জাতীয়

বিএনপির ভিশন ২০৩০ এখন ডিপফ্রিজে: কাদের

গত নির্বাচনের আগে বিএনপি ভিশন-২০৩০ নামে যে পলিটিক্যাল স্ট্যান্ডবাজি করেছিলো তা এখন ডিপ ফ্রিজে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, আমাদের ভিশন হচ্ছে শেখ হাসিনার ভিশন, বিএনপির ভিশন নয়। গত নির্বাচনের আগে হঠাৎ ঢাকঢোল পিটিয়ে ২০৩০ ভিশন  দিয়েছে। এ ভিশন কোথায়? সেটা এখন ডিপফ্রিজে আছে। এটা হলো নির্বাচনকে সামনে রেখে পলিটিক্যাল স্ট্যানবাজি। বিএনপির ভিশন ২০৩০ ফ্রিজের মধ্যে ছিলো, ডিপফ্রিজেই এখন আছে। এটা ডিপফ্রিজ থেকে আর আলোর মুখ দেখবে না।

শুক্রবার (১ অক্টোবর) রাজধানীর রমনাস্থ ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি)’র শহীদ প্রকৌশলী ভবনের কাউন্সিল হলে বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা এমপি’র ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ-এর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপ-কমিটির উদ্যোগে “বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা শেখ হাসিনার উন্নয়নের সংগ্রাম, নিরবচ্ছিন্ন স্বপ্নের মহাসড়কে খুলনা থেকে চট্টগ্রাম” শীর্ষক সেমিনারের তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১,২০৪১ ও ২১০০, যখন যা করার দরকার তখন তিনি তাই করবেন। সব পরিকল্পনাই প্রধানমন্ত্রীর বিবেচনায় আছে। এটার কনসেপ্টটা তো বুঝতে হবে। বিএনপি কাউন্টার ভিশন হিসেবে ২০৩০ করেছিলো। এটা কখনো আলোর মুখ দেখবে না।

তিনি বলেন, ফখরুল সাহেব যে বড়-বড় কথা বলেন; ইলেকশন করবে কি দিয়ে, কি দেখাবে। বড় বড় প্রকল্পগুলো আগামী বছর যখন উদ্বোধন হবে তখন বিএনপি চোখে সর্ষে ফুল দেখবে। সারা বাংলাদেশের চেহারা তখন বদলে যাবে। নেতিবাচক রাজনীতি করে বিএনপি জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়েছে। আজকে আবার ইলেকশন বয়কটের কথা বলে। ইউনিয়ন পরিষদের ইলেকশনের শিডিউল ঠিক হয়ে গেছে, তারা বয়কট করেছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, নির্বাচন বয়কট করে আপনারা জনগণ থেকে আরও বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবেন। এটাই বাস্তবতা, ইতিহাস বলে, ৭০ সালের ইয়াহিয়া খানের এলএফও লিগ্যাল ফেমওয়ার্কের সেই বাঁধাকে উপেক্ষা করে বঙ্গবন্ধু  নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেছেন। অনেক না করছেন, ফল পাবেন না। যতই বাঁধা থাক জনগণ যেদিকে চাবে তারাই জিতবে। আজকে তাদের জনগণকে নিয়ে ভয় আছে। ডিপফ্রিজ থেকে ২০৩০ ভিশনটা একটু বাহির করেন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, নদীর নাব্যতা ধরে রাখতে সরকার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় ব্রিজ না করে টানেল করার পরিকল্পনা করছে। শুধু রাস্তা নির্মাণ করলেই হবে না, রাস্তা মজবুতি করণ করতে হবে পাশাপাশি সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ করাটাও জরুরি।

সেমিনারে স্বাগত বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এবং উপ-কমিটির সদস্য সচিব ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর বলেন, দেশে এ যাবৎকাল পর্যন্ত উত্তর-দক্ষিণ সংযোগকারী যোগাযোগ ব্যবস্থা থাকলেও পূর্ব-পশ্চিম সংযোগকারী সরাসরি যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে উঠেনি। ফলে আমাদের যোগাযোগ ব্যবস্থায় রাজধানী ঢাকার উপর চাপ ক্রমাগত বৃদ্ধি পেয়েছে। খুলনা অথবা বরিশাল থেকে কোন গাড়ী যদি চট্টগ্রাম বন্দরে যেতে চায় তবে ঢাকা ছাড়া তাদের যাওয়ার কোন সরাসরি ব্যবস্থা নেই। পূর্ব-পশ্চিম সরাসরি যোগাযোগ তৈরি করতে পারলে ঢাকা-চট্টগ্রাম ৪-লেন সড়কের উপর চাপ বহুলাংশে কমে যাবে বলে আমি মনে করি।

তিনি বলেন, আমাদের পাশ্ববর্তী দেশ ভারতের দিকে তাকালে আমরা দেখতে পায় সমগ্র সমুদ্র উপকূল জুড়ে তাদের রোড নেটওয়ার্ক গড়ে উঠেছে । ফলে বন্দর থেকে বন্দরে পণ্য পরিবহনে তাদের একটা সমন্বিত নেটওয়ার্ক গড়ে উঠেছে। আমরা সমুদ্র উপকূল দিয়ে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন করতে পারলে দেশের ব্লু-ইকোনমিতে একটা বিশাল প্রভাব ফেলবে। আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশ হয়ে উঠবে যোগাযোগের একটি হাব। সিঙ্গাপুরের মত বাংলাদেশও সমন্বিত যোগাযোগ ব্যবস্থার একটা রোল মডেল হয়ে উঠবে।

ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর বলেন, দেশের সম্ভাবনাময় পর্যটন শিল্পের একটা নতুন দ্বার উমোচিত হবে। এখন বাংলাদেশের মানুষ বছরের বিভিন্ন সময় থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও ভারত ঘুরতে যায়, কিন্তু তখন ঘুরতে যাবে নোয়াখালি, সন্দীপ ও হাতিয়াসহ দেশের দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন পর্যটন নগরীতে। শুধু দেশের নয় বিদেশী পর্যটকের দ্বারা এই অঞ্চলটি হবে মুখরিত। সম্ভাবনার দ্বার উমোচিত হবে ফরেন ডাইরেক ইনভেস্টমেন্ট এর যার ফলে দেশের জিডিপির প্রবৃদ্ধি আরও শতকরা দুইভাগ বেড়ে যাবে বলে আমরা ধারনা করি।

অনুষ্ঠানের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপ-কমিটির চেয়ারম্যান এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য প্রফেসর ড. মো. হোসেন মনসুরের সভাপতিত্বে সঞ্চালনা করেন আইইবি.র ঢাকা কেন্দ্রের সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার কাজী খায়রুল বাশার। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এবং উপ-কমিটির সদস্য সচিব ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এর পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. ইঞ্জিনিয়ার এ. এফ. এম. সাইফুল আমিন।

এ ছাড়া, আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন আইইবি’র প্রেসিডেন্ট প্রকৌশলী মো. নূরুল হুদা, বুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. ইঞ্জিনিয়ার মো. মিজানুর রহমান, সেতু কর্তৃপক্ষের প্রধান প্রকৌশলী কাজী মোহাম্মদ ফেরদৌস, সড়ক ও জনপদের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী এ কে এম মনির হোসেন পাঠান।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected