উদ্যোক্তাজাতীয়ফিচারবাণিজ্য

করোনার কারনে ব্যবসা -বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক ক্ষতি আর করণীয়

বাংলাদেশে করোনার কারণে বাজেটের প্রায় এক তৃতীয়াংশ অর্থাৎ ২ লক্ষ হাজার কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে বলে ধারণা করছেন ব্যবসায়ীরা। আর তৈরী পৌশাক খাতে ক্রয আদেশ বাতিল হয়েছে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ । টাকার অংকে ৩ দশমিক ৮ মিলিয়ন ডলারের ক্রয় আদেশ বাতিল হয়েছে বলে জানিয়েছে বিজিএমইএ। ব্যবসায়ী ও অর্থনীতিবীদরা বলছেন , শুধুমাত্র কৃষি খাতে সুখবর থাকলেও অর্থনীতির চাকা সচল হতে আগামী বছরের জুলাই থেকে আগস্ট পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে।করোনার কারণে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ক্ষতি , উত্তোরণের উপায় কি কি হতে পারে অর্থনীতিবীদ ও ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে পরামর্শ তুলে ধরছেন নিউজ নাউ বাংলা’ র সম্পাদক শামীমা দোলা।করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি

মানসুরা ইয়াসমীন স্পৃহা ও তার স্বামী আমিনুল্লাহ বাবু
সামান্য পুঁজিকে সম্বল করে গড়ে তোলেন সরলা নামের একটি প্রতিষ্ঠান। সামান্য পুঁজিকে সম্বল করে গড়ে তোলেন এই প্রতিষ্ঠানটি।,হাতে তৈরী নানা রকমের সৌখিন পণ্য তৈরী করেন তারা। তাদের নিষ্ঠা, শ্রম আর একাগ্রতায় প্রতিষ্ঠানটি অল্পদিনেই সুনাম কুঁড়িয়েছে। তারা স্বপ্ন দেখছিলেন প্রতিষ্ঠানটিকে আরও বড় করার। কিন্তু বাধ সাধলো করোনা পরিস্থিতি। বিশ্বব্যাপী কভিড ১৯ এর কালো থাবায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে এই ক্ষুদ্র উদ্যেক্তা দম্পতি। এবারের পহেলা বৈশাখ আর ঈদের বাজার ধরতে তারা নকশা করা শাড়ি, ফতুয়া, পাঞ্জাবী, সান গ্লাস, গহনাসহ হরেক রকমের, পণ্য তৈরী করেছিলেন। কিন্তু তার আগেই মার্চ মাসে দেশে করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে পাল্টে গেছে সব হিসাব কিতাব।
করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি
মানুষের আয় কমে যাওয়ায় চাল, ডালের মত নিত্যপণ্যের বাইরে সৌখিন পণ্য কেনা বন্ধ করে দিয়েছে। এখন দীর্ঘশ্বাস নিয়ে বৈশাখ আর ঈদের জন্যে তৈরী করা পন্য গুলো দেখেন আর ঝাড়া মোছা করেন তারা।
করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি
স্প্রীহা বলেন, দেশে সবচেয়ে বেশি কেনা বেচা হয় পয়লা বৈশাখ আর রোজার ইদে। আমরা সারা বছর ধরে প্রস্তুতি নেই পয়লা বৈশাখ আর ঈদের বাজার ধরতে ।এবার দুটো উৎসবই আমরা হারালাম। স্পৃহার মত দেশে হাজারো ক্ষুদ্র উদ্যেক্তার অবস্থা এখন এমন।
করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি
শুধু ক্ষুদ্র উদ্যেক্তা না, করোনার প্রভাবে ২৬ মার্চ থেকে সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করলে বন্ধ হয়ে যায় সব উৎপাদনমুখী বড় বড় শিল্প কারখানা, দোকান পাট।থেমে ছিল যান চলাচল। সেবা খাত , আর্থিক কোন খাতই বাদ যায়নি করোনার প্রভাব থেকে।
ঘিন্জি এলাকায় করোনা
তিন মাসের সাধারণ ছুটিতে আর্থিক ক্ষতির সঠিক চিত্র পাওয়া যাবে না বলছেন দোকান  মালিক সমিতির সভাপতি মো: হেলাল উদ্দীন। তার মতে, মোটামুটিভাবে বলা যায় দেশের জাতিয় বাজেটের এক তৃতীয়াংশ অর্থাৎ টাকার অংকে দুই লক্ষ হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।
করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি
তৈরী পোশাক শিল্প খাত:
বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের অন্যতম খাত হচ্ছে তৈরী পোশাক শিল্প। রপ্তানী আয়ের সিংহভাগ আসে তৈরী পোশাক রপ্তানী আয় থেকে। বিশ্বব্যাপী করোনা ছড়িয়ে পড়ায় তৈরী পোশাকের অন্যতম ক্রেতা দেশ ইউরোপ , আমেরিকা ক্রয় আদশ বাতিল করেছে। এছাড়াও দেশে করোনার কারণে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটিতে এক মাসের উপরের বন্ধ ছিল সকল কারখানা।
করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি
তৈরী পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানী কারকদের সংগঠন বিজিএমইএর সহ সভাপতি ফয়সাল সামাদ বলেন “করোনায় আসলে দুধরনের ক্ষতি হয়েছে। একটি সরাসরি বা প্রত্যক্ষ ক্ষতি আরেকটি পরোক্ষ ক্ষতি। সরাসরি ক্ষতিটি হচ্ছে ক্রয় আদেশ বাতিল হওয়া। যেসব দেশ তৈরী পোশাকের ক্রয় আদেশ দেন তারা নিজেরাই করোনার সাথে লড়ছেন। তাই তারা আগের ক্রয় আদেশ বাতিল করেছেন।” তিনি জানান, এখন পর্যন্ত প্রায় ৩ দশমিক ৮ মিলিয়ন ডলারের ক্রয় আদেশ বাতিল হয়েছে।
“আর পরোক্ষ ক্ষতিটি হচ্ছে , তৈরী পোশাক খাতের সাথে সংশ্লিষ্ট অনেক খাত আছে সেগুলো ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে, অনেক মানুষ কর্মহীন হয়েছেন। এই ক্ষতির সঠিক হিসাব সম্ভব নয়। তিনি বলেন, তৈরী পোশাক খাতের আর্থিক ক্ষতি মোকাবেলা করে ব্যবসা চালিয়ে নিতে সরকার পাঁচ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন।  এই খাত ঘুরে দাঁড়াতে সহায়ক হবে বলে মনে করেন তিনি।
করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি
রেমিটেন্স:
করোনা সঙ্কটের মধ্যেও বেশ কিছু সুখবর আছে। তার মধ্যে অন্যতম একটি রেমিটেন্স। জুলাই মাসে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে একে একে চারটি রেকর্ড হয়েছে। জুন মাসের শুরুতে ৩৩ বিলিয়ন ডলার থেকে রিজার্ভ ৩৭ বিলিয়ন ডলারের ঘর ছাড়িয়েছে। ২৮ জুলাই দিন শেষে রিজার্ভের অংক গিয়ে ঠেকেছে ৩৭ দশমিক ১০ বিলিয়ন ডলারে। এর আগে গত ৩০ জুন প্রথমবারের মতো ৩৬ বিলিয়ন ডলারের ঘর অতিক্রম করেছিল। করোনা সঙ্কটের মধ্যে সামগ্রিকভাবে প্রবাসীরা খারাপ অবস্থায় থাকলেও বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স ব্যাপক বাড়ছে। একই সাথে প্রচুর বিদেশি ঋণ আসছে। তবে আমদানি কমে যাওয়ায় বৈদেশিক চাহিদার তুলনায় সরবাহ ব্যাপক বেড়ে এভাবে রিজার্ভ বাড়ছে। জানা গেছে, জুলাই মাসের ২৭ তারিখ পর্যন্ত প্রবাসীরা ২২৪ কোটি ডলার সমপরিমাণ অর্থ দেশে পাঠিয়েছেন। এর আগে কখনো এক মাসেও এত অর্থ আসেনি। এতদিন একক মাস হিসেবে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্সের রেকর্ড ছিল গত জুনে। ওই মাসে প্রবাসীরা ১৮৩ কোটি ডলার সমপরিমাণ অর্থ দেশে পাঠান। তার আগে এক মাসে সর্বোচ্চ ১৭৫ কোটি ডলার রেমিট্যান্সের রেকর্ড ছিল ২০১৯ সালের মে মাসে। আর সঙ্কটের মধ্যেও ২০১৯-২০ অর্থবছরে ব্যাংকিং চ্যানেলে মোট এক হাজার ৮২০ কোটি ডলার সমপরিমাণ অর্থ দেশে এসেছে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরের তুলনায় যা ১৭৯ কোটি ডলার বা ১০ দশমিক ৮৮ শতাংশ বেশি।
করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি
করোনা সঙ্কট মোকাবেলায় বিশ্বব্যাংক, আইএমএফ, এডিবিসহ বিভিন্ন বিদেশি সংস্থা থেকে প্রচুর ঋণ পেয়েছে সরকার। মুদ্রা সরবরাহ এভাবে বাড়লেও গত অর্থবছর ৮ দশমিক ৫৬ শতাংশ আমদানি কমে ৫ হাজার ৫৯ কোটিতে নেমেছে। অবশ্য রপ্তানি ১৭ দশমিক ১০ শতাংশ কমে ৩ হাজার ২৮৩ কোটি ডলারে নেমেছে। গত জুন মাসে রিজার্ভে একে একে তিনটি রেকর্ড হয়। মাসের শুরুতে রিজার্ভ ছিল ৩৩ বিলিয়ন ডলারের ঘরে। তবে ৩ জুন প্রথমবারের মতো ৩৪ বিলিয়ন ডলারের ঘর অতিক্রম করে। একের পর এক রেকর্ড হয়ে ৩০ জুন রিজার্ভের পরিমাণ ৩৬ বিলিয়ন ডলারের ঘর ছাড়িয়ে যায়। ২৮ শে জুলাই তা ৩৭ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অতিক্রম করলো। এর আগে সর্বশেষ ৩৩ বিলিয়ন ডলারের ঘর ছাড়িয়েছিল ২০১৭ সালের জুনে। তারপর দীর্ঘদিন রিজার্ভ ৩২ থেকে ৩৩ বিলিয়ন ডলারের ঘরে উঠানামা করছিল। সংশ্লিষ্টরা জানান, বৈধ চ্যানেলে অর্থ পাঠালে ২ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা দেওয়া অব্যাহত আছে।
করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি
আবার বিশ্ব অর্থনীতি স্থবির হয়ে পড়ায় হুন্ডি পথে বৈদেশিক মুদ্রার চাহিদা ব্যাপক কমেছে। কেননা সাধারণত অর্থ পাচারকারী প্রবাসীদের থেকে অবৈধ চ্যানেলে ডলার কিনে এখানে সুবিধাভোগীর হাতে টাকা পৌঁছে দেয়। তবে করোনাভাইরাসের কারণে এখন সব দেশেরই খারাপ অবস্থা। যে কারণে হুন্ডি পথে ডলারের চাহিদা কমেছে। আগে যারা অবৈধ উপায়ে অর্থ পাঠাতেন তাদের অনেকেই এখন ব্যাংকের মাধ্যমে পাঠাচ্ছেন।
করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি
করোনায় কৃষি:
বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাকের এক গবেষণায় উঠে এসেছে , করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) প্রাদুর্ভাবের শুরুর দেড় মাসেই কৃষকের আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ৫৬ হাজার কোটি টাকারও বেশি।
