জাতীয়

মামলা প্রমাণ করে আসামীদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের চেষ্টা করেছি: পিবিআই প্রধান

নুসরাত হত্যা মামলার রায়ের পর তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার বলেছেন, ‘আমাদের সর্বোচ্চ মেধার প্রয়োগ করে আমরা চেষ্টা করেছি একটি নির্ভুল চার্জশিট দিতে। মামলা প্রমাণের জন্য যা যা প্রয়োজন সবগুলোই প্রয়োগের সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। আমাদের যেসব সদস্য তদন্ত কাজে জড়িত ছিলেন, আমরা তাদের কনভিন্স করতে পেরেছি যে অপরাধীদের শাস্তি হওয়া উচিত। আমাদের পরিবারেও এমন হতে পারে এটা আমরা বোঝাতে পেরেছি।
তিনি আরো বলেন, ‌’একটা নির্ভুল বিচার হলে সমাজের সব ক্ষেত্রে একটা বহুমুখী প্রভাব পড়তে পারে। এসব বিষয় মাথায় রেখে আমরা যতদূর পেরেছি আমরা চেষ্টা করেছি আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি যাতে হয় এবং আমরা সেটা পেয়েছি।’
সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী ছিলেন নুসরাত জাহান রাফি। তাকে যৌন হয়রানির অভিযোগ ওঠে ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় নুসরাতের মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে ২৭ মার্চ সোনাগাজী থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর অধ্যক্ষকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে মামলা তুলে নিতে বিভিন্নভাবে নুসরাতের পরিবারকে হুমকি ধামকি দেওয়া হয়। গত ৬ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে পরীক্ষা দিতে মাদ্রাসা কেন্দ্রে যান নুসরাত। এসময় তাকে পাশের ভবনের ছাদে ডেকে নিয়ে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দেওয়া হয়। ১০ এপ্রিল রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নুসরাতের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নুসরাতের বড় ভাই বাদী হয়ে ৮ এপ্রিল সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন।
১০ এপ্রিল থানা থেকে মামলাটি পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (পিবিআই) কাছে হস্তান্তর করা হয়। ২৯ মে এ মামলার প্রধান আসামি অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলাসহ ১৬ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে ৮০৮ পৃষ্ঠার অভিযোগপত্র দাখিল করে পিবিআই। চার্জশিটভুক্ত ১৬ আসামির মধ্যে ১২ জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker