জাতীয়

নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে নিয়ম মানার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর।

নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে চালক ও পথচারীদের সচেতন হওয়ার আহবান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ট্রাফিক আইন ও নিয়মাবলি সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির তাগিদ দিয়েছেন তিনি। আর, গাড়ির ডিজাইন মেনে বডি নির্মাণ করা না হলে ব্যবস্থা নেয়াসহ ফিটনেসবিহীন গাড়ি বন্ধের নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
রাজধানীর কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে নিরাপদ সড়ক দিবসের আলোচনায় অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সড়কে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় ট্রাফিক আইন মেনে গাড়ি চালানোসহ জনসচেতনতার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন করেন সরকার প্রধান।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সড়কে দুর্ঘটনার জন্য শুধু চালকই নয়, পথচারীদেরও দায় আছে। রাস্তা পারাপারের সময় যাত্রীদের আরও সচেতন থাকতে হবে। কাউকে অধৈর্য হলে চলবে না। ধীরেসুস্থে, দেখেশুনে রাস্তা পার হতে হবে।’
প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘অনেক ড্রাইভার অতিরিক্ত সময় ধরে গাড়ি চালান। এভাবে টানা গাড়ি চালিয়ে তারা ক্লান্ত হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে তাদের ঝিমুনি আসে। আর এসব কারণেই সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে। তাই ড্রাইভারদের উচিত অতিরিক্ত সময় ধরে গাড়ি না চালানো। এই ব্যাপারে সচেতন হতে হবে।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া কেউ গাড়ি চালালে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া বেপরোয়া গাড়ি চালানো, ওভারটেক, এসব কারণে প্রতিনিয়তই দুর্ঘটনা ঘটছে। তাই এ ব্যাপারে অবশ্যই সচেতন হতে হবে।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘যারা গাড়ি চালান এবং যারা চড়েন তাদের সবারই দায়িত্ব আছে। চালকদের উচিত সচেতন হয়ে গাড়ি চালানো। আর যারা যাত্রী রয়েছেন, তাদেরও সচেতন হতে হবে। কেউ বাসে বসে যেন জানালার বাইরে হাত বের করে না রাখেন, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল বন্ধ করা হবে। কিছু কিছু অসাধু পরিবহন মালিক অধিক লাভের আসায় ফিটনেসবিহীন গাড়ি কোনোমতে রংচং মেখে রাস্তায় ছাড়ে। এগুলো করতে দেওয়া যাবে না।’
শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘আমরা সারাদেশে চার লেনের রাস্তা করার ব্যবস্থা করছি। ইতোমধ্যে অনেক সড়ক চার লেন হয়ে গেছে। যাতে দুর্ঘটনা কমে, সেভাবে কাজ করছি। প্রথমবার ক্ষমতায় আসার পর অর্থনৈতিকভাবেব দুর্বল ছিলাম কিছুটা। এবার আর সেটা নেই। সব পরিবর্তন হবে যান চলাচলে। এমনকি চালকদের বিশ্রামের ব্যবস্থাও করছি। ইতোমধ্যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে চালকদের বিশ্রাম এবং উন্নত ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করার। উপজেলা পর্যায় পর্যন্ত ট্রেনিংয়ের ববস্থা করবো আমরা।’
মহাসড়কে চালকদের জন্য বিশ্রামাগার নির্মাণের কথা জানান প্রধানমন্ত্রী। তাগিদ দেন গাড়ি তৈরিতে যথাযথ ভাবে আইন ও নিয়ম অনুসরণ করতে।
স্কুল পর্যায় থেকেই ট্রাফিক আইন শিক্ষা দেয়ার তাগিদ দিয়ে, ফুটপাত দখলমুক্ত করার কথা বলেন তিনি ।
সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের কারণেই দেশের সার্বিক উন্নয়ন নিশ্চিত হচ্ছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker