মুক্তমত

তিনি বঙ্গবন্ধু : লীনা পারভীন

 “Leaders are born or made” এই নিয়ে তর্ক এখনো শেষ হয়ে যায়নি। লীডারশীপ নিয়ে আছে অনেক থিওরি। কেউ হয়তো জন্মগতভাবে নেতা নয় বা কারো মধ্যে নেতৃত্বের কোন লক্ষণ পাওয়া না গেলেও কিছু কিছু ঘটনায় হয়তো সে নেতৃত্বে চলে আসতে পারে। আমাদের চারপাশে এ ধরণের প্রচুর উদাহরণ আছে। যাদের কেউ টিকে আবার কেউ না। তাই আমি ব্যক্তিগতভাবে কোন ছকেবাঁধা তত্ত্বে বিশ্বাস করিনা কখনো। তত্ত্ব আপনাকে বুঝতে সুবিধা করে কিন্তু নিজেকে গড়ে তোলার জন্য নিজের জ্ঞান বুদ্ধির সর্বোত্তম ব্যবহারটাই হচ্ছে মূল। বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনীটি আবার পড়ছিলাম। প্রতিটা পাতায় পাতায় আমি বুঝার চেষ্টা করেছি উনি কীভাবে আজকে বঙ্গবন্ধু হয়ে উঠলেন?
সেই সময়ে নেতাতো অনেকেই ছিলেন যাদের অধীনে থেকে তিনি রাজনীতি করেছিলেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু একজনই হতে পেরেছিলেন। এর কারণ কী? একটু খেয়াল করলে বুঝা যাবে বঙ্গবন্ধু ছোটবেলা থেকেই একটু প্রথাবিরোধী লোক ছিলেন। অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ তাঁর রক্তে মিশে ছিলো। কেউ কিন্তু তাঁকে হাত ধরে টেনে নিয়ে আসেনি রাজনীতিতে। এটা উনার ভিতরে জন্ম নিয়েছে। প্রতিটা ঘটনায় তিনি কেমন করে যেন সামনে চলে আসতেন। ধীরে ধীরে দলের উচ্চ পর্যায় থেকে নিম্ন পর্যায়ের সকলের মধ্যেই তাঁকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছিলো এক ধরনের নির্ভরতা। প্রতিটা ঘটনা উনাকে বাস্তবতার শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুলেছিলো। তিনিতো আর লীডারশীপের থিওরি মুখস্ত করে লীডার হন নি। অন্যরা যে কাজটি করতে ভয় পেত তিনি সেটাকেই চ্যালেঞ্জ হিসাবে নিতেন এবং জয়ী হতেন। অনেক বাঘা বাঘা নেতাদেরকে তিনি চ্যালেঞ্জ জানিয়েছিলেন। এই যে তার সাহসিকতার পরিচয় এটা কেউ তাঁকে উপহার দেয়নি। এটা উনার ভিতরেই ছিলো। সময়ের প্রয়োজনে কেবল ব্যবহার করেছিলেন। শত্রুকেও তিনি কখনো শত্রু হিসাবে দেখেন নি। শত্রুতায় না গিয়েও তিনি নিজের কৌশলে অটল ছিলেন। অসহায়ের প্রতি তাঁর যে মমতা মেশানো ব্যবহার তার কোন তুলনা হয়না।
দেশের প্রয়োজনে নিজেকে এগিয়ে রাখা এবং সামনে অগ্রসর হওয়ার এক অন্যরকম উদাহরণ তিনি। এরকম হাজারো গুন বর্ণনা করা যাবে। কিন্তু একটু বিশ্লেষন করলেই দেখা যায় কিছু কিছু গুনাবলী বা ট্রেইট তার ভিতরেই ছিলো একজন মানুষ হিসাবে আর কিছু কিছু গুনাবলী তিনি অর্জন করেছেন সিচুয়েশন থেকে। বঙ্গবন্ধু এমন এক টাইপের লীডার ছিলেন তাঁকে কোন নির্দিষ্ট ফর্মার মধ্যে ফেলে বুঝতে গেলে ভুল হবে। তার মধ্যে যে ভার্সেটিলিটি ছিলো সেটা খুব অপ্রতুল আজকের যুগে। লীডারশীপের একটি অন্যরকম ধারার উদাহরণ হিসাবে উনাকে সামনে নিয়ে আসাটা খুব জরুরী। এর থেকে অনেকেই অনুপ্রাণিত হবে। বিশেষ করে আজকে যখন আমরা নেতৃত্ব শুণ্যতার ভুগছি। তিনি প্রমাণ করেছিলেন কেউ লীডার হয়ে জন্মায়না বা লীডার তৈরীও করা যায়না। এই দুইয়ের সংমিশ্রনে কখনো কখনো কেউ লীডার হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে এবং অন্যরা তা ফলো করতে বাধ্য। স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি ও তার দোসররা যে চক্রান্ত ষড়যন্ত্র করে ৭১’কে ভুলিয়ে দিতে চেয়েছিলো, ১৫ আগস্ট ছিল সেই চক্রান্তের চূড়ান্ত রূপ। তারা ভালোই জানতো যে এই একজন ব্যক্তিকে সরিয়ে দিতে পারলেই সফলতা আনতে পারবে। পাকিস্তানিরা যে কাজটি করতে গিয়েও সাহস পায়নি, স্বাধীন বাংলাদেশের কিছু পাকিস্তানি এজেন্ট সেটা করতে সাহস করেছিলো। শাসন ক্ষমতায় বসিয়েছিলো তাদেরই ভাই ব্রাদারদের, যাতে ক্ষমতা ব্যবহার করে পরবর্তী কাজগুলো করা যায় খুব সহজে। ১৯৭৫ সালের ১৭ মার্চ যেখানে সব পত্রিকায় বড় বড় করে ছাপা হয়েছিলো বঙ্গবন্ধুর ওপর প্রতিবেদন, সেখানে ১৯৭৬ সালের ১৭ মার্চ থেকে একদম হাওয়া হয়ে গিয়েছিলো বঙ্গবন্ধু নামটি। এটিকে সহজ দৃষ্টিতে দেখার কোনও উপায় আছে কি? কিন্তু পেরেছে কি তারা সফল হতে?
একদম ব্যর্থ হয়েছিলো সেটাও ঠিক বলা যায় না। অন্তত কয়টা বছর তারা সফলতার সাথেই পেরেছিলো সেই কাজটি করতে। আর এর মাঝেই বেড়ে উঠেছে কয়েকটি প্রজন্ম, যাদের বয়স বাংলাদেশের বয়স থেকে কম বা ৪২ থেকে নিচের দিকে। বঙ্গবন্ধু আবার ফিরতে শুরু করেছিলো ১৯৯৬ সাল থেকে। ৯৬ সাল বলছি কারণ ৭৫’র পর সেই প্রথম বঙ্গবন্ধুর দলটি ক্ষমতায় আসতে পেরেছিলো। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না এলে প্রকৃত ইতিহাস লুকানোই থাকতো। আজও আমরা সেটাই জানতাম, যেটা জেনেছিলাম জন্মের পর থেকে। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অপপ্রচারে অংশ নিয়েছিলো আমাদের দেশের কিছু বাম প্রগতিশীল রাজনৈতিক দলও। তারা তাদের কর্মীদের কখনও বঙ্গন্ধুকে জাতির পিতা বলতে উৎসাহিত করতো না। আন্তর্জাতিকতাবাদের স্লোগানের দোহাই দিয়ে জাতির পিতাকে অস্বীকারের সংস্কৃতি গড়েছিলো তারা। তখনকার প্রজন্ম জানতেই পারেনি একজন ব্যক্তির দেশপ্রেম কতটা উচ্চতার হলে ৫৫ বছরের জীবনের মধ্যে ১৪ বছর কাটিয়েছেন জেলখানায়। প্রিয়তমা স্ত্রী, কন্যা ও পুত্রদের স্বামী ও পিতৃস্নেহ থেকে বঞ্চিত করেছিলেন কেবল একটি স্বপ্নকে বুকে নিয়ে। একদিন স্বাধীন হবে এই দেশ আর স্বাধীন দেশের মানুষ হয়ে মাথা উঁচু করে বাঁচবে প্রতিটি বাঙালি। সেই স্বপ্নকেই ভয় ছিল শাসকগোষ্ঠীর। কারণ, বঙ্গবন্ধু তাঁর মাঝেই সে স্বপ্নকে আটকে রাখেননি। বীজ বুনে দিয়েছিলেন প্রতিটি মানুষের মাঝে। আর স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখা কোনও জাতিকে পায়ের তলায় দমিয়ে রাখা সম্ভব নয় এটি বুঝতে পেরেছিলো বলেই হতভাগা এই জাতিকে দেখতে হয়েছিলো ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট। তবে একটা জায়গায় আমাদের আসতেই হবে যে কিছু সময়ের জন্য সফল হলেও চূড়ান্ত হিসাবে তাদের সেই ষড়যন্ত্র সফল হয়নি আর হবেও না কখনও। বঙ্গবন্ধুকে এ দেশ থেকে মুছে দিতে চেয়েছিলো কিন্তু তিনি এখন ছড়িয়ে পড়েছেন দেশের সীমানা ছাড়িয়ে গোটা বিশ্বে। তাঁর ৭ মার্চের ভাষণ এখন জাতিসংঘ কর্তৃক স্বীকৃত।
নতুন প্রজন্ম এখন নতুন করে আবার আবিষ্কার করতে পারছে বঙ্গবন্ধুর গভীরতাকে। সরকার অনেক বেশি আন্তরিক মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে সবার কাছে উন্মুক্ত করতে, বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের কাছে সঠিক বিষয়টা পৌঁছে দিতে। এই মহান নেতার প্রতি অসীম কৃতজ্ঞতা আমাদের গোটা জাতির।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close