রাজনীতি

ছাত্ররাজনীতি করে জেল খেটেছেন নোবেলজয়ী অভিজিৎ।

নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায় ভাল রাঁধতে পারেন। শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের ভক্ত। নোবেল পুরস্কার ঘোষণার পর থেকই এরকম নানা খবর সামনে আসছে। এবার উঠে এল আরও চমকপ্রদ একটি তথ্য। ছাত্রজীবনে দশ দিন তিহার জেলে কাটাতে হয়েছিল তাঁকে। এই তথ্য খোদ অভিজিৎই ২০১৬ সালে জানিয়েছিলেন একটি জাতীয় সংবাদমাধ্যমকে।
সময়টা ১৯৮৩ সাল। জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে অভিজিতের শেষ বছর ছিলো সেটা। সে বছরই ছাত্র সংসদের প্রেসিডেন্টকে বরখাস্ত করার ঘটনার প্রতিবাদে উপাচার্যকে অনির্দিষ্টকালের জন্যে ঘেরাও করেন অভিজিতরা। সেই কারণেই তাঁদের গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়া হয় তিহার জেলে।
অভিজিৎ বিনায়ক সেই ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে লেখেন, ‘আমাদের রীতিমতো পেটানো হয়েছিল। তারপরে তিহার জেলে নিয়ে যাওয়া হয়। দেশদ্রোহিতার অভিযোগ আনা হয়েছিল আমাদের নামে। এমনকি, খুনের চেষ্টার ধারাতেও মামলা দেওয়া হয়। ঈশ্বরের কৃপায় পরে সেই ধারা তুলে নেয় পুলিশ। কিন্তু দশটা দিন তিহার জেলেই রাত্রিবাস করতে হয়েছিল সে বার।’
অভিজিৎ বিনায়ক সেই ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে লেখেন, ‘আমাদের রীতিমতো পেটানো হয়েছিল। তারপরে তিহার জেলে নিয়ে যাওয়া হয়। দেশদ্রোহিতার অভিযোগ আনা হয়েছিল আমাদের নামে। এমনকি, খুনের চেষ্টার ধারাতেও মামলা দেওয়া হয়। ঈশ্বরের কৃপায় পরে সেই ধারা তুলে নেয় পুলিশ। কিন্তু দশটা দিন তিহার জেলেই রাত্রিবাস করতে হয়েছিল সে বার।’
২০১৬ সালের জেএনইউ-তে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ নিয়ে যে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল তাই নিয়েই ছিল অভিজিতের ওই কলাম। নিজের লেখায় অতীত তুলে এনে এই ধরনের ঘটনাকে ‘রাষ্ট্রের গা-জোয়ারি’ বলেও উল্লেখ করেন অভিজিৎ বিনায়ক। তাঁর মতে, ১৯৮৩ বা ২০১৬, দু’বারই বিশ্ববিদ্যালয়ের মতোসুরক্ষিত পরিসর আর নিরাপদ থাকেনি রাষ্ট্রের হস্তক্ষেপের ফলে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker