রাজনীতি

বিএনপির পরের গণসমাবেশ সিলেটে

আগামী ১৯ নভেম্বর সিলেট নগরীতে গণসমাবেশ সফল করতে মরিয়া দলটির নীতিনির্ধারকেরা। এদিকে সমাবেশ কেন্দ্র করে ধরপাকড় শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছে সিলেট মহানগর বিএনপি। রবিবার (১৩ নভেম্বর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ অভিযোগ করা হয়।
সিলেট গণসমাবেশ সফল করতে প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। সিলেটের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে বিএনপির সপ্তম বিভাগীয় গণসমাবেশ হবে। এই সমাবেশে অন্তত চার থেকে পাঁচ লাখ লোক সমাগম ঘটানোর লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে সমাবেশস্থল নগরীর চৌহাট্টার আলিয়া মাদ্রাসা মাঠের চারপাশ ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে। গত বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে মঞ্চ নির্মাণ।
নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও চলমান আন্দোলনে ৫ নেতাকর্মীকে হত্যার প্রতিবাদ এবং দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ বিভিন্ন দাবিতে এই গণসমাবেশ করছে বিএনপি। চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, খুলনা, রংপুর, বরিশাল ও গত শনিবার ফরিদপুরে গণসমাবেশ করে দলটি। এরপর কুমিল্লা ও রাজশাহীতে গণসমাবেশ শেষে ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় হবে মহাসমাবেশ।
সিলেট মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকি ও সদস্য সচিব মিফতাহ সিদ্দিকীর পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সিলেটে ধরপাকড় শুরু করেছে পুলিশ। ১৯ নভেম্বর সমাবেশের প্রচার মিছিল থেকে মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রদলের সভাপতি রুবেল মিয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তাজু চৌধুরী, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন সাফিন ও মৌলভীবাজার সরকারি কলেজ ছাত্রদলের সদস্য সাব্বির আহমদকে গ্রেপ্তার করা হয়।
ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, সরকার সারা দেশে বিএনপির সমাবেশে জনসম্পৃক্ততা দেখে দিশেহারা হয়ে গেছে। তাই সমাবেশকে সামনে রেখে দেশের অন্যান্য এলাকার ন্যায় সিলেটেও ধরপাকড় শুরু করেছে।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, সিলেট নগরীতে সপ্তম বিভাগীয় গণসমাবেশ সফলের প্রস্তুতি হিসেবে গঠন করা হয়েছে ছয়টি উপকমিটি। গত বৃহস্পতিবার থেকে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে মঞ্চ নির্মাণ শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে দুই দফা সিলেট সফর করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও গণসমাবেশ সফলের লক্ষ্যে গঠিত কমিটির প্রধান উপদেষ্টা ড. আব্দুল মঈন খান।
সমাবেশ সফলের লক্ষ্যে গঠিত কমিটির দলনেতা ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তাহসিনা রুশদীর লুনা, ড. এনামুল হক চৌধুরী, খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. সাখাওয়াত হাসান জীবন ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন সার্বক্ষণিক তদারকিতে রয়েছেন।
সিলেট জেলার নেতারা জানান, পূর্বের অভিজ্ঞতা থেকেই নেতাকর্মীদের কৌশলগত নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে। পার্শ্ববর্তী জেলাগুলো থেকে যারা সমাবেশে যোগ দিতে আসবেন তাদের বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা হবে। সমাবেশকে সামনে রেখে পরিবহন ধর্মঘটের আশঙ্কায় সদর উপজেলার নেতাকর্মীদের কয়েক দিন আগেই শহরে আসতে বলা হয়েছে। প্রত্যন্ত এলাকার নেতাকর্মীদেরও একই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
জানা গেছে, ১৭ নভেম্বর বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতারা সিলেট যাবেন। ওইদিন থেকেই বিভাগের প্রত্যন্ত এলাকার নেতাকর্মীদেরও সিলেটে আসার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker