জাতীয়

বুলবুল এখন স্থল নিম্নচাপ, ঝড়ে ৮ জনের মৃত্যু।

স্থল নিম্নচাপে পরিণত হয়ে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এখন অবস্থান করছে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে । ঝড়ে খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালি, বাগেরহাট ও বরগুনায় ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। ভোলায় ট্রলার ডুবিতে নিখোঁজ হয়েছে ৫ জন। এদিকে, এরিমধ্যেই বিপদ সংকেত কমিয়ে আনা হয়েছে। বন্দরগুলোকে ৩ নম্বর স্থানীয় সর্তকতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে । চট্টগ্রাম বন্দরের কাজ শুরু হয়েছে। মংলা বন্দরের পণ্য উঠা-নামা শুরু হবে কাল থেকে। উপকূলী এলাকাগুলোতে ২১ লাখেরও বেশি মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থান করছে ।
ঘূর্নিঝড়টি মাদারীপুর,, ফরিদপুর, কুমিল্লা হয়ে সন্ধ্যার মধ্যে দেশ অতিক্রম করবে বলে নিশ্চিত করেছে আবহাওয়া অফিস।
তিন সমুদ্র বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত নামিয়ে ৩নম্বর সংর্তকতা সংকেত বহাল রাখা হয়েছে। তবে, উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সকল মাছধরা নৌকা ও ট্রলারকে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
ঘুুর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে, খুলনায় দাকোপে ও দিঘলিয়ায় নারীসহ ২ জনের মৃত্যু হয়েছে । জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে দুই ফুট বেশি হওয়ায় কয়রা এলাকার নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। তলিয়ে গেছে ফসলের জমি। বিধ্বস্ত হয়েছে ঘরবাড়ি।
পুটুয়াখালির মির্জাগঞ্জ, বরিশাল, মাদারীপুর ও বাগেরহাটে গাছ চাপায় মৃত্যু হয় ৪ জনের। সাতক্ষীরা ও ভোলায় ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত ও গাছ চাপায় আহত হয় ২০ জন। ঘূর্নীঝড় বুলবুলের প্রভাবে সাতক্ষীরায় প্রায় দুই হাজার ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। ভেসে গেছে মাছের ঘের।
ভোলায় ২ শতাধিক ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। আহত হয়েছে অন্তত ১২ জন। এদিকে সদরের ইলিশা পয়েন্টে মেঘনায় ২০ জন জেলে নিয়ে ডুবে গেছে একটি ট্রালার,। ১৫ জন উদ্ধার হলেও নিখোঁজ রয়েছে ৫ জন। ৬৬৮টি আশ্রয় কেন্দ্র ও কয়েক শত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রায় সাড়ে ৩ লাখ মানুষ আশ্রয় নিয়েছে ।
বরগুনায় ঝড়ে ১ জনের মৃত্যু হয়েছে। পাথরঘাটার বিভিন্ন নদীতে আশ্রয় নিয়েছে শতশত মাছধরা ট্রলার।
মংলার দূর্গতরা জানান, আশ্রয়কেন্দ্র গুলোতে প্রশাসনের পক্ষ এখনো ত্রাণ সহাযতা যায়নি।
লক্ষীপুর, বরিশাল, পিরোজপুরসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি অব্যহত আছে।
এদিকে ১১ ঘন্টা বন্ধ থাকার পর দৌলতদিয়া ও ১৩ ঘণ্টা পর মাওয়া নৌরুটে ফেরী চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।
ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার ত্রান কেন্দ্রগুলোতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। মোতায়েন রয়েছে সেনাবাহিনী। উদ্ধার কাজ ও ত্রাণ তৎপরতার জন্যে প্রস্তুত রয়েছে ১০টি যুদ্ধ জাহাজ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker