অর্থ বাণিজ্য

৩ হাজার নারী উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে বিডব্লিউসিসিআই

বাংলাদেশের ৪০টি জেলার ৩,০০০ নারী উদ্যোক্তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে বাংলাদেশ উইমেন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি ( বিডব্লিউসিসিআই )। ইউনাইটেড নেশনস ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম (ইউএনডিপি) এর অর্থায়নে চলবে এই প্রশিক্ষণ।

রোববার সকালে, ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রশিক্ষণটির উদ্বোধণ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

৩০০০ নারী উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ দিবে বিডব্লিইসিসিআই

এ সময় তিনি বলেন, যাদের আলাদা গুণ আছে, তারাই উদ্যোক্তা। আর উদ্যোক্তা হওয়ার মধ্যে এক ধরনের আনন্দ আছে।

এম এ মান্নান বলেন, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের অর্থনীতি আজ বিশ্ব দরবারে সুনাম অর্জন করেছে। আর এর একটি বড় স্থান ধরে রেখেছে দেশের নারী উদ্যোক্তারা। তৃণমূল থেকে বৃহৎ পর্যায়ে সবখানেই নিজেদের উদ্যোগের মাধ্যমে সাফল্য অর্জন করেছে আমাদের দেশের ব্যবসায়ী নারীরা।

মন্ত্রী বলেন, দেশে নারীরা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে এমন পরিবেশ আমরা তৈরি করতে চাই।কারণ নারী ছাড়া কোনো কাজ করলে সে কাজ সম্পূর্ণ হবে না। দেশ এগোবে না।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

তিনি বলেন, নারী সমাজের অংশ গ্রহণ ছাড়া কোনো দেশ উন্নত হয় না। যে দেশে নারীদের ঘরে রেখেছেম তারা এক সময় গরী হয়ে গেছে। নারীদের শুধু লেখাপড়া বা ঘরের কাজেই রাখলে হবে না। তাদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

৩০০০ নারী উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ দিবে বিডব্লিইসিসিআই

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, নারীরা যাতে এগিয়ে যায়, সে জন্য প্রধানমন্ত্রী অনেক সুযোগ দিয়েছেন। নারী উদ্যোক্তাদের জন্যও অনেক পথ খুলে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তবে উদ্যেক্তাদের নিজস্ব দক্ষতা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে সেগুলো নিতে হবে।

পলক বলেন, সরকার আগামী বছরের জানুয়ারিতে ইন্টারঅপারেবল ডিজিটাল ট্রানজ্যাকশন প্ল্যাটফর্ম (আইডিটিপি) চালু করতে প্রস্তুত, যাতে মানুষ রিয়েল-টাইমে এবং কম খরচে আর্থিক খাতে অনায়াসে তহবিল স্থানান্তর করতে পারে৷ প্ল্যাটফর্মটি আর্থিক লেনদেন করার ক্ষেত্রে লেনদেনের খরচ এবং হয়রানিকে রোধ করবে। ডিজিটাল সেবা প্রদানের মাধ্যমে দেশের মানুষকে অনলাইনে নিয়ে আসাই এর লক্ষ্য।

তিনি বলেন, ওয়েবসাইট উন্নয়ন ও বিপণনের জন্য ২ হাজার ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তাদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার করে অ-ফেরতযোগ্য অর্থ দেয়া হবে।

বিডব্লিউসিসিআই’এর প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি সেলিমা আহমাদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে দেশ আজ মধ্যম আয়ে উন্নীত হয়েছে। ২০৪১ সালে আমরা ডিজিটাল দেশ হিসেবে উন্নীত হবো। এরই মধ্যে ডিজিটাল অনেক সুবিধা আমরা পাচ্ছি। বিশেষ করে করোনা চলাকালীন অবস্থায় অনলাইনে ব্যবসা করে নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন করেছে অনেক নারী উদ্যোক্তারা। আর তাই ডিজিটাল দেশ গড়ে তুলতে নারী উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহণ আরো বাড়ানো প্রয়োজন। তাই তাদের সব ধরনের সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। আর সেই লক্ষ্য নিয়েই কাজ করে যাচ্ছে বিডব্লিউসিসিআই।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।  তিনি বলেন, নারী সমাজের অংশ গ্রহণ ছাড়া কোনো দেশ উন্নত হয় না। যে দেশে নারীদের ঘরে রেখেছেম তারা এক সময় গরী হয়ে গেছে। নারীদের শুধু লেখাপড়া বা ঘরের কাজেই রাখলে হবে না। তাদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

তিনি বলেন, , সরকার অনেকটাই নারীবান্ধব। সরকারি তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে প্রায় ৭০ মিলিয়ন ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) রয়েছে যার মধ্যে প্রায় ২৫ মিলিয়ন মানুষ জড়িত। এর একটি বড় অংশ জুড়ে রয়েছে নারীরা। এই নারী উদ্যোক্তাদের আরেকটু সমৃদ্ধি করে তুলতে পারলে তারাও একদিন অর্থনৈতিকের নেতৃত্বের জায়গায় আসতে পারবে। আমাদের লক্ষ্য শুধু রাজধানীই নয়, গ্রাম অঞ্চলের তৃনমূল জায়গাগুলোতেও এই দক্ষতা বৃদ্ধি করা আমাদের লক্ষ্য। আর সেই উদ্দেশ্যেই এই প্রশিক্ষণের আয়োজন।

অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে ইউএনডিপি বাংলাদেশের কান্ট্রি ইকোনোমিস্ট ও অর্থনীতিবিদ ড. নাজনীন আহমেদ বলেন, ডিজিটাল সুফল শুধু মাত্র করোনা চলাকালীন অবস্থাতেই নয়, করোনা পরবর্তী অবস্থাতেও আমরা ভোগ করতে পারছি। আর আমাদের নারী উদ্যোক্তারা ডিজিটালি অনেক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে অবশ্যই তাদের জন্য প্রশিক্ষণটা জরুরি। ’

 

 

 

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected