জাতীয়

যতদিন সন্ত্রাস-মাদক-দুর্নীতি বন্ধ না হবে ততদিন অভিযান: ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দলে শুদ্ধি অভিযান চলছে, চলবে। যতদিন সন্ত্রাস, মাদক ও দুর্নীতি বন্ধ না হবে ততদিন এ অভিযান চলবে। সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলে গেছেন, যত বড় গডফাদার হোক না কেন অপরাধীদের কোনও ছাড় নেই। খুন, ধর্ষণ, টেন্ডারবাজি এসব দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকার সচেষ্ট আছে। এসব ক্ষেত্রে সরকার নির্বিকার থাকবে না। অভিযান অব্যাহত রাখার নির্দেশ দিয়ে গেছেন প্রধানমন্ত্রী।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে এয়ারপোর্টে কথা হয়েছে, সবার সামনে তিনি বলেছেন এ ব্যাপারে।প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এ ব্যাপারে যেন কোনো আপস না হয়, আমি অনুপস্থিত থাকলেও যেন তা কনটিনিউ হয় বলে জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।গত সপ্তাহে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে যুবলীগ নেতাদের নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।এরপর ঢাকায় যুবলীগ নেতাদের ‘৬০টি ক্যাসিনো চালানোর’ খবর আসে সংবাদমাধ্যমে। গত বুধবার ফকিরাপুল ইয়ংমেনস ক্লাবসহ চারটি ক্লাবে অভিযান চালিয়ে জুয়ার সরঞ্জাম, কয়েক লাখ টাকা ও মদ উদ্ধার করে র‌্যাব।অবৈধভাবে ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে ওই ক্লাবের সভাপতি যুবলীগের ঢাকা মহানগরের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকেও গ্রেপ্তার করা হয়। এর দুই দিনের মাথায় শুক্রবার ঢাকার কলাবাগান ক্রীড়াচক্র ও ধানমণ্ডি ক্লাবেও অভিযান চালায় র‌্যাব।কলাবাগান ক্রীড়াচক্র থেকে ক্লাব সভাপতি কৃষক লীগ নেতা সফিকুল আলম ফিরোজসহ পাঁচজনকে অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করা হয়।এছাড়া যুবলীগ নেতা পরিচয়ে চাঁদাবাজি, ঠিকাদারী ব্যবসা, দরপত্র নিয়ন্ত্রণসহ নানা অভিযোগে জি কে শামীমকে তার কার্যালয় থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযান শুরুর পর ক্ষমতাসীন দলের অনেক নেতা গা-ঢাকা দিলেও কারও কারও ওপর নজর রাখা হয়েছে বলে জানান ওবায়দুল কাদের।এক প্রশ্নে তিনি বলেন, কারও সঙ্গে কোনো আপস বা ছাড় দেওয়ার প্রশ্ন নেই। শুরু হয়েছে, দেখুন, ওয়েট অ্যান্ড সি, কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়। মফস্বলে অনেকে অ্যারেস্ট হচ্ছে, জেলা পর্যায়ে অনেকে আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে, যারা এসব অপকর্মের মধ্যে রয়েছে।তিনি বলেন, শুধু মুখের কথা নয়। আমরা মিন করছি, শেখ হাসিনা মিন করছেন, তাই ব্যবস্থা নেওয়া শুরু হয়েছে। এ অভিযান চলবে যতদিন না দুনীতি, মাদকের চক্রকে ভেঙ্গে দিতে পারি।ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটসহ আওয়ামী লীগের অনেক নেতাদের নাম আসলেও তাদের কেন গ্রেপ্তার হচ্ছে না, এ প্রশ্নে কাদের বলেন, অ্যাকশনটা শুরু হল এক সপ্তাহ, সবকিছু যাচাই-বাছাই করা হবে। যারা অ্যারেস্ট হয়েছে তারা কি কম অপরাধী?কাজেই এখানে কেউ পার পাবে না, কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। কিছু কিছু বিষয় আছে সরকার, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা খোঁজ খবর নিচ্ছে।তিনি আরও বলেন, অনেকে তো গা ঢাকাও দিয়েছে, কাজেই এদের খুঁজে বের করতে হবে, নজরদারীতে রাখা হয়েছে এবং অতীতে যারা হয়তো নিজেকে আড়াল করে রেখেছে, খোঁজা হচ্ছে, ছাড় দেওয়া হবে না।ওবায়দুল কাদের বলেন, “আমি এ কথা কখনই বলব না যে অমুকের ব্যাক গ্রাউন্ড অমুক দল। এখন তারা অপরাধী হিসেবে, সন্ত্রাসী হিসেবে ধরা পড়ছে আওয়ামী লীগ বা তার কোনো সহযোগী সংগঠনের পরিচয়ে। আমরা এটাকেই দেখব। এখন যখন আমাদের দলের পরিচয়ে অপরাধ করছে, আমার দলের লোক হিসেবে শাস্তি দিচ্ছি।”গ্রেপ্তার জি কে শামীম সরকারের বড় বড় কাজ করছে কিভাবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “এটা যদি আগে আপনি বের করতে পারতেন ভাল হত না? এটা সরকারই করেছে। সরকারকে দেখিয়ে দেবে সাংবাদিকরা। কোথায় রাস্তা খারাপ, কোথায় ব্রিজ পড়ো পড়ো অবস্থা- এ বিষয়গুলো তো সাংবাদিকরাই আমাদের দেখান। কাজেই বিষয়টা আপনাদের অগোচরেই রয়ে গেছে।’ কাদের বলেন, “আপনারা একটু বের করুন কাদের কাদের ঘুষ দিয়েছে। কেউ বসে নেই সরকারের পক্ষ থেকে আঁটঘাট বেঁধেই নেমেছি ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker