জাতীয়লিড স্টোরি

বিরোধী দলের রাজনৈতিক কর্মসূচিতে বাধা দেওয়া হচ্ছে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বিরোধী দলকে বাধা দেওয়া হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।

রাজধানীর বাংলা একাডেমিতে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের বাইরে আজ বৃহস্পতিবার সকালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেছেন, রাজনৈতিক দলের কোনো কর্মসূচিতে বাধা দেওয়া হচ্ছে না। যে দল যখনই সমাবেশ করতে চাচ্ছে, আমরা বা ডিএমপি কমিশনার তাদের অনুমতি দিয়ে দিচ্ছেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা এটুকুই বলি, জনগণের দুর্ভোগ যেন না হয়। রাস্তাঘাট বন্ধ করতে পারবেন না, ভাঙচুর করতে পারবেন না। আপনাদের রাজনৈতিক কর্মসূচিগুলো শান্তিপূর্ণভাবে পালন করবেন যাতে জনগণের দুর্ভোগ না হয়। এটাই আমরা বলি, এর বাইরে আমরা তাদের কোনো বাধা দিচ্ছি না।

বিরোধী শক্তি ইচ্ছেমতো মিথ্যাচার করছেন জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তারা ইচ্ছামতো প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছেন। যা সত্যি তাও বলছেন, যা সত্যি নয় তাতেও রংঢং মিশিয়ে বলেছেন।’

তারা তাদের ইচ্ছামতো প্রোপাগান্ডা করছে। যা সত্যি নয়, তাকে আরো রংচং দিয়ে এমনভাবে প্রচার করছে আপনারাই ভালো করে জানেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী কোনো রাজনৈতিক দলকেই বাধা দেননি তাদের রাজনৈতিক মতাদর্শ প্রচার করার জন্য, তাদের সমাবেশ করার জন্য।

রোহিঙ্গা শিবিরে এপিবিএন সদস্যরা রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে অর্থ নেওয়া প্রসঙ্গে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের প্রতিবেদন নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্প আমাদের জন্য বিষফোঁড়া হবে কোনো এক সময়। এই রোহিঙ্গারা তাদের সবকিছু ফেলে এখানে চলে আসছে। যেকোনো প্রলোভনের প্রলুব্ধ হয়ে তারা যে কোনো চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে পারে। এটা আমরা সব সময় বলেছি। এই রোহিঙ্গারা ক্যাম্পের ভেতরে থেকে ইয়াবার ব্যবসা করে। তারা নিজেরা নিজেরা গোলাগুলি করছে, মারামারি করছে।

আসাদুজ্জামান খান বলেন, আপনারা দেখেছেন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আমাদের ডিজিএফআইয়ের এক কর্মকর্তাকে তারা মেরে ফেলেছে। নৃশংসভাবে তারা হত্যা করেছে। গতকালও গোলাগুলি হয়েছে। বাড়িঘর পুড়িয়ে দিচ্ছে। সেখানে আমাদের এপিবিএন কাজ করছে। তাদের রুটিন ওয়ার্ক করার জন্য আমাদের এপিবিএন সেখানে আছে। এপিবিএন নিয়ে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ তাদের প্রতিবেদনে যেসব কথা বলছে, এগুলো আমার মনে হয় তথ্যভিত্তিক নয়।

তিনি আরও বলেন, এই রোহিঙ্গারা বিভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত হয়ে অপরাধ সংঘটিত করছে। আমরা তাদের জন্য নিরাপত্তার স্বার্থে কাঁটাতারের বেষ্টনী দিয়েছিলাম, সেগুলো তারা সরিয়ে ফেলে ও কেটে ফেলে বের হয়ে মিয়ানমারে গিয়ে ইয়াবা নিয়ে আনছে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পুলিশ ও এপিবিএন সদস্যরা মোতায়েন আছে। হিউম্যান রাইটস ওয়াচের উচিত আরও দেখে এসে রিপোর্ট করা।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker