জাতীয়ফিচারবিনোদনশুক্রবারের বিশেষসাহিত্য ও বিনোদন

এ আর রহমানের জন্মদিন আজ

ভারতীয় কিংবদন্তী সঙ্গীতশিল্পী এ আর রহমানের জন্মদিন আজ ৬ জানুয়ারি।

এ আর রহমান, সংগীতের জগতে এক বিস্ময়ের নাম। ভালবেসে অনেকেই তাঁকে মোজার্ট অব মাদ্রাজ বলে থাকে। সংগীতের কোন নির্দিষ্ট ধারায় তাঁকে ফেলা যায় না। তাঁর গান যুগযুগ ধরে শ্রোতাদের আচ্ছন্ন করে রেখেছে।

আজ শুক্রবারের বিশেষে পাঠকদের জন্য থাকছে সুরের জাদুকর এ আর রহমানের সম্পর্কে কিছু তথ্য।

জন্মস্থান:

এ আর রহমান ১৯৬৭ সালের ৬ জানুয়ারি ভারতের মাদ্রাজে(বর্তমান চেন্নাই) জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পুরো নাম আল্লাহ রাখা রহমান। তার বাবা আর কে শেখর মুধালিয়ার ছিলেন মালায়ালাম মুভির একজন মিউজিক কম্পোজার ও কন্ডাক্টর। তার মায়ের নাম কস্তুরি (মুসলিম হওয়ার পরে তার নাম হয় করিমা বেগম)।

কিছু তথ্য:

এ আর রহমানের জন্ম হয়েছিল চেন্নাইয়ের এক হিন্দু পরিবারে। রহমানের বাবা সুরকার আর কে শেখর তার নাম রেখেছিলেন আর এস দীলিপ কুমার। ১৯৮৮ সালে তার বয়স যখন ২১ সে সময় তার বোন কঠিন অসুখে আক্রান্ত হন।

জানা গেছে, তখন আবদুল কাদের জিলানী নামের এক মুসলিম পীরের দোয়ায় নাকি তার বোন ঐশ্বরিকভাবে সুস্থ হয়ে যান। এরপরই রহমানের গোটা পরিবার ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। এস দীলিপ কুমার-এর নাম পরিবর্তিত হয়ে রাখা হয় আল্লারাখা রহমান।

গানের হাতেখড়ি:

পারিবার থেকেই সংগীতে হাতেখড়ি হয় এ আর রহমানের । তাঁর বাবা একজন সংগীত পরিচালক হওয়ায় মাত্র ছয় বছর বয়সে পিয়ানো হাতে নেন রহমান।

সত্তরের দশকে মাদ্রাজের বিশিষ্ট সংগীতগুরু ছিলেন মাষ্টার ধনরাজ। বাবার বন্ধু বলেই তাঁর কাছে কিছুকাল গানের তালিম নেন রহমান। মাত্র ১১ বছর বয়সে কিবোর্ড বাদক হিসেবে কাজ শুরু করেন সেসময়ের প্রখ্যাত সংগীত পরিচালক ইলিয়ারাজার সঙ্গে। রহমানের বন্ধুরাও ছিল সব গানপাগল। বন্ধু শিবমনি, জন অ্যান্থনি ও রাজাকে নিয়ে ‘রুটস’নামে একটি ব্যান্ড গঠন করেন।

গানের জগতে পথচলা:

রহমান তার মিউজিক ক্যারিয়ার শুরু করেন টিভি বিজ্ঞাপন এর মিউজিক করে। ১৯৮৯ সালে তিনি নিজের স্টুডিও চালু করেন। তিনি ৫ বছরে ৩০০ এরও বেশি বিজ্ঞাপনের জিঙ্গেল করেছেন।

বলিউড জগতের উত্থান:

প্লে ব্যাক বা চলচ্চিত্রে গান গেয়ে এ আর রহমান এর আত্মপ্রকাশ বম্বে (তামিল, ১৯৯৫) ছবিতে। এর আগে তিনি অনেক গানে কোরাস এ কন্ঠ দিয়েছিলেন। কিন্তু প্রথম কোন গানে পূর্নাঙ্গ ভূমিকা পালন করেন বম্বে সিনেমার হাম্মা হাম্মা গানটিতে। মুভি বোম্বের (১৯৯৫) তু হি রে.. গানটি এবং বোম্বে থিম মিউজিক ট্র্যাকটি এ তার অনন্য দু’টি সৃষ্টি।

কিছু বিজ্ঞাপনের অ্যাওয়ার্ড ফাংশন এর মাধ্যমে পরিচালক মণি রত্নম এর সাথে পরিচয় হয় রহমানের। নিজের কিছু বিজ্ঞাপনের জিঙ্গেল রত্নম কে শোনান। রত্নম তাঁর কাজ খুব পছন্দ করেন এবং তাঁর পরিচালিত ‘রোজা’ ছবির সংগীতের দায়িত্ব দেন। রোজা ছবির অবিস্মরণীয় সাফল্যের পর রহমানকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।

দীর্ঘ পথচলার উল্লেখযোগ্য কাজ:

এ আর রহমান ৬০ টি তামিল, ১ টি মালায়লাম, ৮ টি তেলেগু, ৪২ টি হিন্দি ও ৭ টি ইংরেজি ছবিতে মিউজিক করেছেন। তাঁর উল্লেখযোগ্য কাজের মধ্যে রয়েছে জাব তাক হে জান, রাঞ্ঝানা, মারিয়ান, কাদাল, এক দিওয়ানা থা, রকস্টার, ১২৭ আওয়ারস, রাবন, এন্ধিরান, পুলি, ইয়া মায়া চেসাভ, ভিন্নাইথান্ডি ভারুভায়া, কাপলস রিট্রীট, দিল্লী ৬,স্ল্যামডগ মিলিনিয়ার, গজনি, সাক্কারাকাত্তি, জানে তু ইয়া জানে না, যোধা আকবর, শিবাজি, গুরু, রং দে বাসন্তি, সিল্লুনু অরু কাধাল, ওয়াটার, স্বদেশ, যুবা, মীনাক্ষী, নী মানাসু নাকু তেলুসু, বয়েজ, দ্যা লিজেন্ড অফ ভগত সিং, সাথিয়া, কান্নাথিল মুথামিত্তাল, লগান, মুধালভান, নায়ক, ফিজা, রক্ষক, আলাইপায়ুথে, তাল, সঙ্গম, জিনস, দিল সে, মিন্সারা কানাভু, কাধাল দেসাম, মুথু, রঙিলা, বোম্বে, কাধালাম, জেন্টলম্যান, রোজা।

চলচ্চিত্রে তিনি নিজে প্রায় ৬২ টি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। তাঁর প্রকাশিত অ্যালবাম সংখ্যা ১৬ টি।

তার সেরা অধিকাংশ ট্র্যাক বা মুভিই প্রথমে তামিল ভাষায় করা, যা পরে হিন্দিতে ডাব করা হয়েছে। সেই ১৯৯২ সাল থেকে ২০০৯ পর্যন্ত তিনি তামিল, তেলেগু, হিন্দি, মালায়ালাম, মারাঠি, কানাড়া, ম্যান্ডারিন ও ইংরেজি ভাষায় উপহার দিয়েছেন দুই শতাধিকেরও (ডাবিং ও সিঙ্গেলসহ) বেশি অ্যালবাম।

 

তিনিই একমাত্র ইন্ডিয়ান মিউজিশিয়ান, যার অ্যালবাম বিশ্বজুড়ে ২০ কোটি কপির চেয়েও বেশি বিক্রি হয়েছে।

১৯৯৭ সালের ১৫ আগস্ট তার কন্ঠে প্রথম অ্যালবাম বের হয় বন্দে মাতরম শিরোনামে সনি মিউজিক কোম্পানির পক্ষ থেকে। বন্দে মাতরম মাইলস্টোন অ্যালবামটি শুধু ইন্ডিয়াতে তখন বিক্রি হয়েছিল ১.২ কোটি পিস! ১৯৯৯ সালে জার্মানির মিউনিখে কনসার্টে মাইকেল জ্যাকসনের সঙ্গে পারফর্ম করেছেন তিনি।

অর্জন:

‘স্ল্যামডগ মিলিনিয়ার’ ছবিতে অসাধারণ সংগীত আয়োজনের জন্য দুটি ‘অস্কার’ জিতেছেন রহমান। এছাড়া ১১ টি আইফা, ২৮ টি ফিল্মফেয়ার, ৪ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, ৫ বার তামিল নাড়ু স্টেট, দুটি গ্র্যামি, একটি গোল্ডেন গ্লোব ও ১ টি বাফটাসহ দেশি বিদেশী অসংখ্য পুরস্কার জিতেছেন এই সংগীত মায়েস্ত্র।

পারিবারিক জীবন:


এ. আর. রহমানের স্ত্রীর নাম সায়রা বানু। তাদের দুই মেয়ে কাট্টিজা, রহিমা ও এক ছেলে আমিন। এ আর রহমান ও তার ছেলে আমিনের জন্মদিন একই দিনে (৬ জানুয়ারি)।

এ আর রহমানের যে কোনো কম্পোজিশন বের হওয়ার আগেই সুপারহিট। সাধারণ স্রোতারা তাঁর সুরে যেমন মুগ্ধ, তেমনি মুগ্ধ যারা গানের ব্যকরণ জানেন-তারাও। গানের ব্যকরণ জানা সুধীজনের কাছে রহমান আজও এক ধাঁধা। তাঁর সুরে যেমন তামিল আমেজ থাকে, তেমনি হিন্দুস্থানী ঘরাণায় তার দখল বিস্ময়কর। সান্তানা থেকে সুফিয়ানা অর্থাৎ হিন্দুস্তানি সুরের সঙ্গে পশ্চিমা সুর এমনকি জাপানি পেন্টাটনিক সুরের অদ্ভুত সমন্বয় ফুটে ওঠে তাঁর গানে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker