ফেসবুক থেকেবিনোদনসাহিত্য ও বিনোদন

স্বাধীনতার পর এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অর্জন পদ্মাসেতু: শাওন

মেহের আফরোজ শাওনের ফেসবুক ওয়াল থেকে

স্বাধীনতার পর এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অর্জন পদ্মাসেতু।
[এ বক্তব্যে আপনার যদি দ্বিমত থাকে তবে আমার এই স্ট্যাটাসের বাকি অংশ আপনার পড়ার দরকার নেই। আপনি বিদায় হন।]
১৯৭১ এর ১৬ ডিসেম্বর ঢাকার রমনা রেসকোর্স ময়দানে পাকিস্তান ৯৩ হাজার সৈন্যসহ ভারতীয় ও বাংলাদেশী বাহিনীর যুগ্ম কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল জগজিত সিং অরোরার কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মসমর্পণ করে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর উপ সেনাপ্রধান এয়ার কমোডর এ কে খন্দকার সেদিন আত্মসমর্পণের সাক্ষী হিসেবে বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকারের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। পাকিস্তানের লেফটেন্যান্ট জেনারেল আমির আবদুল্লাহ খান নিয়াজী সেই আত্মসমর্পণের দলিলে সাক্ষর করেন। এরই মাধ্যমে নয় মাস ব্যাপী রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের অবসান হয়; প্রতিষ্ঠিত হয় বাঙালি জাতির প্রথম স্বাধীন রাষ্ট্র প্রিয় বাংলাদেশ।
স্বাধীনতা পরবর্তী প্রজন্মের এই আমরা ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ এর সেই ইতিহাসের সাক্ষী হতে পারিনি।
কিন্তু আজ স্বাধীনতার ৫০ বছর পর দেশী বিদেশী বিভিন্ন গোষ্ঠীর নানান ষড়যন্ত্র এবং অবিশ্বাসকে চ্যালেন্জ করে প্রমত্তা পদ্মার বুকে স্বপ্নের সেতু যখন মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে নিজের গর্বিত অস্তিত্বের জানান দেয় তখন বাঙালি হিসাবে, বাংলাদেশের একজন সৎ করদাতা নাগরিক হিসাবে আমি গর্বিত হই। মুক্তিযুদ্ধ না দেখা এই অভাগা প্রজন্মের আমি অন্য এক যুদ্ধ জয়ের আনন্দ পাই।
বিশ্বের কাছে বাংলাদেশের অহংকারের নতুন প্রতীক স্বপ্নের এই পদ্মাসেতু নির্মিত হয়েছে আমাদের নিজেদের অর্থায়নে- কারো কাছে মাথা নত করতে হয়নি আমাদের। আমাদের সন্তান পদ্মাসেতুর নির্মানকাল দেখেছে, একের পর এক সেতুর ৪২ টি পিলার তৈরী হয়েছে, ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৪১ টি স্প্যান বসেছে, উদ্বোধন হয়েছে আমাদের সময়েই। এই ইতিহাসের সাক্ষী হতে পেরে আমি গর্বিত, আনন্দিত- আমি সৌভাগ্যবান।
হ্যাঁ- আমি মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি, আমি পদ্মাসেতুর নির্মানকাল দেখেছি, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার জেদ দেখেছি, দৃঢ় প্রত্যয় দেখেছি, পদ্মাসেতুর পর্যায়ক্রম নির্মানে তার ছেলেমানুষি আনন্দ দেখেছি; সেতুর উদ্বোধনকালে তাঁর চোখে আনন্দ অশ্রু দেখেছি, তাঁর নেতৃত্বে সকল মিথ্যার বিরুদ্ধে পদ্মাসেতুর জয় দেখেছি- সমগ্র বাংলাদেশের জয় দেখেছি।
আমার মত লক্ষ মানুষের আনন্দ উত্তেজনায় আপনাদের যাদের হৃদয়ে (কিংবা অন্য কোনোখানে) ব্যথার উদ্রেক হয় তাদের জন্য এক বালতি করুনা। আপনারা ২ বেলা প্যারাসিটামল খেয়ে ব্যথা কমিয়ে ঘুমাতে যান।
ধন্যবাদ।
পুনশ্চঃ আগামীতে আরো বহুদিন পদ্মাসেতুর ছবি, পদ্মাসেতুর সামনে ছবি, সেতুর উপর দিয়ে দক্ষিণাঞ্চলে ভ্রমণ ইত্যাদি বিষয়ে পোস্ট করে আমার ফেসবুক দেয়াল ভরিয়ে ফেলব। আমার যাকে তেল দিতে ইচ্ছা করে তেল দিব।
শুভ ২৫ জুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected