জাতীয়

পদ্মা ও মেঘনা বিভাগ গঠনের কার্যক্রম আপাতত স্থগিত

দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে পদ্মা ও মেঘনা বিভাগ গঠনের কার্যক্রম আপাতত স্থগিত করেছে প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস-সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি (নিকার)।

এছাড়াও সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলা সদরকে পৌরসভায় উন্নীত করা, বগুড়া ও জামালপুরের সীমানা পুনঃনির্ধারণ, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানা স্থানান্তর এবং ময়মনসিংহের নান্দাইল পৌরসভার আয়তন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আজ অনুষ্ঠিত নিকার সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম আজ নিকারের বৈঠক শেষে সচিবালয়ের মন্ত্রিসভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান।

আনোয়ারুল ইসলাম জানান, পদ্মা এবং মেঘনা নামে দু’টি প্রশাসনিক বিভাগ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছিল। এই বিভাগ দু’টি করতে ব্যাপক পরিমাণ অর্থ ব্যয়ের প্রয়োজন হবে। বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে ব্যয় সংকোচনের বিষয়টি বিবেচনা করে আপাতত এই দুই বিভাগ গঠনের কার্যক্রম স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, শ্যামনগর সুন্দরবনের কোণায়। এই উপজেলা সদর হেড কোয়ার্টারকে ‘সি’ শ্রেণির পৌরসভার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, বগুড়া জেলার সারিয়াকান্দি উপজেলার কাজলা এবং বোয়াইল ইউনিয়নের বিরোধপূর্ণ অংশ বিয়োজন করে জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ উপজেলার সঙ্গে সংযোজন করে মাদারগঞ্জ উপজেলার সীমানা পুনর্গঠনের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ওই অংশটি বগুড়া জেলার সারিয়াকান্দি উপজেলার কাজলা এবং বোয়াইল ইউনিয়নের সঙ্গে, এটা নদীর এই পাড়ে। বগুড়া যেতে হলে তাদেরকে ব্রক্ষ্মপুত্র নদ পার হেয়ে যেতে হয়। সেজন্য জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলার সঙ্গে সংযোগ করে দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে মাদারগঞ্জ উপজেলার সীমানা পুনর্গঠন করে দেওয়া হয়েছে। সারিয়াকান্দির কাজলা এবং বোয়াইল ইউনিয়নের ওই অংশটুকু এখন থেকে মাদারগঞ্জ উপজেলার অংশ হিসেবে বিবেচিত হবে।

তিনি বলেন, ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইল পৌরসভার সীমানা সম্প্রসারণ করা হয়েছে। যখন পৌরসভা করা হয়, হয়তো পুরোপুরি খেয়াল করা হয়নি। মাঝখানের কিছু কিছু জায়গা পৌরসভার বাইরে রাখা হয়েছিল। মাঝখানে যদি ইউনিয়ন থাকে তাহলে প্রশাসনিক বা উন্নয়নমূলক বা নির্বাচনী কাজ করতে অসুবিধা হবে। সেজন্য ওই জায়গাগুলোকে পুনর্গঠন করে নান্দাইল পৌরসভার মধ্যে নিয়ে নেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, কুষ্টিয়া জেলার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানাকে ঝাউদিয়া এলাকায় স্থানান্তর করে ‘ঝাউদিয়া থানা’ নামকরণ এবং ঝাউদিয়া পুলিশ ক্যাম্পকে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থানান্তর করে ‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ক্যাম্প’ হিসেবে নামকরণের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরে যে থানা আছে, ওনারা আবেদন করেছেন যে এটা একপাশে। সাধারণ মানুষের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরে ঢুকে সব সময় থানার সঙ্গে যোগাযোগ করতে অসুবিধা হয়। পাশেই ঝাউদিয়া পুলিশ ক্যাম্প আছে, সেটার প্রায় এক একর জমিও আছে। সুতরাং থানা শিফট করলে নতুন করে জমি অধিগ্রহণ করতে হবে না, শুধু ভবন করলেই হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker