ফিচারবিনোদনশুক্রবারের বিশেষসাহিত্য ও বিনোদন

প্রথম বাঙালি মুসলিম চলচ্চিত্র অভিনেত্রী বনানী চৌধুরী

চলচ্চিত্র অঙ্গণে অনেক অভিনেতা অভিনেত্রীই তাদের চমকপ্রদ অভিনয় দিয়ে স্মরণীয় হয়ে আছেন। অনেকের নাম আবার ইতিহাসের পাতায় হারিয়েও গেছে। কিন্তু তাদের অবদান মনে রাখার মতো। তেমনি একজন অভিনেত্রী বনানী চৌধুরী। চলচ্চিত্র অভিনয়ে- বাঙ্গালী মুসলিম মহিলাদের মধ্যে অগ্রপথিক একস সময়ের এই সুন্দরী তারকা বনানী চৌধুরী। তিনিই প্রথম বাঙালি অভিনেত্রী, যিনি মুসলিম হয়ে চলচ্চিতে অভিনয় শুরু করেন। বাঙ্গালী মুসলিম মহিলা অপরূপা সুন্দরী বনানী চৌধুরী, তখনকার সময়ের বিখ্যাত- ভারতী দেবী, মঞ্জু দে, সন্ধ্যারানী, অনুভা গুপ্তা’দের মতো নায়িকাদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে কলকাতার চলচ্চিত্রে নিজের অবস্থান টিকিয়ে রেখেছন। শুক্রবারের বিশেষ আয়োজনে আজ থাকছে গুণী এই তারকার জীবন কথা।

 

প্রথম বাঙালি মুসলিম চলচ্চিত্র অভিনেত্রী বনানী চৌধুরী

শৈশব:

পুলিশ কর্মকর্তা পিতা আফসার উদ্দীন আহমদ এর কর্মস্থল বনগাঁতে অবস্থানকালেই ১৯২৪ সালের মে মাসে বনানী চৌধুরী জন্মগ্রহণ করেন। তার গ্রামের বাড়ী মাগুরা জেলার, শ্রীপুর থানার সোনাতুনদি গ্রামে। ১৯৩৬ সালে অষ্টম শ্রেণীতে পড়াকালীন রাজ্জাক চৌধুরীর সঙ্গে তার বিবাহ হয়। রাজ্জাক চৌধুরী কলকাতা ওয়াকফ-এর কমিশনার ছিলেন। দুই সন্তানের জননী বনানী চৌধুরী চলচ্চিত্র জগত থেকে অব্যাহতি নিয়ে স্বামীর  সঙ্গে কলকাতার ১নং পার্ক স্টীট, পার্ক সার্কাস এর বাসায় বসবাস করেন।

 

শিক্ষা জীবন:

মুর্শিদাবাদ জেলার সাগরদিঘী গ্রামের স্কুলে তার প্রাথমিক শিক্ষা শুরু হয়। ১৯৩৬ সালে অষ্টম শ্রেণিতে পড়াকালীন এ, রাজ্জাক চৌধুরীর সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তিনি কলকাতা ওয়াকফ-এর কমিশনার ছিলেন। উচ্চ শিক্ষিত স্বামী রাজ্জাক চৌধুরীর উৎসাহেই বনানী চৌধুরীর শিক্ষা জীবন বিকশিত হয়। ১৯৪১ সালে প্রাইভেট পরীক্ষা দিয়ে তিনি ম্যাট্রিক পাস করেন। পরবর্তীতে আই, এ. ও. বি. এ. পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন।

 

শৈল্পিক প্রতিভার প্রতিফলন:

ছাত্রীজীবন থেকেই তার শৈল্পিক প্রতিভার প্রতিফলন ঘটতে থাকে। এ সময় বিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তার অংশগ্রহণ অনুষ্ঠানের আকর্ষণ বৃদ্ধি করতো। বিদ্যালয়ের মঞ্চস্থ থিয়েটারগুলোতে নিয়মিত অংশগ্রহণ ও কবিতা আবৃত্তি করে ব্যাপক সুখ্যাতি অর্জন করেন তিনি।

প্রথম বাঙালি মুসলিম চলচ্চিত্র অভিনেত্রী বনানী চৌধুরী

ধর্মীয় এবং সামাজিক কারণে চলচ্চিত্র অঙ্গণে বাঁধা:

শৈশবকাল থেকেই চলচ্চিত্রের প্রতি দূর্লভ আকর্ষণ ছিল তার। এই আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটে স্বামী ও বন্ধু প্রতিম কথাশিল্পী মানিক বন্দোপাধ্যায় এবং সুলতান আহমদের উৎসাহ ও সহযোগিতায়। তখনকার দিনে ধর্মীয় এবং সামাজিক কারণে রূপালী পর্দার বুকে সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের মেয়েদের অংশগ্রহণ ছিল একেবারে অকল্পনীয়।এই গোড়ামী পরিবৃত্ত সমাজের কু-সংস্কারকে উপেক্ষা করে রূপালি পর্দায় একটি নতুন মুখ সংযুক্ত হল। যার আসল নাম বেগম আনোয়ারা নাহার চৌধুরী লিলি। পোষাকী নাম বনানী চৌধুরী।

 

চলচ্চিত্রে অংশগ্রহণ:

চিত্র পরিচালক গুনময় বন্দোপাধ্যায় এর সহযোগিতায় এই অনবদ্য অভিনেত্রীকে ১৯৪৬ সালে সর্বপ্রথম ‘বিশ বছর আগে’ সিনেমায় দেখা যায়। এই লাবন্যময়ী চিত্র তারকা এই সিনেমায় এত নিখুঁত ও নৈপূণ্যতার সঙ্গে অভিনয় করলেন যে, চিত্রামোদীদের হৃদয়রাজ্যে স্থান করে নেন। এই সিনেমাটি মুক্তি পেতে দুই বছর সময় লেগ গেল। এর আগেই ১৯৪৭ সালে বনানী চৌধুরী অভিনীত ‘অভিযোগ’, ‘পূর্বরাগ’ ও ‘তপোভঙ্গ’ নামের ৩টি সিনেমা মুক্তি পায়। সুশীল মজুমদার পরিচালিত ‘অভিযোগ’ সিনেমায় সুমিত্রা দেবী ও বনানী চৌধুরী তারা দুজনে নায়িকা ছিলেন। এ ছাড়া অভিনয় করেছিলেন দেবী মুখোপাধ্যায়, অহিন্দ্র চৌধুরী, ছবি বিশ্বাস, রবি রায়, মনোরঞ্জন ভট্টাচার্য প্রমুখ।

 

‘তপোভঙ্গ’ সিনেমাটি পরিচালনা করেন বিভূতি দাস। এ সিনেমায় বনানী চৌধুরী ও সন্ধ্যারানী দুজনে নায়িকা ছিলেন। সিনেমায় সন্ধ্যারানীর ছোট বোন প্রমীলা ত্রিবেদীর ক্লাসমেট ছিলেন বনানী চৌধুরী। অর্ধেন্দু মুখোপাধ্যায় পরিচালিত ‘পূর্বরাগ’ সিনেমায় বনানী চৌধুরী রানীর ভূমিকায় অভিনয় করেন। তার বিপরীতে ছিলেন দীপক মুখোপাধ্যায়। ১৯৪৮ সালে ‘চলার পথে’ সিনেমায় অভিনয় করে বেশি প্রশংসা পেয়েছিলেন তিনি। বনানী চৌধুরী ইস্টার্ন টকিজের নিজস্ব শিল্পী হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হন ১৯৪৭ সালে। দুই বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়ে ‘পরশ পাথর’, ‘নন্দরানীর সংসার’ ও ‘মহাসম্পাদ’-এ অভিনয় করেন।

 

