৯৩তম দিন। উপত্যকাজুড়ে হামলা অব্যাহত রেখেছে ইসরাইলি বাহিনী। এদিন গাজার দেইর আল বালাহ ও খান ইউনিস এলাকায় ব্যাপক বোমাবর্ষণ করেছে তারা।
তবে হামাসসহ ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ গোষ্ঠীগুলো লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। প্যালেস্টিনিয়ান ইসলামিক জিহাদের সামরিক শাখা আল কুদস ব্রিগেড বলেছে, তারা ইসরাইলের একাধিক শহর লক্ষ্য করে অসংখ্য রকেট ছুঁড়েছে।
ইসরাইলের হামলায় নতুন করে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। এতে মোট হতাহতের সংখ্যা আরও বেড়েছে। গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য মতে, রোববার পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২২ হাজার ৮৩৫ জনে। যার মধ্যে শিশুর সংখ্যা ৯ হাজার ৬০০। আহত হয়েছে আরও ৫৮ হাজার ৩১৬ জন।
এদিকে গত সপ্তাহে লেবাননের বৈরুতে ইসরাইলি ড্রোন হামলায় হামাস সালেহ আল আরৌরি নিহত হওয়ার পর উত্তেজনা বেড়েই চলেছে। হামাস নেতা হত্যার জবাবে ইসরাইল সীমান্তজুড়ে ক্ষেপণাস্ত্র ও রকেট হামলা অব্যাহত রেখেছে সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ।
ইসরাইল ও লেবাননের মধ্যে চলমান উত্তেজনা কমাতে ও সংঘাত যাতে আরও বিস্তৃত না হওয়ায় সেই লক্ষ্যে কূটনৈতিক প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে মধ্যপ্রাচ্য সফর করছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান জোসেফ বোরেল।
মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোববার (৭ জানুয়ারি) কাতারের দোহায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আবদুল রহমান আল থানির সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বৈঠকের পর এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেছেন তারা।
সংবাদ সম্মেলনে ব্লিঙ্কেন লোহিত সাগরে হুতি হামলার নিয়ে কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘হুতির হামলা সারাবিশ্বের মানুষকে আঘাত করছে। যুক্তরাষ্ট্র এই অঞ্চলে সামুদ্রিক নিরাপত্তা রক্ষা অব্যাহত রাখবে।’
মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তিনি ইসরাইলি নেতাদের সঙ্গে আলোচনাকালে গাজায় আরও বেশি ত্রাণ সহায়তা সরবরাহের প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি তুলে ধরেছেন। আরও বলেন, ‘ফিলিস্তিনিদের অবশ্যই তাদের ঘরে ফিরতে হবে।’
বিপরীতে কাতারি প্রধানমন্ত্রী আল থানি বলেন, ‘লোহিত সাগরে বৈরিতা ‘অগ্রহণযোগ্য’। তবে এতে গাজা যুদ্ধের একটা প্রভাব রয়েছে যা দুর্ভাগ্যজনক।’
তিনি আরও বলেন, বৈরুতে হামাসের নেতা সালেহ আল আরৌরির হত্যাকাণ্ড ফিলিস্তিনি গোষ্ঠী ও ইসরাইলের মধ্যে আলোচনায় কাতারের প্রচেষ্টাকে প্রভাবিত করেছে। তবে দোহা আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button