জাতীয়

বাংলাদেশের গণহত্যা অস্বীকার এবং সংখ্যার রাজনীতি

এপ্রিল ২০২১ মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ১৯১৫ সালে আর্মেনিয়ানদের হত্যার ঘটনাকে গণহত্যা হিসেবে স্বীকৃতি দেন। তুর্কি রাজনীতিবিদগণ এর তীব্র প্রতিবাদ জানান এবং এটিকে তাঁদের বিরুদ্ধে ‘অপবাদ’ বলে অভিহিত করেন। বাংলাদেশের গণহত্যার জন্য অনুরূপ একটি স্বীকৃতি পেতে দীর্ঘ সময় পার হয়ে গিয়েছে। পাকিস্তানি সেনাবাহিনী কর্তৃক বাংলাদেশীদের গণহত্যা একটি স্বদেশি ও আন্তর্জাতিক বিবাদের বিষয়ে পরিণত হয়েছিল। এখনও, মৃত্যুর পরিসংখ্যান নিরর্থক বিতর্কের অংশ হিসেবে রয়ে গিয়েছে।

বাংলাদেশের ৬৪ জেলার মধ্যে ২৮টিরও বেশি জেলায় ১৩৮৫৪টি শুধুমাত্র গণহত্যার ঘটনাই ঘটেছে বলে জানা গিয়েছিল। সমকালীন গবেষকরা দাবি করছেন যে, ৩০ লাখেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছিল। সেই থেকে বাংলাদেশের গণহত্যা বিভিন্ন দল কর্তৃক রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

স্বাধীনতা যুদ্ধের পর, ১৯৭৫ সাল থেকে সামরিক জান্তা বাংলাদেশ শাসন করে। সে সময়ে পাকিস্তানপন্থি অংশটি রাজনীতিতে পুনর্বাসিত হয়েছিল, নির্বাসিত রাজাকার নেতৃবৃন্দ ফিরে এসেছিল এবং ইতিহাসের পুনর্গঠন শুরু হয়েছিল। সামরিক নেতৃবৃন্দ এবং রাজনৈতিক দলগুলোর তেজস্বী জাতীয়তাবাদের আড়ালে ঢাকা পড়ে গিয়েছিল গণহত্যা। এটি আসলে ছিল জনগণকে দুই ভাগে বিভাজিত করার চাতুর্যপূর্ণ একটি অভিঘাত। পরবর্তী দুই দশকে বাংলাদেশী গণহত্যা বিষয়টি ক্রমান্বয়ে অস্পষ্ট হয়ে পড়ে।

জনপ্রিয় সংস্কৃতি জাতীয়তাবাদী বিজয়কে মহিমান্বিত করেছিল তবে গণহত্যার বিষয়টি ছিল অস্বচ্ছ। প্রাণ হারানোর তথ্য গোপন করা এবং সংখ্যা নিয়ে সন্দেহ পোষণ করা একটি রাজনৈতিক আদর্শে পরিণত হয়েছিল। গণহত্যার সংখ্যা হ্রাসকরণ প্রক্রিয়া কয়েক প্রজন্মের রক্তাক্ত ইতিহাসকে ধীরে ধীরে মুছে ফেলছিল। সহযোগী দলগুলি রাজনৈতিক বৈধতা প্রতিষ্ঠা করা এবং সামরিক সরকারকে সমর্থন জানানোর জন্য এই প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছিল। যতদিন পর্যন্ত না আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলো এবং বক্তব্য পাল্টে গেলো।

আগ্রাসী রাষ্ট্রসমূহ- যেমন পাকিস্তান তাদের সুস্পষ্ট মানবাধিকার লঙ্ঘনকে মেনে নেওয়ার পরিবর্তে সরাসরি অস্বীকার করেছিল। গণহত্যা ছিল জনপ্রিয় মতবিরোধকে দমন করার এবং সমাজের সামাজিক কাঠামোকে ব্যাহত করার একটি উপকরণ। ক্ষতিগ্রস্তদের সংখ্যা কম দেখানোর প্রচেষ্টা গণহত্যার বাস্তবতাকে আড়াল করে। যুদ্ধকালীন হত্যাকাণ্ড ক্ষুধা, সহিংসতা্ ও রোগ-ব্যাধির জন্ম দেয় এবং পাকিস্তান অপরাধীদের তাদের মানবতাবিরোধী অপরাধ থেকে নিষ্কৃতি দেয়।

একটি দুর্লভ সাক্ষাৎকারে অপারেশন সার্চলাইটের অন্যতম পরিকল্পনাকারী জেনারেল রাও ফরমান আলী মৃতের সংখ্যা ৪০ থেকে ৫০ হাজারের মধ্যে বলে দাবি করেন। ১৯৭২ সালে পাকিস্তানের হামুদুর রহমান কমিশন যুদ্ধে মাত্র ২৬০০০ মানুষ নিহত হওয়ার কথা জানিয়েছিলো।

পাকিস্তান এমনকি পূর্ব পাকিস্তানে মোতায়েনকৃত সেনাসংখ্যাও কম দেখিয়েছিল এটি প্রমাণ করতে যে এতো অল্পসংখ্যক সেনা এমন ব্যাপক গণহত্যা চালাতে সক্ষম ছিল না। অনেক বছর পর, অসংখ্য গণকবর খনন করা হচ্ছে আর গণহত্যার ঘটনাগুলি বের করে এনে নথিভুক্ত করা হচ্ছে। স্বাধীনতাবিরোধী গোষ্ঠিগুলির বৈধতা অবশেষে চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে পড়ে যখন ২০১৩ সালে বাংলাদেশ চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু করে। তখন থেকে বাংলাদেশ স্বাধীনতার জন্য ত্রিশ লক্ষ প্রাণ বিসর্জনের জোরালো অভ্যন্তরীণ এবং আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি চেয়েছে।

গণহত্যায় মৃত্যুর পরিসংখ্যান নিয়ে লড়াইয়ের ঘটনা অস্বাভাবিক কিছু নয়। গণহত্যা অস্বীকারকারীরা হয় সরাসরি নিরেট মিথ্যাচার করে নয়তো তাদের মান-মর্যাদা রক্ষার খাতিরে নৃশংসতার মাত্রা কম দেখায়, যেমনটি পাকিস্তান করছে।  ১৯১৫-১৯১৬ সালে অটোম্যান তুরস্ক কর্তৃক সংঘটিত আর্মেনিয়ান গণহত্যায় প্রায় ১৫ লক্ষ লোক নিহত হওয়ার দাবি করা হয়েছে। তুরস্কের রাজনীতিবিদদের মতে এই সংখ্যা তিন লক্ষেরও কম।  ১৯৯৪ সালে রুয়ান্ডা গণহত্যায় তুতসি সরকার প্রায় ৫ থেকে ৬ লক্ষ মানুষকে হত্যা করেছিলেন।  তবে তুতসি সরকারের প্রাক্কলন অনুযায়ী এই সংখ্যা এক লক্ষের চেয়ে বেশি নয়। তবে অন্যান্য গণহত্যার ঘটনার মতো বাংলাদেশি ইতিহাসবেত্তাগণ, সরকার এবং সমমনা মানবাধিকার গোষ্ঠিগুলো ভুলে যাওয়া গণহত্যার ব্যাপক স্বীকৃতি পেতে তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close

Adblock Detected