১৯৪৯ থেকে ১৯৫১ সালের মধ্যে বনানী চৌধুরী অভিনীত ‘বিষের ধোঁয়া’, ‘মায়াজাল’ এবং ‘চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুণ্ঠন’ সিনেমা তিনটি সাড়া জাগায়। ‘চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুণ্ঠন’ সিনেমায় মাস্টার দা’র স্ত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করার পর তিনি সারা বাংলায় প্রশংসিত হন। ১৯৭০ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের রাজধানী ঢাকায় তিনি জহির রায়হান পরিচালিত ‘লেট দেয়ার বি লাইট’ সিনেমায় অভিনয় করেন।

প্রথম বাঙালি মুসলিম চলচ্চিত্র অভিনেত্রী বনানী চৌধুরী

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে বনানী চৌধুরী :

 

এক সময়ে তিনি বাংলাদেশের ঢাকায় আসেন। হাতেগোনা কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করেন, আবারও
কলকাতায় ফিরে যান। তবে শেষ জীবনে তিনি বাংলাদেশেই থেকেছেন। বনানী চৌধুরী বাংলাদেশের যেসব চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তারমধ্যে- ‘লেট দেয়ার বি লাইট’ (মুক্তিপায়নি), ‘ধীরে বহে মেঘনা’, ‘তিতাস একটি নদীর নাম’, ‘সুখ দুখের সাথী’, ‘আল্লাহ মেহেরবান’, ‘বদনাম’, ‘আকাশ পরি’, অন্যতম উল্লেখযোগ্য।

 

স্মৃতিতে প্রথম বাঙালি মুসলিম অভিনেত্রী বনানী:

১৯৪৬ সাল থেকে তিনি অদ্যাবধি বিভিন্ন ছায়াছবিতে যে সমস্ত খ্যাতনামা অভিনেতা-অভিনেত্রীর সঙ্গে অভিনয় করে যশস্বী হয়েছেন তাদের মধ্যে ছবি বিশ্বাস, জহর গাঙ্গুলী, পাহাড়ী সান্যাল ও মলিনা বিশেষ উল্লেখযোগ্য। প্রমথেশ বড়ুয়া, নীতির বসু, আর হেমেন গুপ্ত ও জহির রায়হানের মত পরিচালকের নির্দেশনায় অভিনয় করার সৌভাগ্য লাভ করেছেন তিনি। চলচ্চিত্রে অভিনয় ছাড়াও বনানী চৌধুরী কলকাতার মঞ্চ ও বেতারের সঙ্গে সংযুক্ত ছিলেন।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে বনানী চৌধুরী :

মুসলিম সমাজ চলচ্চিত্র জগতের তারকাকে যখন ভালো চোখে দেখত না সেই যুগে মুসলমান মেয়ে বনানী চৌধুরী এক অর্থে বিদ্রোহ করেই ফিল্মে এসেছিলেন। সফলও হয়েছিলেন, সে জন্য এখনও অনেকে তার কথা মনে করেন।

যে সময়ে আমাদের সমাজে মুসলিম নারীদের, বাড়ির বাইরে যাওয়ায় ছিল প্রবল নিষেধাজ্ঞা। গান-বাজনা বা চলচ্চিত্রে অভিনয় করা ছিল তাদের কাছে স্বপ্নেরও অধিক। সেই সময়ে, সেই যুগে, শত-সহস্র বাধা পেরিয়ে, উপমহাদেশের প্রথম বাঙ্গালী মুসলিম নারী হিসেবে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন বাংলাদেশের বনানী চৌধুরী। সুগম করে দেন, অন্যান্য মুসলিম নারীদের চলচ্চিত্রে অভিনয় করার মসৃণ পথ।

বনানী চৌধুরী ১৯৯৫ সালের ৫ জানুয়ারি ঢাকাতেই মারা যান। তার কবর রয়েছে ঢাকার বনানীতে।

চলচ্চিত্র অভিনয়ে বাঙ্গালী মুসলিম মহিলাদের মধ্যে অগ্রপথিক হিসেবে ইতিহাস হয়ে আছেন- বনানী চৌধুরী।

 

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker