জাতীয়

পিলখানা ট্রাজেডির মতো ঘটনার আর পুনরাবৃত্তি হবে নাঃ বিজিবি মহাপরিচালক

২০০৯ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকার পিলখানায় তৎকালীন বিডিআর জওয়ানদের (বর্তমানে বিজিবি) একটি গ্রুপ বিদ্রোহ করে মহাপরিচালকসহ (ডিজি) ৫৭ সেনা কর্মকর্তাকে হত্যা করে। পিলখানার ওই ট্র্যাজেডি থেকে শিক্ষা নিয়ে বিজিবি ঘুরে দাঁড়াচ্ছে বলে জানিয়েছেন মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম।

ইতিহাসে জঘন্যতম ওই হত্যাকাণ্ডের ১১তম বার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বনানীতে সামরিক কবরস্থানে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ কথা বলেন।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক বলেন, পিলখানা ট্র্যাজেডি থেকে শিক্ষা নিয়ে বিজিবি ঘুরে দাঁড়াচ্ছে। ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের ঘটনা আর না ঘটে, সে জন্য আমরা তৎপর রয়েছি। বিজিবি বর্তমানে সমৃদ্ধ একটি বাহিনী। জেলা পর্যন্ত এর গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে।

এর আগে সকাল ৯টায় শহীদদের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে তাদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন রাষ্ট্রপতির পক্ষে রাষ্ট্রপতির সামরিক সচিব মেজর জেনারেল এস এম শামীম উজ জামান এবং প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তার সামরিক সচিব।

পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে শহীদদের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের জন্য সদস্যরা স্যালুট প্রদান করেন। পরে শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এ সময় সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা স্যালুট প্রদান করেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ, ভারপ্রাপ্ত নৌবাহিনী প্রধান রিয়ার অ্যাডমিরাল মােহাম্মদ শাহীন ইকবাল, বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মােস্তাফা কামাল উদ্দীন এবং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল সাফিনুল ইসলাম পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পরে শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া করা হয়।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close