কৃষিতে সরকারের প্রনোদনা:
করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ্য কৃষকদের জন্যে পাঁচ হাজার কোটি টাকার প্রনোদনা তহবিল ঘোষণা করেন সরকার। পাঁচ হাজার কোটি টাকার ঋণ তহবিলের পাশাপাশি বাজেটে সারে ভর্তুকি বাবদ নয় হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়। কৃষি, ফুল-ফল, মৎস্য চাষ, পোল্ট্রি, ডেইরি ফার্ম ইত্যাদি উৎপাদনে এই তহবিল থেকে পাঁচ শতাংশ সুদে ঋণ নিতে পারবেন শুধু গ্রাম অঞ্চলের ক্ষুদ্র ও মাঝারি চাষিরা৷ করোনার এমন সংকটেও বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলে খাদ্য আমদানিদে সরকারকে অতিরিক্ত টাকা গুনতে হচ্ছে না।
আইএমএফ এর সাবেক কর্মকর্তা ও অর্থনীতিবিদ আহসান এইচ মনসুর বলেন,
আইএমএফ এর সাবেক কর্মকর্তা ও অর্থনীতিবিদ আহসান এইচ মনসুর বলেন “শুধুমাত্র কৃষিখাতের পক্ষে সম্ভব নয় অর্থনীতিকে এগিয়ে নেয়া।প্রবাসী আয় বাড়লেও এটি বেশী সময় থাকবে না। কারণ, মধ্যপ্রাচ্যে শ্রমিক ছাটাই শুরু হয়েছে। আবার ব্যবসা বাণিজ্যে মন্দা থাকায় সরকারের লক্ষ্য অনুযায়ী রাজস্ব আদায়ও হবে না। চলতি বছরের শেষ নাগাদ অথবা আগামী বছরের শুরুতে যদি ভ্যাকসিন চলে আসে তাহলে আগামী বছরের জুলাই আগস্ট নাগাদ অর্থনীতির আগের জায়গায় ফিরে আসবে।”
করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি
পরিবহন,.সেবাখাতসহ উৎপাদনশীল সকল খাতই এই করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।ক্ষুদ্র আর মাঝারী খাতের যেসব উদ্যেক্তা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন তারা হয়ত আর কোনদিনই আগের ব্যবসায় ফিরতে পারবে না। তাই সরকার ঘোষিত প্রনোদনা প্যাকেজে ক্ষুদ্র আর মাঝারী খাতকে গুরুত্ব দিতে হবে।
করণার কারনে অর্থনৈতিক ক্ষতি
ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই এর সাবেক সভাপতি ও ইন্দো বাংলা চেম্বারের সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ বলছেন, ভ্যকসিন না আসা পর্যন্ত পুর্ণ উদ্যমে অর্থনীতি সচল হবে না। অপেক্ষা করতে হবে আগামী বছরের জুলাই পর্যন্ত । সরকার ব্যবসা-বাণিজ্য আর অর্থনীতিকে চালিয়ে নিতে মোট ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। তার মতে অর্থনীতিকে সচল করতে ক্ষুদ্র আর মাঝারী খাতকে গুরুত্ব দিতে হবে।একই সাথে করোনার কারণে এখন ব্যবসা-বাণিজ্যের ধরণও পাল্টাবে বলে মনে করেন তিনি। আবদুল মাতলুব বলেন, আগে যারা পোশাক তৈরী করতেন এখন তারা পিপিই তৈরী করছেন। মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার এসবের ব্যবসা বেড়েছে। অর্থাৎ করোনাকে কেন্দ্র করে এখন অধিকাংশ ব্যবসা চলবে।
https://youtu.be/x0lKW4kX5w8
শামীমা দোলা
সম্পাদক
নিউজ নাউ বাংলা.কম
আইএমএফ এর সাবেক কর্মকর্তা ও অর্থনীতিবিদ আহসান এইচ মনসুর বলেন,

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close