মুক্তমত

আইনগত সহায়তা ও বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি: প্রাসঙ্গিক ভাবনা প্রসঙ্গে

আমাদের দেশের সামাজিক প্রেক্ষাপটে এবং বিদ্যমান আইনি চর্চায় বিচারাধীন মামলাসমূহে লিগ্যাল এইড তথা আইনগত সহযোগিতার মাধ্যমে ‘বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি’ পদ্ধতি ব্যবহার করে পক্ষদ্বয়ের মধ্যে কাঙ্খিত সমঝোতায় পৌঁছা অনেকটা কঠিন কাজ হিসেবে ধারণা করা হয়। মামলার ভার, বিচারক স্বল্পতা, বিজ্ঞ আইনজীবী ও পক্ষদ্বয়ের দৃষ্টিভঙ্গি, বিচারাধীন মামলা লিগ্যাল এইড অফিসারের নিকট প্রেরণের সুনির্দিষ্ট বিধি বিধানের অনুপস্থিতি ইত্যাদি বিবেচনায় এ ধারণা অমূলক নয় মর্মে মনে হয়। তবে বিজ্ঞ বিচারিক আদালতের সমঝোতমূলক নিষ্পত্তির নিমিত্তে উৎসাহব্যঞ্জক ভূমিকা, বিজ্ঞ আইনজীবীদের সহযোগিতামূলক মনোভাব এবং পদ্ধতিগত আইনি প্রক্রিয়ার সহজিকীকরণ প্রয়োগ এ ধারণা পরিবর্তনে সহায়ক হতে পারে।

আইনগত সহযোগিতার উদ্দেশ্য হচ্ছে সরকারি খরচে গরীব দু:খী মানুষদের আইনগত সহযোগিতা প্রদান। আইনগত সহযোগিতার সাংবিধানিক ভিত্তি হচ্ছে সংবিধানের প্রস্তাবনার তৃতীয় প্যারাগ্রাফ ও অনুচ্ছেদ ২৭ এবং আইনগত ভিত্তি হচ্ছে আইনগত সহায়তা প্রদান আইন-২০০০। মূল আইনকে কার্যকর করার জন্য প্রণীত হয়েছে জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা (উপজেলা ও ইউনিয়ন কমিটি গঠন, দায়িত্ব, কার্যাবলী ইত্যাদি) প্রবিধানমালা ২০১১, আইনগত সহায়তা প্রদান নীতিমালা, ২০১৪, আইনগত সহায়তা প্রদান (আইনী পরামর্শ ও বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি) বিধিমালা, ২০১৫, আইনগত সহায়তা প্রদান প্রবিধানমালা, ২০১৫, চৌকি আদালতের বিশেষ কমিটি গঠন, দায়িত্ব, কার্যাবলী, ইত্যাদি প্রবিধানমালা, ২০১৬ এবং শ্রম আদালতের বিশেষ কমিটি গঠন, দায়িত্ব, কার্যাবলী, ইত্যাদি প্রবিধানমালা, ২০১৬। উল্লেখ্য ২০১৯ সালের ৩১শে মার্চ প্রকাশিত গেজেটের মাধ্যমে লিগ্যাল এইড অফিসারের কর্মকে ”বিচারিক কর্ম” হিসেবে গণ্য করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

বিকল্প বিরোধ-নিষ্পত্তি প্রক্রিয়া পারিবারিক আদালত অধ্যাদেশ, ১৯৮৫-তে মামলার বিচারের শুনানীপূর্ব পর্যায়ে আদালতের উদ্যোগে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর আপোষ বা সমঝোতার মাধ্যমে পারিবারিক বিরোধ নিষ্পত্তি করার, এবং বিচার শেষ হবার পর ও রায় প্রদানের আগে বিকল্প বিরোধ-নিষ্পত্তি প্রক্রিয়ায় গৃহশান্তি ও পারিবারিক পরিবেশ পুনঃপ্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। নির্বাচিত পারিবারিক আদালতগুলোতে আলাপ-আলোচনা, মধ্যস্থতা ও সালিশির মাধ্যমে পারিবারিক বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য সরকার যুক্তরাষ্ট্রের একটি সংস্থার সহযোগিতায় ২০০০ সালে একটি পরীক্ষামূলক প্রকল্প গ্রহণ করার পূর্ব পর্যন্ত এ বিধানগুলো সংবিধি পুস্তকে বর্ণিত থাকলেও বাস্তবে অকার্যকর ছিল। পারিবারিক আদালতে বিচারের অপেক্ষায় থাকা মামলাগুলোর নিষ্পত্তির জন্য এমন আদালতের কিছু কিছু বিচারক ও আইনজীবিকে বিকল্প বিরোধ-নিষ্পত্তির প্রক্রিয়া প্রয়োগ করার প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছিল। নির্বাচিত পারিবারিক আদালতগুলোর কাছ থেকে আশাব্যঞ্জক ফল লাভ করার পর বিকল্প বিরোধ- নিষ্পত্তির প্রক্রিয়া এ জাতীয় আরও কতিপয় আদালত অবধি সম্প্রসারিত করা হয়েছে।

আইনগত সহযোগিতার মূল আইনের একটি গুরুত্বপূর্ণ মৌলিক দিক হচ্ছে দেওয়ানী ও ফৌজদারি আদালতে বিচারাধীন মামলা সমূহ ‘বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি’ পদ্ধতির মাধ্যমে নিষ্পত্তি করা। এতদুদ্দেশ্যে মূল আইনে ২১ক ধারা অনুবলে (২০১৩ সনের ৬২ নং আইন এর ১৫ ধারা বলে সংশোধনী মূলে) লিগ্যাল এইড অফিসার কে আইনগত সহায়তা প্রার্থীকে আইনি পরামর্শ প্রদান করার পাশাপাশি প্রচলিত আইনের অধীন কোন আদালত বা ট্রাইব্যুনাল কর্তৃক বিকল্প পদ্ধতিতে বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য প্রেরণ করা হলে তা তিনি নিষ্পত্তি করতে পারবেন মর্মে ক্ষমতা প্রদান করা হয়। আইনগত সহায়তা প্রদান (আইনী পরামর্শ ও বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি) বিধিমালা, ২০১৫ এর ১৭ বিধি অনুসারে এ বিধিমালায় প্রদত্ত পদ্ধতি অনুসরণ করে লিগ্যাল এইড অফিসারের মাধ্যমে আদালত বা ট্রাইব্যুনাল কর্তৃক প্রেরিত মামলাসমূহ বিকল্প বিরোধ পদ্ধতিতে নিষ্পত্তি করার বিধান রাখা হয়। তবে মূল আইনে আইনগত সহায়তায় দেওয়ানি মামলা সম্পর্কে কোন সীমাবদ্ধতা না রাখলেও ফৌজদারি মামলা সমূহের মধ্যে শুধুমাত্র আপোষযোগ্য মামলা সমূহ বিকল্প বিরোধ পদ্ধতিতে নিষ্পত্তির বিধান রাখা হয়। অপরদিকে প্রচলিত আইনে ফৌজদারি মামলা নিষ্পত্তিতে বিকল্প বিরোধ পদ্ধতি সংক্রান্তে কোন পরিবর্তন বা সংযোজন না আনলেও দেওয়ানী কার্যবিধির ৮৯ক ধারা (২০১৭ সালের দেওয়ানী কার্যবিধি (সংশোধনী) আইন এর ২(ঙ) ধারা) মতে বিচারাধীন দেওয়ানী মামলাটি এডিআর পর্যায়ে (তিন টি বিকল্পের মধ্যে একটি) ‘বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি’ অনুসারে নিষ্পত্তির নিমিত্তে সংশ্লিষ্ট লিগ্যাল এইড অফিসারের নিকট প্রেরণ করা যেতে পারে মর্মে বিধান রাখা হয়।

পারিবারিক আদালতের মামলাগুলোতে বিকল্প বিরোধ-নিষ্পত্তির পদ্ধতি প্রয়োগের ফলাফলে অনুপ্রাণিত হয়ে মধ্যস্থতা ও সালিশির মাধ্যমে দেওয়ানি মামলা নিষ্পত্তির জন্য দেওয়ানি কার্যবিধি (সংশোধনী) আইন, ২০০৩ বলে দেওয়ানি কার্যবিধিতে ৮৯ক ও ৮৯খ ধারা দুটির বিধান সংযোজিত হয়েছে। তবে অর্থঋণ আদালতগুলোতে বিচারের অপেক্ষায় থাকা অর্থলগ্নি প্রতিষ্ঠানগুলোর পাওনা ঋণ আদায়ের মামলাগুলো এর আওতার বাইরে রাখা হয়েছে। দেওয়ানি কার্যবিধির নতুন সংযোজিত ৮৯ক ধারার বিধানে দেওয়ানি আদালতকে মামলায় লিখিত বক্তব্য পেশ হবার পর প্রতিদ্বন্দ্বী পক্ষগুলো সশরীরে বা উকিলের মাধ্যমে আদালতে উপস্থিত হয়ে মধ্যস্থতার মাধ্যমে নিষ্পত্তির জন্য মামলার শুনানী মূলতবী করে মামলার বিরোধ মধ্যস্থতা করার কিম্বা সেগুলো পক্ষগুলোর নিয়োজিত উকিলের কাছে কিম্বা উকিল নিয়োগ করা না থাকলে পক্ষ বা পক্ষগুলোর কাছে অথবা স্থানীয় আইনজীবী সমিতির সঙ্গে পরমর্শক্রমে জেলা জজ প্রণীত প্যানেলের মধ্য থেকে একজন মধ্যস্থতাকারীর কাছে পাঠানোর ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। মামলার পক্ষগুলোর উকিলদের কাছে বিরোধ পাঠানো হলে তারা মক্কেলদের সম্মতিক্রমে বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য একজন নিরপেক্ষ উকিল যেমন একজন অবসরপ্রাপ্ত জজ অথবা জেলা জজ প্রণীত নামের প্যানেল থেকে একজন মধ্যস্থতাকারী কিম্বা উপযুক্ত অপর যেকোন ব্যক্তিকে নিয়োগ করবেন। পক্ষগুলো এ ধরনের নিষ্পত্তির ব্যাপারে রাজী আছেন কিনা তা মধ্যস্থতার জন্য মামলাটি পাঠানোর তারিখ থেকে ১০ দিনের মধ্যে তাদের আদালতকে জানাতে হবে, এবং আদালতকে জানানোর তারিখ থেকে ৬০ দিনের মধ্যে মধ্যস্থতার কাজ সম্পূর্ণ করতে হবে যদি না আদালত এই মোকদ্দমাটির মেয়াদ আরও ৩০ দিন বাড়িয়ে দেন। মধ্যস্থতাকারী মধ্যস্থতা ও কার্যক্রমের ফলাফল সম্পর্কে আদালতের কাছে রিপোর্ট পেশ করবেন এবং ফলাফল যদি মামলার বিরোধ বা বিরোধগুলোর আপোষ নিষ্পত্তি হয়ে থাকে তাহলে আপোষ রফার শর্তাবলি একটি চুক্তির আকারে লিপিবদ্ধ করতে হবে। সেই চুক্তিতে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলো স্বাক্ষর করবে এবং মধ্যস্থতাকারী ও উকিলরা তা সত্যায়িত করবেন। অতঃপর আদালত সেই চুক্তির ভিত্তিতে আদেশ বা ডিক্রি জারী করবেন। মধ্যস্থতা ব্যর্থ হলে এবং আদালত নিজে মধ্যস্থতা না করলে যে পর্যায়ে মধ্যস্থতা শুরু হয়েছিল সেই পর্যায় থেকে শুনানীর মধ্য দিয়ে মামলার বিচার প্রক্রিয়া অগ্রসর হবে যেন মধ্যস্থতার কোনো সিদ্ধান্তই কখনও নেয়া হয় নি। আদালত নিজেই যদি মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয় তাহলে তার মধ্যস্থতা ব্যর্থ হলে মধ্যস্থতা করার এখতিয়ার সম্পন্ন অপর একটি আদালত মামলার শুনানী গ্রহণ করবে।

এমন মধ্যস্থতার কার্যক্রম গোপন থাকবে এবং মধ্যস্থতা চলাকালে করা হয়েছে বা অনুষ্ঠিত হয়েছে এমন যেকোন যোগাযোগ বা সংলাপ প্রকাশ না করার বিশেষ অধিকার হিসেবে গণ্য হবে এবং একই মামলার পরবর্তী কোনো শুনানীতে বা অপর কোনো কার্যক্রমে সেগুলো উল্লেখ করা যাবে না ও সাক্ষ্য প্রমাণ হিসেবে গ্রহণযোগ্যতা পাবে না। এধরনের আপোষ নিষ্পত্তি অনুযায়ী আদালতের দেয়া কোনো আদেশ বা ডিক্রির বিরুদ্ধে কোনরকম আপীল করা বা পর্যালোচনার আবেদন করা যাবে না। মধ্যস্থতার মাধ্যমে কোনো মামলার নিষ্পত্তি বা আপোষ করা হলে আদালত সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোকে কোর্ট ফির টাকা ফেরত দেয়ার আদেশ দেবেন।

লিগ্যাল এইড অফিসারের মাধ্যমে ‘বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি’ পদ্ধতি প্রয়োগ করে কার্যকর ফলাফল পাওয়ার সম্ভাবনা আছে মর্মে আইনাঙ্গণে প্রচলিত আছে। লিগ্যাল এইড অফিসারের দায়দায়িত্ব ও ক্ষমতা বিধিবদ্ধ আইন, নীতিমালা, বিধিমালা ও প্রবিধানমালা দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হওয়ায় এবং সর্বোপরি তিনি একজন বিচারক কি তার কর্ম ‘বিচারিক কর্ম’ হিসেবে আইনি স্বীকৃতি দেওয়ায় এবং তিনি একটি নির্দিষ্ট আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পক্ষদ্বয়ের সম্মতিতে ও পরামর্শকদের সহযোগিতায় বিচারিক মধ্যস্ততায় সুষম সমঝোতা করিয়ে দেওয়ার সম্ভাবনা থাকায় মেডিয়েশন অগ্রযাত্রায় এই প্রক্রিয়াকে বাস্তবধর্মী প্রক্রিয়া হিসেবে বিবেচনা করার রেওয়াজ চালু আছে।

অস্বীকার করার উপায় নাই বর্তমান আইনি চর্চ্চায় লিগ্যাল এইড অফিসারের পক্ষে ‘বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি’ পদ্ধতি প্রয়োগ করে বিচারাধীন মামলা সমূহ নিষ্পত্তি করা অত্যন্ত কঠিন কাজ। প্রচলিত আইনে ফৌজদারি ও ট্রাইব্যুনালের কার্যবিধিতে বিকল্প পদ্ধতিতে বিরোধ নিষ্পত্তির বিষয়ে সুনির্দিষ্ট বিধি বিধান না থাকায় অর্থাৎ বিজ্ঞ বিচারিক আদালত কিভাবে ও কোন প্রক্রিয়ায় লিগ্যাল এইড অফিসে মামলা প্রেরণ করবেন তার সুনির্দিষ্ট বিধান না থাকায় ফৌজদারি আদালতসমূহ লিগ্যাল এইড অফিসে মামলা প্রেরণে আইনি বা পদ্ধতিগত বাধ্যবাধকতা অনুভব করে না। আবার দেওয়ানী আদালত হতে এডিআর পর্যায়ে লিগ্যাল এইড অফিসে মামলা প্রেরণের চর্চ্চাও লক্ষণীয় নয়। উপরন্তু কতেক বিজ্ঞ আইনজীবীদের বিকল্প বিরোধ পদ্ধতি ব্যবহার করে মামলা নিষ্পত্তিতে অনাগ্রহতা বিচারিক আদালত কর্তৃক লিগ্যাল এইড অফিসে মামলা প্রেরণ কে চ্যালেঞ্জিং করে তোলে। আবার কিছু কিছু মামলার পক্ষগণ সামাজিক ধ্যান ধারণার কারণে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তিকে ‘সুলভ প্রকৃতির বিচার’ হিসেবে অকার্যকর মনে করে। এছাড়া আইনগত সহযোগিতার আইনি মাধ্যমগুলো বিশেষ করে উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ কমিটিগুলো নিষ্ক্রিয় থাকায় মাঠ পর্যায়ের প্রচরণার অভাবে বিরোধীয় মামলা ‘বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি’ পদ্ধতির মাধ্যমে নিষ্পত্তির সম্ভাবনা সম্পর্কে অবগত হতে পারেন না।

তবে পদ্ধতিগত কৌশল অবলম্বনে দেওয়ানী, ফৌজদারি ও ট্রাইব্যুনালের মামলা সমূহ বিকল্প বিরোধ পদ্ধতির মাধ্যমে নিষ্পত্তি করার ক্ষেত্রে কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারে। এতদুদ্দেশ্যে সংশ্লিষ্ট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক প্রত্যেক্ষ ভূমিকা রাখতে পারেন। মামলার যেকোন পর্যায়ে প্রিজাইডিং অফিসার হিসেবে বিজ্ঞ বিচারক যদি উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে বিজ্ঞ আইনজীবীদেরকে বিকল্প পদ্ধতিতে বিরোধ নিষ্পত্তির লক্ষ্যে বিচারাধীন মামলা লিগ্যাল এইড অফিসারের নিকট প্রেরণ করতে উৎসাহিত করেন তাহলে পক্ষদ্বয় বিজ্ঞ বিচারকের উৎসাহে আস্থা রেখে বিকল্প বিরোধের মাধ্যমে সমঝোতায় অধিক আগ্রহী হতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে বিজ্ঞ আইনজীবীদেরও গঠনমূলক এবং নমনীয় ভূমিকার মাধ্যমে বিজ্ঞ বিচারকের উৎসাহিতকরণের কাজকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। লিগ্যাল এইডে মামলা চলে গেলে নিজের কজ লিস্ট থেকে মামলা কমে যাবে এই মানসিকতা থেকে বের হয়ে আসলে সহযোগিতামূলক ভূমিকা রাখা যাবে। তাছাড়া বিজ্ঞ আইনজীবীরা ‘বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি’ পরিচরালনায় সরাসরি অংশগ্রহণের মাধ্যমে পরামর্শমূলক ভূমিকা রাখতে পারেন।

বিচারাধীন মামলায় পক্ষদ্বয় যদি লিগ্যাল এইড অফিসারের মাধ্যমে বিকল্প বিরোধে নিষ্পত্তি গ্রহণ করতে সম্মত হন তাহলে পদ্ধতিগত কৌশল কি হবে তা স্পষ্ট হওয়া প্রয়োজন। যেহেতু মূল আইন লিগ্যাল এইড অফিসারকে বিকল্প বিরোধ পদ্ধতির মাধ্যমে বিচারাধীন মামলাসমূহ নিষ্পত্তির ক্ষমতা দিয়েছে এবং যেহেতু দেওয়ানী কার্যবিধিতে লিগ্যাল এইড অফিসারের বিকল্প বিরোধ পদ্ধতি অনুসরণের বিধান সন্নিবেশ হয়েছে এবং যেহেতু কোন ফৌজদারি বা ট্রাইব্যুনালের কার্যপদ্ধতিতে বিচারাধীন আপোষযোগ্য মামলা সমূহ লিগ্যাল এইড অফিসে প্রেরণের ক্ষেত্রে বাধা দেওয়ার মত কোন বিধান নেই সেহেতু লিবারেল প্রসিডিউরাল ভিউ প্রয়োগ করে বিজ্ঞ বিচারিক আদালত পক্ষদ্বয়ের সম্মতির প্রেক্ষিতে লিগ্যাল এইড অফিসে মামলা প্রেরণ করতে পারেন। এক্ষেত্রে ফৌজদারি কার্যবিধির বিধান মতে সরকার পক্ষের বিজ্ঞ কৌশলী কে প্রদত্ত ক্ষমতা আইনি বাধা দিবে না। যাহোক এই পদ্ধতিগত কৌশলের অংশ হিসেবে বিজ্ঞ বিচারিক আদালত আদেশনামায় পক্ষদ্বয়ের সম্মতিক্রমে বিকল্প বিরোধ পদ্ধতিতে নিষ্পত্তির লক্ষ্যে এবং নথি প্রাপ্তি সাপেক্ষে পরবর্তী শুনানীর জন্য দিন ধার্য করে নথি সংশ্লিষ্ট লিগ্যাল এইড অফিস বরাবরে প্রেরণের আদেশ দিতে পারেন। এক্ষেত্রে দৈনন্দিন কার্যতালিকায় নথি লিগ্যাল এইড অফিসে প্রেরণ করা হয়েছে মর্মে উল্লেখ থাকতে হবে। উক্ত নথি প্রাপ্তির পর লিগ্যাল এইড অফিসার আইনগত সহায়তা প্রদান নীতিমালা, ২০১৪, আইনগত সহায়তা প্রদান (আইনী পরামর্শ ও বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি) বিধিমালা, ২০১৫ এবং আইনগত সহায়তা প্রদান প্রবিধানমালা, ২০১৫ অনুসারে ‘বিকল্ল বিরোধ নিষ্পত্তি’ পদ্ধতি প্রয়োগ করে প্রতিবেদন আকারে নথি সহ সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞ বিচারিক আদালতে প্রেরণ করবেন। প্রতিবেদন অনুসারে বিজ্ঞ বিচারিক আদালত মামলাটি নিষ্পত্তি করবেন। তবে প্রতিবেদনে পক্ষদ্বয়ের মধ্যে নিষ্পত্তির কোন ইংগিত না থাকলে বিজ্ঞ বিচারিক আদালত মামলাটি পূর্বে যেই অবস্থায় ছিল সেখান থেকে প্রসিড করবেন।

অনুরূপভাবে দেওয়ানি কার্যবিধির ৮৯খ ধারার বিধানে বিরোধ বা বিরোধগুলো সালিশের কাছে পাঠানোর জন্য সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর আবেদনের ভিত্তিতে দেওয়ানি আদালতকে মামলা প্রত্যাহারের অনুমতি দেয়ার ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। এমন একটি দরখাস্ত সালিশি আইন, ২০০১-এর ৯ ধারার অধীনে একটি সালিশ চুক্তি বলে গণ্য হবে। কোনো ধরনের সালিশ না হলে কিম্বা সালিশ ব্যর্থ হলে ইতোপূর্বে প্রত্যাহূত মামলাটি নতুন করে রুজু করার অধিকার সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর থাকবে। আপীল মামলার ক্ষেত্রেও অনুরূপ মধ্যস্থতার ব্যবস্থা করে দেওয়ানি কার্যবিধি (সংশোধনী) আইন, ২০০৬ এর মাধ্যমে ৮৯ গ ধারা উক্ত কার্যবিধিতে সংযোজিত করা হয়েছে।

নতুন করে সংবিধিবদ্ধ অর্থঋণ আদালত আইন ২০০৩ সালের ৫ম অধ্যায়ে ফয়সালামূলক বৈঠক ও মধ্যস্থতার মাধ্যমে বিকল্প বিরোধ-নিষ্পত্তির ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। উক্ত আইনের ২১ ধারায় বলা আছে যে, অর্থলগ্নি প্রতিষ্ঠানের দায়েরকৃত সুদসহ ঋণ আদায়ের মামলায় বিবাদী পক্ষ লিখিত বক্তব্য পেশ করার পর অর্থঋণ আদালতের পরিচালনাকারী জজ ঐ মামলার পরবর্তী সকল কার্যক্রম স্থগিত রেখে ফয়সালামূলক বৈঠক ডাকবেন এবং তাতে মামলার পক্ষগুলো এবং তাদের আইনজীবী ও প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন। ফয়সালা বা নিষ্পত্তিমূলক বৈঠক গোপনীয়তার মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে। এমন বৈঠকে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলো কোনো সমঝোতায় পৌঁছালে সমঝোতার শর্তাবলি উল্লেখ করে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলো একটি চুক্তি স্বাক্ষর করবেন এবং উপস্থিত আইনজীবী ও প্রতিনিধিরা তা সত্যায়িত করবেন এবং এই চুক্তির ভিত্তিতে আদালত একটি আদেশ বা ডিক্রি জারী করবেন। এমন বৈঠকে কোনো সমঝোতায় পৌঁছানো না গেলে ঐ আদালতের পরিচালনাকারী বিচারক যদি ইত্যবসরে বদলী হয়ে না থাকেন তাহলে মামলাটি এ বিষয়ে এখতিয়ার সম্পন্ন আরেকটি আদালতে স্থানান্তরিত হবে এবং মামলার কার্যক্রম সেই পর্যায় থেকে শুরু হবে যে পর্যায়ে সমঝোতা বৈঠকটি শুরু হয়েছিল, যেন সমঝোতা বৈঠক অনুষ্ঠানের কোনো কার্যক্রম ছিল না। উক্ত আইনের ২২ ধারায় বলা আছে যে, মামলায় বাদীপক্ষ লিখিত বক্তব্য পেশ করার পর সমঝোতা বৈঠক অনুষ্ঠানের কোনো আদেশ যদি দেয়া না হয়ে থাকে তাহলে আদালত স্বতঃপ্রণোদিত ভাবে কিম্বা পক্ষগুলোর অনুরোধে মামলার পরবর্তী সকল কার্যক্রম স্থগিত রেখে নিরপেক্ষ আইনজীবী, অবসরপ্রাপ্ত জজ বা ব্যাংক ও অর্থলগ্নি প্রতিষ্ঠানের কোনো অবসরপ্রাপ্ত অফিসার অথবা সমঝোতার জন্য মধ্যস্থতাকারী হিসেবে নিযুক্ত অপর কোনো উপযুক্ত ব্যক্তির কাছে পাঠাবেন। মধ্যস্থতার কার্যক্রম গোপনে অনুষ্ঠিত হবে। মধ্যস্থতার পর মধ্যস্থতাকারী মধ্যস্থতার বিবরণ সম্বলিত একটি রিপোর্ট আদালতে পেশ করবেন। এ ধরনের কার্যক্রমে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর মধ্যে কোনো সমঝোতা হয়ে থাকলে বিরোধ নিষ্পত্তির শর্তাবলি অন্তর্ভূক্ত করে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোকে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করতে হবে এবং মধ্যস্থতাকারী ও আইনজীবীদের তা সত্যায়িত করতে হবে। ঐ চুক্তির ভিত্তিতে আদালত একটি আদেশ বা ডিক্রী জারী করবেন। এমন মধ্যস্থতা কার্যক্রমে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর মধ্যে যদি কোনো ফয়সালা না হয় তাহলে যে পর্যায়ে মধ্যস্থতা শুরু হয়েছিল সে পর্যায় থেকে মামলার শুনানী শুরু হবে যেন এধরনের মধ্যস্থতার কোনো কার্যক্রম কখনই হয় নি। এমন মধ্যস্থতার কার্যক্রম গোপন থাকবে এবং মধ্যস্ততা চলাকালীন যেকোন যোগাযোগ বা সংলাপ ইত্যাদি বিশেষাধিকার হিসেবে গণ্য হবে এবং ঐ মামলার পরবর্তী কার্যক্রমে কিম্বা অন্য আর কোনো কার্যক্রমে সেগুলোর উল্লেখ করা হবে না কিম্বা সাক্ষ্যপ্রমাণেও তা গ্রহণযোগ্য হবে না। মামলার দুই পক্ষের মধ্যকার এধরনের চুক্তির ভিত্তিতে আদালতের দেয়া আদেশের বিরুদ্ধে উচ্চতর আদালতে কোনো আপীল বা পর্যালোচনার আবেদন করা যাবে না। মামলাটি এমন সমঝোতার মাধ্যমে নিষ্পত্তি হলে আদালত সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোকে কোর্ট ফির অর্থ ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেবেন।

এমন সমঝোতা বৈঠক বা কার্যক্রম ঐ বৈঠক বা কার্যক্রমের আদেশের তারিখ থেকে ৬০ দিন সময়ের মধ্যে এবং কতিপয় চুক্তিতে আরও ৩০ দিন সময়ের মধ্যে সম্পন্ন এমন বৈঠক বা কার্যক্রমে আলোচ্য অর্থলগ্নি প্রতিষ্ঠানের প্রাধিকার প্রাপ্ত একজন অফিসার প্রতিনিধি হিসেবে থাকবেন এবং মামলায় দাবিকৃত অর্থের পরিমাণ পাঁচ কোটি টাকার বেশি হলে আদালতকে এই বৈঠক বা কার্যক্রম শুরু করা সংক্রান্ত আদেশ ঐ অর্থ প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহীকে জানাতে হবে।

আদালত সংস্কার (সহায়ক বিধানাবলি) বাস্তবায়ন আইন, ২০০৪-এ সরকার কর্তৃক প্রধান বিচারপতির সঙ্গে পরামর্শক্রমে প্রজ্ঞাপন জারী মারফত সুপ্রিম কোর্ট বা প্রকল্প জেলা আদালতগুলোতে প্রচলিত আইনের প্রয়োগ সাময়িকভাবে শিথিল বা বন্ধ রাখার এবং ওসব আদালতে জুডিশিয়াল ক্যাপাসিটি বিল্ডিং প্রজেক্ট ফর কোর্ট এডমিনিস্ট্রেশন বাস্তবায়ন, মামলার ব্যবস্থাপনা, তথ্য প্রযুক্তির প্রয়োগ ইত্যাদির জন্য প্রচলিত আদেশ, বিধিবিধান ইত্যাদির প্রয়োগ সাময়িকভাবে শিথিল বা বন্ধ রাখার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ঢাকা, গাজীপুর, খুলনা, কুমিল্লা ও রংপুর জেলা আদালত এ প্রকল্পের অর্ন্তগত।

এটি সত্য কথা যে বিজ্ঞ আইনজীবীদের প্রত্যেক্ষ সহযোগিতা না পেলে বিজ্ঞ বিচারক কখনোই লিগ্যাল এইড অফিসারের মাধ্যমে বিকল্প পদ্ধতিতে বিরোধ নিষ্পত্তির প্রক্রিয়ায় ভূমিকা রাখতে পারবেন না। তবে বর্তমান বাস্তবতায় এই প্রক্রিয়া প্রচলনে মাননীয় জেলা জজ ও মাননীয় চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বা চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেৃট এর অবগতিতে সংশ্লিষ্ট জেলা আইনজীবী সমিতিরি প্রতিনিধি (সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক) এর প্রত্যেক্ষ সহযোগিতা প্রয়োজন হবে। আশার কথা কিছু কিছু জেলায় সীমিত আকারে এ প্রক্রিয়া অনুসরণের মাধ্যমে দেওয়ানী ও ফৌজদারি আদালতের কিছু মামলা বিকল্প বিরোধ পদ্ধতি প্রয়োগ করে নিষ্পত্তির কথা শুনা যায়।

পরিশেষে বিচারাধীন মামলায় লিগ্যাল এইডের মাধ্যমে ‘বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি’ পদ্ধতিতে নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের প্রত্যেক্ষ ও আন্তরিক ভূমিকা বিচারপ্রার্থীকে যেমন দ্রুত সুষম বিচার প্রদানে সহায়ক হবে তেমনি মামলার ভার থেকে বিচার বিভাগকে কিছুটা হলেও লাঘব করা যাবে।

 

লেখক: ড. আশরাফুজ্জামান মিনহাজ
এ্যাডজান্ক্ট প্রফেসর, ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি, কানাডা
পিএইচডি ও পোস্টডকটোরাল রিসার্চ স্কলার, হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি, যুক্তরাষ্ট্র

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close