অর্থ বাণিজ্যফিচার

ডব্লিউটিও সম্মেলন নিয়ে ব্যবসায়ীদের পরামর্শ

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা-ডব্লিউটিও’এর সদস্যভুক্ত দেশ হিসেবে শুল্ক মুক্ত সুবিধায় বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানির সুযোগ থাকলেও অনেক দেশ এই সুবিধা দিচ্ছে না। আগামী মাসে অনুষ্ঠিতব্য ডব্লিউটিও’এর মন্ত্রী পর্যায়ের দ্বাদশ বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে এই বিষয়টি তুলে ধরে শুল্কমুক্ত সুবিধা আদায় নিশ্চিত করার কথা বলেছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা। একই সাথে বাংলাদেশ এলডিসি তালিকাভুক্ত দেশ থেকে উত্তোরণের পরেও বাণিজ্যের ক্ষেত্রে এলডিসির সুবিধাগুলো ২০৪১ সাল পর্যন্ত অব্যাহত রাখার দাবি তুলে ধরবার কথা বলেছেন তারা।

আসছে জুন মাসের ১২ থেকে ১৫ তারিখ পর্যন্ত সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ডব্লিউটিও’এর মন্ত্রী পর্যায়ের দ্বাদশ বৈঠক। বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির নেতৃত্বে একটি সরকারি প্রতিনিধিদলের সম্মেলনে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে। বর্তমানে ১৬৪টি দেশ ডব্লিউটিও’র সদস্য। বাংলাদেশ এ সংস্থার এলডিসি গ্রুপের সবচেয়ে প্রভাবশালী দেশ। এলডিসি থেকে উত্তরণ পর্যায়ে থাকায় এবারের সম্মেলন বাংলাদেশের জন্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ।

মাতলুব আহমাদ
আবদুল মাতলুব আহমাদ, সভাপতি, বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই-এর সাবেক সভাপতি ও ভারত- বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ বলেন, এলডিসিভুক্ত দেশ হিসেবে পণ্য রপ্তানিতে শুল্কমুক্ত সুবিধা পাওয়ার কথা থাকলেও ২০০৫ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশ তা পাচ্ছে না। এমন অনেক দেশেই তা পাওয়া যাচ্ছে না। এটি জোরালোভাবে তুলে ধরতে হবে বৈঠকে। এটি আমাদের অধিকার। একই সাথে কোভিড এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে আমাদের মতো এলডিসিভুক্ত দেশগুলোর অর্থনীতির অনেক ক্ষতি হয়েছে, বাণিজ্যের ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় দেশগুলোর কাছে নানা রকমের ছাড় দেয়ার দাবি তুলতে হবে আমাদের।

 https://newsnowbangla.com/2022/05/18/ডব্লিউটিএর-সম্মেলন-নিয়ে/ ‎Edit
মোঃ হাতেম, নির্বাহী সভাপতি, বিকেএমইএ’

একই রকমের কথা বলেছেন, বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স এন্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন বিকেএমইএ’নির্বাহী সভাপতি মোঃ হাতেম। তিনি বলেন, ডব্লিউটিএ’ সদস্যভুক্ত দেশ হিসেবে বাংলাদেশ রপ্তানিতে শুল্কমুক্ত সুবিধা পাওয়ার কথা অনেক দেশেই তা পাওয়া যাচ্ছেনা। বৈঠকে এই বিষয়টি জোরালোভাবে তুলে ধরতে হবে। একইসাথে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে যেসব অগ্রাধিকারমূলক সুবিধা এখন পাচ্ছি, তা এলডিসি থেকে উত্তোরণের পরেও যেন ২০৪১ সাল পর্যন্ত অব্যাহত থাকে সে চেষ্টা করতে হবে

মন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলন বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম। দুই বছর পরপর যা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। ২০১৭ সালে সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় আর্জেন্টিনার বুয়েন্স আয়ারসে। ২০১৯ সালে সম্মেলন হয়নি। ২০২০ সালের জুন মাসে কাজাখস্তানে সম্মেলন আয়োজনের ঘোষণা দেওয়া হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় তা হয় দ্বিতীয় দফায় জেনেভায় সংস্থার সদর দপ্তরে গত ৩০ নভেম্বর থেকে ৩ ডিসেম্বর সম্মেলন অনুষ্ঠানের পূর্ণ প্রস্তুতি নেওয়ার পরও করেনার নতুন ধরন অমিক্রণের কারণে শেষ পর্যন্ত স্থগিত করতে হয়।

                                                                                                                                                         শামীমা দোলা

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected