আন্তর্জাতিকজাতীয়ফিচারলিড স্টোরিশুক্রবারের বিশেষ

ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল দ্য লেডি উইথ দ্য ল্যাম্প

১২ মে সারাদেশে পালিত হলো বিশ্ব নার্স দিবস। মূলত আধুনিক নার্সিংয়ের প্রতিষ্ঠাতা মহীয়সী নারী ফ্লোরেন্স নাইটিংগেলের জন্মবার্ষিকীর দিনটিকেই প্রতিবছর বিশ্ব নার্স দিবস পালন করা হয়। সেই ইতিহাস সবার কম বেশি জানা রয়েছে। কিন্তু মহীয়সী এই নারীর সম্পর্কে কতটুকু জানি সবাই ? আজ তাই নিউজ নাউ বাংলার বিশেষ আয়োজনে পাঠকদের জন্য থাকছে ফ্লোরেন্স নাইটিংগেলের জীবন যুদ্ধের ইতিহাস।

ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল এমন একটি নাম, যা মানবসেবার দিক ঘুরিয়ে দিয়েছিলো।

Kings College Training School for Midwives'

রোগীর সেবা যা ছিল সে সময়ের ইউরোপের সমাজের নিচুমানের একটা পেশা, তা এই একটি মানুষের প্রচেষ্টার ফলে পরবর্তীতে হয়ে ওঠে সবচেয়ে সম্মানজনক পেশাগুলোর একটি। ‘নার্সিং’কে তিনি শুধু একটি সম্মানজনক পেশা হিসেবে প্রতিষ্ঠিতই করেননি, রেখে গিয়েছেন সেবার যথাযথ মানোন্নয়নের জন্য তাঁর পর্যবেক্ষণ ও অভিজ্ঞতালব্ধ নির্দেশনাসমূহও। ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল আধুনিক নার্সিং সেবার অগ্রদূত, লেখক এবং একজন পরিসংখ্যানবিদ ছিলেন।

১৮২০ খ্রি. ১২ মে ইতালির ফ্লোরেন্স শহরে এক অভিজাত পরিবারে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার ছোটবেলা কেটেছে ইংল্যান্ডের ডার্বিশায়ার অঞ্চলে তাদের পুরনো বাড়িতে। নার্সিংয়ে অগ্রণী ভূমিকার জন্য ক্রিমিয়ার যুদ্ধের সময় তার নামটি সামনে চলে আসে। এ সময় রাতের আঁধারে আহত সৈন্যদের সেবা করার জন্য তিনি ‘দ্য লেডি উইথ দ্য ল্যাম্প’ নামে অভিহিত হন।

Kings College Training School for Midwives'

খুব কম সংখ্যক লোকই গণিতে তার অবদান সম্পর্কে জানেন। তিনিই প্রথম পরিসংখ্যানগত তথ্য উপস্থাপনের জন্য ডায়াগ্রাম ব্যবহার করেন । তিনিই প্রথম মহিলা যিনি রয়্যাল স্ট্যাটিস্টিক্যাল সোসাইটির ফেলো হিসেবে নির্বাচিত হন। ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল ‘লেডি উইথ দ্য ল্যাম্প’ এর পাশাপাশি একজন যোগ্যতা সম্পন্য গণিতবিদ যিনি তার নিজ উপায়ে statistical diagram তৈরি করেছিলেন এবং হাজার হাজার সৈন্যকে মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষার জন্য এটি ব্যবহার করেন।

Florence Nightingale the Lady with the Lamp

ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল তাঁর পিতা মাতার ২য় কন্যা। ফ্লোরেন্সের চাচি তার ভাইঝির গণিত পাঠের ব্যবস্থা করার চেষ্টা করেন। কিন্তু তার মা এতে বাধা দেন কারণ তিনি মনে করতেন মেয়েদের গণিত শেখার কোনো দরকার নেই। নাইটিংগেল রীতিসিদ্ধ গণিত অধ্যয়নের অনুমতির জন্য অনুনয় করলেন। তাঁর পিতা তাঁর কন্যাকে ইতিহাস, ভাষা, দর্শন এবং শাস্ত্রীয় সাহিত্য অধ্যয়নের জন্য উৎসাহ প্রদান করেন। নাইটিংগেলের বাবা উইলিয়াম এডওয়ার্ডের গণিতের প্রতি চরম আগ্রহ থাকা সত্তেও তিনি তাঁর স্ত্রীর পক্ষ নেন কেননা তিনিও মনে করতেন মেয়েদের গণিত শেখার কোনো দরকার নেই। তার বাবা মায়ের সঙ্গে অনেক মানসিক যুদ্ধের পর নাইটিংগেল গাণিতিক গৃহশিক্ষক রাখার অনুমতি পান, তাদের মধ্যে একজন ছিলেন জেমস জোসেফ সিলভেস্টার।


ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল মাত্র ১৭ বছর বয়সে তার পড়াশোনা শেষ করেছিলেন এবং তখন থেকে তিনি পড়াশোনা ও জীবনযাত্রার পথ পরিবর্তন করবেন বলে চিন্তা করেন। তার চিন্তা ছিল ভবিষ্যতে তিনি একজন সেবিকা হবেন এবং সেবা কাজের জন্য আত্মনিয়োগ করবেন। কিন্তু তার এ সিদ্ধান্তের কথা শুনে পিতা খুবই দুঃখিত এবং মা ও বড় বোন রাগান্বিত হলেন। ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল নীরবে সব সহ্য করলেন কিন্তু তার সিদ্ধান্তে অনড় ছিলেন। ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল-এর পিতা-মাতা খুবই চিন্তিত হয়ে পড়লেন এবং কন্যাকে বিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব জানালেন। নাইটিংগেল তা দৃঢ়তার সঙ্গে প্রত্যাখ্যান করলেন। নাইটিংগেল তার সিদ্ধান্তে অটল থাকলেন। অবশেষে তার পিতা-মাতা বাধ্য হয়ে তাকে একটি হাসপাতালে কাজ করার অনুমতি দিলেন।

১৮৫৪ সালের মার্চে রাশিয়া, ব্রিটিশ এবং ফ্রান্সের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়। এ যুদ্ধ ক্রিমিয়ার যুদ্ধ নামে পরিচিত। ১৮৫৩ সালে ক্রিমিয়ার যুদ্ধ শুরু হলে ১৮৫৪ সালের মধ্যে ১৮ হাজারেরও বেশি সৈন্য মিলিটারী হাসপাতালে ভর্তি হয়। সেখানে সেসব অক্ষম সৈন্য চরম নিগ্রহের মধ্যে থাকতো। না ছিল তাদের জন্য কোনো নার্সের ব্যবস্থা, না ছিল প্রয়োজনীয় ওষুধসহ অন্যান্য জিনিসপত্রের যথেষ্ট বরাদ্দ। যুদ্ধের ময়দানের চেয়ে বেশি সৈন্য মারা যাচ্ছিলো ডায়রিয়া, কলেরা, টাইফয়েড ও অন্যান্য বিভিন্ন সংক্রমণে আক্রান্ত হয়ে। এমন অবস্থা যখন দেশবাসীকে ভাবিয়ে তুলেছে, তখন নিজেই দল গঠন করে এগিয়ে এলেন ৩৪ বছরের এই অভিজাত সুন্দরী নারী। বিভিন্ন হাসপাতালে ও সেবাকেন্দ্রে তাঁর আগের অভিজ্ঞতা সেই কঠিন পথচলায় সহায়ক হয়।

তিনি সেবিকাদের নিয়ে দিনরাত কঠোর পরিশ্রম করতে লাগলেন। সে যুগে মহিলা সেবিকারা কোনো সামরিক হাসপাতালে কাজ করতেন না। সামরিক হাসপাতালের ডাক্তার ও কর্মচারীরা তার সঙ্গে সহযোগিতামূলক আচরণ করতে লাগল। তিনি সব বাধা অতিক্রম করে তার কোমল হাতের স্পর্শে সবাইকে সুস্থ করতে লাগলেন। তার কঠোর পরিশ্রম ও অমায়িক ব্যবহারে হাসপাতালের ডাক্তার ও কর্মচারীরা অত্যন্ত খুশি হয়েছিলেন এবং শেষ পর্যন্ত সবাই ফ্লোরেন্সের কাজে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। তিনি দিনে কাজ করে রাতে মোমবাতি হাতে আহতদের খবর নিতেন। তাই সবাই তার নাম দিলেন ‘লেডি উইথ দ্যা লাম্প’।

Florence Nightingale the Lady with the Lamp

ইংল্যান্ড এ ফিরে আসার পর নাইটিংগেল কে জাতীয় নায়িকা হিসেবে স্বাগত জানানো হয়। এই যুদ্ধ তাকে প্রমাণ করার সুযোগ করে দেয়েছিল যে, কিভাবে প্রশিক্ষিত নার্স, সঠিক স্বাস্থ্যবিধি এবং সুব্যবস্থা জীবন বাঁচাতে পারে। Scutari তে অবস্থানকালে তিনি অনেক তথ্য সংগ্রহ করেন।

Kings College Training School for Midwives'

ব্রিটিশ সরকার তার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ‘প্রাণনাশক পরিসংখ্যান’টি প্রকাশ করার অনুমতি দেয় নি যাতে তিনি দেখিয়েছিলেন যুদ্ধে সৈন্যদের মৃত্যুর মূল কারণ ছিল হাসপাতালের দুর্ব্যবস্থা। তিনি “polar-area diagrams” এর সাহায্যে হাসপাতালের অস্বাস্থ্যকর অবস্থার কথা তুলে ধরেন। তিনি পরিসংখ্যানের মাধ্যমে বিভিন্ন কারণে ব্রিটিশ সৈন্যদের মৃত্যুহার তুলে ধরেন। তিনি উপস্থাপন করেন যে অধিকাংশ ব্রিটিশ সৈন্য ক্ষত বা অন্যান্য কারণের চেয়ে অসুস্থতায় মারা যান।।

১৮৫৬ সালের সেপ্টেম্বের রানী ভিক্টোরিয়া তাকে স্কটল্যান্ডে তার প্রাসাদে ডেকে পাঠান এবং তারই পরামর্শ অনুসারে রয়েল কমিশনাল হাসপাতাল তৈরি করেন এবং নার্সিং-এর প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গড়ে তোলেন, যার নাম ‘কিংস কলেজ ট্রেনিং স্কুল ফর মিড-ওয়াইফ’।

Kings College Training School for Midwives'

ক্রিমিয়ার যুদ্ধে অসামান্য অবদান রাখায় তাকে ৪৫ হাজার পাউন্ড পারিশ্রমিক প্রদান করা হয়। কিন্তু পারিশ্রমিকের টাকা নিজের জন্য ব্যয় না করে তিনি ‘নাইটিংগেল’ নামক ফান্ডে সব জমা রাখেন এবং সর্বপ্রথম লন্ডনে সেন্ট টমাস হাসপাতালে একটি সেবা প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেন। তাঁর কাছে থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে নার্সরা ছড়িয়ে গেলেন বিভিন্ন জায়গায় ও দেশে। আমেরিকার গৃহযুদ্ধের সময় তাঁর কাছে থেকে পাওয়া প্রশিক্ষণের সাহায্যেই আমেরিকায় উপযুক্ত নার্সিং প্রথা চালু করা হয়। ভারতেও তিনি পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে সহযোগিতার হাত বাড়ান, যদিও তিনি নিজে কখনো ভারতে আসেননি। তাঁর লেখা ‘Notes On Nursing’, ‘Notes On Hospital’ ও বিভিন্ন তথ্যবহুল নোট আধুনিক নার্সিং শিক্ষার ভিত্তি স্থাপন করে।

ফ্লোরেন্স নাইটিংগেলকে নার্সিং-এর জননী বলা হয়। তার আত্মত্যাগ ও চিন্তা-চেতনার জন্য বিশ্বের অন্য পেশা থেকে এ পেশা ব্যতিক্রমধর্মী সেবামূলক পেশা হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

ব্যক্তিগত জীবনে ফ্লোরেন্স ঘর-সংসার করেননি, তিনি ভেবেছিলেন সেদিকে মনোযোগ দিলে তা তাঁর জীবনের লক্ষ্য অর্জনের পথে বাধা হয়ে দাঁড়াবে। তাই অপূর্ব সুন্দরী সেই তরুণী সমাজের সবচেয়ে ধনী ও যোগ্য পাত্রদের মধ্যে অনেকের লোভনীয় বিয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন। সেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল ধনী রাজনীতিবিদ ও কবি রিচার্ড মোঙ্কটন মিলন্সের সাথে ৯ বছরের বাগদানের পরও বিয়ে না করা। ফ্লোরেন্স বলেছিলেন বিয়ে ও সংসার নার্সিংয়ের জন্য তাঁর কার্যক্ষমতাকে সীমাবদ্ধ করে দেবে। আবার নাইটিংগেল তখনকার নারী অধিকার আন্দোলনেরও সমালোচনা করে বলেছিলেন- “মেয়েরা সহানুভূতির আশা করে, কিন্তু নিজেদেরকে পুরুষের মতো যোগ্য করে গড়ে তোলে না।” ব্যক্তিগত জীবনেও তিনি তখনকার সম্ভ্রান্ত মহিলাদের চেয়ে বুদ্ধিমান, ক্ষমতাবান ও অনুপ্রেরণা দানকারী পুরুষের বন্ধুত্বই বেশি পছন্দ করতেন। মহিলা বন্ধু ও শুভাকাঙ্ক্ষীও তাঁর ছিল, কিন্তু তাঁরা ম্যারি ক্লার্কের মতোই স্রোতের বিপরীতে চলা মানুষ।

Kings College Training School for Midwives'

পরবর্তীতে জীবনে, ফ্লোরেন্স তার দৃষ্টিশক্তি হারিয়ে ফেলেন। তিনি বহু দেশ থেকে সন্মান অর্জন করেছেন, এবং ১৯০৭ সালে ব্রিটিশ সরকার তাকে Order of Merit প্রদান করে।

এরপর একদিন যেভাবে নীরবে তিনি এসেছিলেন, সেভাবে নীরবেই তিনি বিদায় নেন। দীর্ঘদিন শয্যাশায়ী থাকার পর ১৯১০ সালের ১৩ আগস্ট ঘুমের মধ্যে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

Kings College Training School for Midwives'

সারা জীবনের মতো জীবনের শেষেও সামাজিক লৌকিকতা আর আড়ম্বর তার অপছন্দ ছিল। তাই তাঁর শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী তাঁর পরিবার সরকার থেকে প্রস্তাবিত রাষ্ট্রীয় শেষকৃত্য অনুষ্ঠান প্রত্যাখান করে খুবই সাধারণভাবে সেন্ট মার্গারেট চার্চের পাশে তাঁকে সমাহিত করে।

Kings College Training School for Midwives'

কতই না সাধারণ ছিলেন এই অসাধারণ মানবী!

Sources: “Florence Nightingale Biography.”
“Florence Nightingale: British Nurse, Statistician, and Social Reformer.” Encyclopedia Britannica.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected