বাণিজ্য

চা পানের অভ্যাস বেড়ে যাওয়ায় রপ্তানি করা কঠিন হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

মানুষের চা পানের অভ্যাস বেড়ে যাওয়ায় চা-রপ্তানি করা কঠিন হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

তিনি বলেন, দিনে দিনে আমাদের চায়ের উৎপাদন বাড়লেও  রপ্তানি করা কঠিন হবে। কারণ দেশের মানুষ চা খাওয়া বাড়িয়ে দিয়েছে।

শুক্রবার (৪ জুন) সকাল রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশ চা-বোর্ডের উদ্যোগে ‘মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, চা শিল্পের প্রসার’ স্লোগানে দেশে প্রথম জাতীয় চা দিবস এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

অনুষ্ঠান শেষে বাণিজ্যমন্ত্রী বাংলাদেশ চা বোর্ডের গবেষণা প্রতিষ্ঠান বিটিআরআই কর্তৃক উদ্ভাবিত উন্নতজাতের ক্লোন বিটি-২২ ও বিটি-২৩ চা অবমুক্ত করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্পর্শে চা-শিল্প উজ্জীবিত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু চা-বোর্ডের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে থাকাকালীন এবং পরে প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন শ্রমিক শ্রেণি ও বিভিন্ন শ্রেণির মানুষসহ বিভিন্ন বিষয়ে যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত তিনি নিয়েছে যা চা খাতকে সমাদৃত করেছে। বাজেট অধিবেশনের আগে কেবিনেট মিটিংয়ে প্রধানমন্ত্রী চা-রপ্তানির বিষয়েও কথা বলেছেন। একই সঙ্গে চা-পাতার নতুন নতুন আইটেম আনা, বাজেট বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, আমরা সবাই চা-রপ্তানি করতে চাই। কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি, সেটা খুব কঠিন হবে। বৈজ্ঞানিক চিন্তা-চেতনা কাজ করছে, আমাদের সর্বাঙ্গীন প্রচেষ্টা সবকিছুই আছে। ৯৬ মিলিয়ন কেজি চা উৎপাদনের রেকর্ড করেছি। হয়তো এ বছর কিংবা আগামী বছর এটা ১০০ ছাড়িয়ে যাবে। বছর বছর হয়তো পাঁচ শতাংশ বা সাত শতাংশ উৎপাদন আমরা বাড়াতে পারবো। ধারণা দেওয়া হয়েছে আমরা হয়তো একসময় চাহিদা মিটিয়ে ১১ মিলিয়ন কেজি চা-রপ্তানি করতে পারবো। আমার ধারণা সেটা কঠিন হবে। কারণ আমাদের দেশের মানুষতো চা খেতে শুরু করেছে। এখন সাধারণ মানুষ চা খাচ্ছে। যে মানুষ কোনোদিন চা খেতেন না সেও এখন তিন কাপ চা খান। যে মানুষ বাড়ির বাইরে নাস্তা করতেন না তিনি এখন সকালে বাড়ির বাইরে মোড়ের দোকানে নাস্তা করে। এর সঙ্গে চা-পান করেন। টেলিভিশন দেখার সময়ও চা-পান করেন অনেকে। এর মাধ্যমে এটাও বোঝা যায় তৃণমূলের মানুষের অর্থনৈতিক পরিবর্তন হয়েছে।

টিপু মুনশি বলেন, সাধারণ মানুষ চা খাওয়ার ব্যয় বহন করতে পারছে। ভাত, রুটি খাওয়ার অভ্যাস তো মানুষের আগেই ছিল। এখন চা খাওয়ার অভ্যাসটা গড়ে উঠেছে। তারা এখন তিন টাকা বা পাঁচ টাকা বা ১০ টাকায় চা খাচ্ছে। ফলে চায়ের ব্যবহারের পরিধি বাড়ছে। তাই সময় যত যাবে চা উৎপাদন বাড়বে, আবার ভোক্তাও বাড়বে। তাহলে রপ্তানি করবো কি করে। তবে আমাদের চা রপ্তানির চেষ্টা করতে হবে। এখানে শুধু টাকা ফ্যাক্ট না, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে আমাদের চা গেলে আমাদের জন্য গর্বের হবে। আমাদের দেশের পরিচিতি বাড়বে ও ব্র্যান্ডিং হবে।

বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ চা-বোর্ডের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মো. জহিরুল ইসলাম।

এছাড়া বাংলাদেশ চা বোর্ডের গবেষণা প্রতিষ্ঠান বিটিআরআই কর্তৃক বিভিন্ন ভ্যালু অ্যাডেড টি প্রদর্শন করা হয়। দেশের শীর্ষ স্থানীয় চা-কোম্পানিগুলো ও তাদের চায়ের ব্র্যান্ড প্রদর্শনীতে উপস্থাপন করে।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close

Adblock Detected