জাতীয়

২ নভেম্বর শুরু জেএসসি, জেডিসি পরীক্ষা।

২ নভেম্বর থেকে সারাদেশে শুরু হচ্ছে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা- জেএসসি ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট- জেডিসি পরীক্ষা। এবার মোট ২৬ লাখ ৬১ হাজার ৬৮২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে।
মঙ্গলবার সকালে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানান, এবার জেএসসি ও জেডিসি এই দুই পর্যায়ে ২৬ লাখ ৬১ হাজার ৬৮২ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। এর মধ্যে জেএসসিতে ২২ লাখ ৬০ হাজার ৭১৬ জন এবং জেডিসিতে ৪ লাখ ৯৬৬ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। আর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৯ হাজার ২৬২টি। পরীক্ষা কেন্দ্রের সংখ্যা ২ হাজার ৯৮২টি। এছাড়াও দেশের বাইরে অর্থাৎ জেদ্দা, রিয়াদ, মদিনা, ত্রিপলী, দোহা, সাহাম, বাহরাইন, আবুধাবি ও দুবাইয়ে মোট ৯টি কেন্দ্রে ৪৫৪ জন শিক্ষার্থী এ পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে।
তবে গত বছরের তুলনায় এ বছর পরীক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে ৮ হাজার ৬৫১ জন। ২০১৮ সালে দুই পরীক্ষায় ২৬ লাখ ৭০ হাজার ৩৩৩ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছিল। আর এ বছর পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২৬ লাখ ৬১ হাজার ৬৮২ জন শিক্ষার্থী। এ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন,’ অনেক শিক্ষার্থী কারিগরিসহ অন্য মাধ্যমে চলে যাওয়ায় পরীক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে। তবে বেড়েছে মেয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা। ‘
এবার জেএসসিতে অনিমিয়ত পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২ লাখ ৩৩ হাজার ৩১০ জন এবং জেডিসিতে ৩০ হাজার ২৯১ জন।
জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে শেষ করতে বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এরমধ্যে্য রয়েছে-
এবারও পরীক্ষার্থীদের ৭ বিষয়ে ৬৫০ নম্বরের পরীক্ষা দিতে হবে। ইংরেজী ছাড়া সকল বিষয় পরীক্ষা হবে সৃজনশীল পদ্ধতিতে।
শারীরিক শিক্ষা ও স্বাস্থ্য, কর্ম ও জীবনমুখী শিক্ষা, চারু ও কারুকলা, কৃষি শিক্ষা, গার্হস্থ্য বিজ্ঞান, আরবি, সংস্কৃত, পালি বিষয়ে এনসিটিবির নির্দেশনা অনুযায়ি ধারাবাহিক মূল্যায়ন এর ব্যবস্থা করা থাকছে।
পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে হবে। যে শিক্ষার্থী দেরী করবে তার বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করে তা বোর্ডকে অবহিত করতে হবে।
এবারো শ্রবন ও অন্যান্য প্রতিবন্ধীদের জন্য ২০ মিনিট বাড়তি সময় রাখা হয়েছে।
অটিস্টিক, ডাউন, সিন্ড্রোম, সেরিব্রালপলছি পরীক্ষার্থীদের জন্য অতিরিক্ত ৩০ মিনিট সময় রাখা হয়েছে।
শিক্ষার্থীদের আলাদাভাবে বৃত্তি দিতে হবেনা।
পরীক্ষা চলাকালে কেন্দ্রের ২০০ মিটারের মধ্যে শিক্ষক, শিক্ষার্থীসহ কেউ মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেনা।
২৫ অক্টোর থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত দেশের সকল কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখারও সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে।
প্রশ্নপত্র ফাঁস এবং ফাঁসের গুজবমুক্ত পরিবেশে পরীক্ষা শেষ করার জন্য কোনো প্রতারক যাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে ভুয়া তথ্য, মিথ্যা প্রশ্নপত্র তৈরি করতে না পারে সেজন্য সকলকে সজাগ থাকতে বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী।
শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপুমনি বলেছেন, সরকারের নানা উদ্যোগের কারণে শিক্ষাক্ষেত্রে ব্যপক পরিমানগত ও গুনগত পরিবর্তন এসেছে। তিনি বলেন, শ্রেনিকক্ষে শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার হার কমেছে। বেড়েছে মেয়ে শিক্ষার্থীদের সংখ্যা। তিনি বলেন, সরকার জোড় দিচ্ছে কারিগরি শিক্ষার দিকে।
জেএসসি জেডিসি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে প্রতারক চক্র এখন প্রশ্নপত্র ফাঁস করেনা, চক্রটি বিভ্রান্ত ছড়ায়। এই চক্রের গুজবে বিভ্রান্ত না হতে সকল অভিভাবকদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মণি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker