জাতীয়

নেতিবাচক রাজনীতি থেকেই শুদ্ধি অভিযানের সমালোচনা করছে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শুদ্ধি অভিযান দেশে বিদেশে প্রশংসিত হলেও নেতিবাচক রাজনীতির কারণেই বিএনপি সমালোচনা করছে। জাতীয় কাউন্সিলে এবার নতুন আসবে বলেও জানান তিনি। স্বেচ্ছাসেব লীগের কাউন্সিল প্রক্রিয়া থেকে সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ দেবনাথকে সরিয়ে দেয়ার পর দিনই নির্মল গুহকে আহ্বায়ক ও মেসবাউল হক সাচ্চুকে সদস্য সচিব ঘোষণা দেন ওবায়দুল কাদের।
২০ ও ২১ ডিসেম্বর জাতীয় কাউন্সিল নিয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় যোগ দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, দলে বিতর্কিতদের স্থান থাকবে না, নেতৃত্বে আসবে নতুন নতুন মুখ।
দুর্নীতিবাজ, চাঁদাবাজ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতিতে সরকারের শুদ্ধি অভিযান আন্তজার্তিকভাবে প্রশংসিত হয়েছে বলে জানান ওবায়দুল কাদের। এক্ষত্রে বিএনপির অবস্থানের সমালোচনা করেন তিনি।
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে উদ্দেশ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘পুলিশ আওয়ামী লীগকে সরকারে রাখে নাই, জনগণের সমর্থনে এবং ইচ্ছায় আমরা দেশ চালাচ্ছি।’
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘শুদ্ধি অভিযান কে, কীভাবে নিচ্ছেন, কার স্বার্থে আঘাত লাগছে জানি না, তবে দেশে-বিদেশে তা ব্যাপক প্রশংসা পাচ্ছে। খারাপ লোকজন দলে দরকার নেই। যারা সন্ত্রাস চাঁদাবাজ, টেন্ডারবাজ তাদের দরকার নেই। যারা মাস্তান তারাই অনুপ্রবেশকারী। যাদের ভোগের ইচ্ছে আছে, তাদের দরকার নেই। আওয়ামী লীগ জনগণের জন্য কাজ করে, তা না করলে নিবার্চন এলে জনগণ ব্যালটের মাধ্যমে শাস্তি দিয়ে দেবে। শিশু যেমন মা ছাড়া বাঁচতে পারে না। আওয়ামী লীগ মানুষ ছাড়া বাঁচতে পারবে না। কাজেই সবাই সতর্ক থাকবেন। জনগণকে কষ্ট দেবেন না। উন্নয়নের সঙ্গে আচরণ ভালো না হলে এই উন্নয়নের কোনও লাভ নেই।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি আর কিছু না পারুক তারা ষড়যন্ত্রে ওস্তাদ। কিন্তু জনগণ বিএনপির সঙ্গে নেই। নেতিবাচক রাজনীতির কারণে বিএনপি জনগণের সাড়াও পাচ্ছে না। এজন্যই তারা কোনও কর্মসূচিতে সমর্থন পায় না।’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপি আমলে একটি অপকর্মেরও সাজা হয়নি। কিন্তু আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক ও প্রশাসনিক ব্যবস্থা নিচ্ছে। মির্জা ফখরুল বড় বড় কথা বলেন, কিন্তু তারা একটি অপকর্মেরও শাস্তি দিতে পারেননি। শেখ হাসিনার সৎ সাহস আছে। অপকর্ম করলে শাস্তি পেতেই হবে। আওয়ামী লীগ বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।’
ক্যাসিনোকা-ে নাম আসায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি মোল্লাহ মোহাম্মদ আবু কাউসারকে অব্যাহতি দেয়ার পর সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ দেবনাথকেও সম্মেলন কার্যক্রম থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। এ অবস্থায় সম্মেলন পর্যন্ত নির্মল গুহকে আহ্বায়ক ও গাজী মেসবাউল হক সাচ্চুকে সদস্যসচিব করার ঘোষণা দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।
মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী আবুল হাসনাতের সভাপতিত্বে বর্ধিত সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন— ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রমুখ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker